১৩ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

তেজগাঁওয়ে গ্রিল কেটে বাসায় ঢুকে তিন ভাই-বোনকে কুপিয়েছে দুর্বৃত্তরা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ রাজধানীর তেজগাঁওয়ে দুর্বৃত্তরা গ্রিল কেটে একটি বাসায় ঢুকে তিন ভাই-বোনকে গুলি চালিয়ে ও এলোপাতাড়ি কুপিয়েছে। পরে তাদের ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশ জানায়, এটি ডাকাতির ঘটনা। তবে আহতের পরিবারের অভিযোগ, তারা খ্রীস্টান সম্প্রদায় বলে পরিকল্পিতভাবে এ হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ ব্যাপারে হামলাকারীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন তারা। বৃহস্পতিবার ভোরের দিকে তেজগাঁও আরজতপাড়া এলাকার একটি ছয়তলা ভবনের দ্বিতীয় তলায় এ ঘটনা ঘটে।

তেজগাঁও থানার ওসি মাজহারুল ইসলাম জানান, আহত দুই ভাই রঞ্জন ডি’ক্রুজ (৪৫) ও রাজেশ ডি’ক্রুজের (৪২) পায়ে গুলি ও ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তাদের ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের বোন বিপাশা ডি’ক্রুজের (৪১) হাতে ধারালো অস্ত্রের আঘাত লেগেছে। তবে তা গুরুতর নয়। ওসি জানান, ডাকাতরা ওই বাসায় তাদের গুলি ও কুপিয়ে ডাকাতির চেষ্টা চালিয়েছে। তবে কিছু খোয়া যায়নি। এটি স্রেফ ডাকাতির চেষ্টা।

ঘটনাস্থল ঘুরে দেখা গেছে, ছয়তলা ভবনের দোতলায় তিন কক্ষের ওই বাসায় তিন ভাই-বোন ছাড়াও তাদের মা এবং রাজেশের স্ত্রী ও এক সন্তান থাকেন। ওই কক্ষের ব্যালকনির দেয়াল ও মেঝেতে রক্তের ছোপ ছোপ দাগ। ওই বাড়ির বাইরে পাশের ভবনের দেয়ালে রক্তমাখা হাতের বেশ কয়েকটি ছাপ দেখা যায়। তেজগাঁও থানার ওসি মাজহারুল ইসলাম জানান, ভোর পৌনে ৪টার দিকে জানালার গ্রিল কেটে অন্তত তিনজন ডাকাত ওই বাসায় ঢুকে লুটপাটের চেষ্টা চালায়। তাদের বাধা দিতে গেলে তিন ভাই-বোনকে ডাকাতরা এলোপাতাড়ি কোপায় এবং গুলি করে। এরই মধ্যে আশপাশের লোকজন টের পেয়ে গেলে ডাকাতরা কোন কিছু না নিয়েই পালিয়ে যায় বলে পুলিশের ধারণা। হামলাকারীদের সবাই মুখোশ পরে ছিল। ওসি জানান, সম্ভবত ডাকাতরা পালানোর সময় পাশের বাড়ির দেয়ালে রক্তমাখা হাত মুছতে মুছতে গেছে। এতে দেয়ালে হাতের ছোপ ছোপ রক্তের দাগ পড়ে রয়েছে। তিনি জানান, ডাকাতরা ওই বাড়ির পশ্চিম দিকের গলি দিয়ে দেয়াল টপকে পালিয়ে গেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। ওসি জানান, বাড়ির ব্যালকনিতে গুলির খোসা ও বাসার ভেতরে চাপাতি এবং একটি রেঞ্জ পাওয়া গেছে। আর বাড়ির বাইরে পাওয়া গেছে রক্তমাখা একটি শার্ট। এ ঘটনার খবর পেয়ে সকালে মহানগর পুলিশের যুগ্ম কমিশনার কৃষ্ণপদ রায়, তেজগাঁও বিভাগের উপ কমিশনার বিপ্লব কুমার সরকারসহ উর্ধতন পুলিশ কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ ব্যাপারে যুগ্ম কমিশনার কৃষ্ণপদ রায় জানান, প্রাথমিকভাবে এ ঘটনা আমাদের কাছে দস্যুতা বলে মনে হয়েছে। তবে আহতের পরিবারের সদস্যদের অভিযোগ গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হচ্ছে। তদন্ত করা হচ্ছে। স্থানীয়রা জানান, এই ঘটনার কিছু সময় আগে ওই এলাকার আরেক বাসায় (৫১ আরজতপাড়া) দরজা ভেঙ্গে হামলার চেষ্টা হয়েছিল। ওই বাসার গৃহকর্তা চিকিৎসক এমকে বড়াল জানান, তার বাসার নিচতলাতে ভোরের দিকে দরজা ভেঙ্গে ঢোকার চেষ্টা হয়েছে। আমার বাড়ির গৃহকর্মী টের পেয়ে চিৎকার করলে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। এর আগে গত ১৮ ফেব্রুয়ারি রাজেশদের বাসার পাশে আরেক বাসায় ডাকাতি হয়েছিল। ডাকাতরা অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে ২০ ভরি স্বর্ণালঙ্কার, দুই লাখ টাকাসহ মূল্যবান মালামাল লুটে নিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে তেজগাঁও থানার ওসি (অপারেশন) তাজুল ইসলাম জানান, দুর্বৃত্তরা জানালা ভাঙেনি। এক ধরনের মেডিসিন দিয়ে তা বাঁকানো হয়েছে। তিনি ধারণা করছেন, কোন বাচ্চাকে ভেতরে প্রবেশ করিয়ে দরজা খুলেছে দুর্বৃত্তরা। তিনি জানান, দুর্বৃত্তরা বাসা থেকে কিছু নিতে পারেনি। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।