২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

লৌহজং ইউএনওর মোবাইল নাম্বার ক্লোন করে চাঁদাদাবী

স্টাফ রিপোর্টার, মুন্সীগঞ্জ ॥ লৌহজং উপজেলা নির্বাহী কমকর্তা (ইউএনও) মো. খালেকুজ্জামানের মোবাইল নাম্বার ক্লোন হয়েছে। তাঁর নাম্বার থেকে দুই জন ইউপি চেয়ারম্যানের নাম্বারে ফোন করে চাঁদাদাবী করা হয়েছে। এতে অফিস পাড়ার চাঞ্চলের সৃষ্টি হয়েছে।

উপজেলার কনকসার ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ জানান, বুধবার সকাল ১১টার দিকে ইউএনওর মোবাইল ০১৭৬২ ৬৮৭২৫৯ নাম্বার থেকে একটি ফোন আসে। ফোনটি রিসিভ করার সাথে সাথে অপর প্রান্ত থেকে বলা হয়, ‘চেয়ারম্যান সাহেব আপনাকে একটি বিশেষ প্রকল্প থেকে বড় একটি বরাদ্দ পাইয়ে দিবো। এর জন্য এক লাখ টাকা দিতে হবে। আমি একটি বিকাশ নাম্বার দিচ্ছি। ০১৭৫৩৩১০৫৭১ নাম্বারে টাকাটা বিকাশ করে দেন’।

চেয়ারম্যান আজাদ জানান, কথাগুলোর শুনার সময়ই মনে হচ্ছিল এটি ইউএনও স্যারের গলা নয়। তখন আমি কৌশল অবলম্বন করে তাকে বলি, স্যার বিকাশের কি দরকার আমি আপনাকে ক্যাশ দিয়ে দেই। এ রকম কথায় অপর প্রান্ত থেকে না সুচক জবাব দিয়ে ফোন রেখে দেন। এর সাথে সাথেই আমি ইউএনও স্যারের নাম্বারে ফোন করি। কিন্তু নাম্বারটি শুধুই বিজি পাচ্ছিলাম। এরই ফাঁকে আবারো ইউএনও স্যারের নাম্বার থেকে ফোন আসে। বললো, চেয়ারম্যান সাহেব টাকাটা বিকাশ করেছেন কি? আমি বললাম স্যার আমি টাকা নিয়ে আপানর অফিসে আসছি। এ কথা শুনে অপর প্রান্ত থেকে ফোন রেখে দেন। পরে ইউএনও স্যারের সাথে আলাপ করে জানতে পারলাম তিনি এ ধরণের ফোন করেনি। কারণ ইউএনও সাবেহ এ ধরণের লোক নয় এটা আমি আগেই জানতাম। কখনও আমাদের কাছ থেকে কোন টাকা পয়সা নেননা। আমারা বুঝতে পারলাম ইউএনও সারের মোবাইল নাম্বারটি আসলে কেউ ক্লোন করে ফোন দিয়েছিল। একই ধরণের ফোন পেয়েছেন খিদির পাড়া ইউটি চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদও। এই নিয়ে চেয়ারম্যানসহ লৌহজং অফিস পাড়ায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।