১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মুন্সীগঞ্জে প্রতিশ্রুতির ফুলঝুরি

স্টাফ রিপোর্টার, মুন্সীগঞ্জ ॥ বুধবার মুন্সীগঞ্জের দুটি পৌরসভায় নির্বাচনী প্রচার শুরু হয়েছে। তাই মাইকিং, প্রার্থীদের বাড়ি বাড়ি ভোট প্রার্থনা, উঠোন বৈঠক, জনসংযোগ সবই চলছে। নির্বাচনী জ্বরে সরগরম হয়ে উঠেছে মফস্বল শহর। প্রার্থীরা নানা কৌশলে ভোটারদের কাছে তাদের উপস্থাপনা করছেন, দিচ্ছেন প্রতিশ্রুতির নানান ফুলঝুরি। পোস্টার ঝুলানো হয়েছে গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে। বিএনপির অংশগ্রহণে নির্বাচন চিত্রে যোগ হয়েছে নতুন মাত্রা। ভোটের লড়াই হচ্ছে সেয়ানে সেয়ানে। তবে মিরকাদিমে বিএনপি প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিলে সেখানে কিছুটা বিএনপি শিবিরে হতাশা বিরাজ করছে। আপীল ছাড়াও স্বতন্ত্র প্রার্থী নিয়ে বিএনপির মিশনের সুযোগ নেয়ার প্রস্তুতি চলছে।

ধলেশ্বরী তীরের প্রাচীন জনপদ মুন্সীগঞ্জ এবং বন্দরনগরী মিরকাদিমে এখন যেন নির্বাচনী উৎসব চলছে। চায়ের স্টল থেকে হাটবাজার, অফিস-আদালত সর্বত্রই নির্বাচনের আলাপচারিতা। আর প্রার্থী ও তার সমর্থকদের আনাগোনাতো রয়েছেই। মসজিদ মন্দিরেও প্রার্থীরা হানা দিচ্ছেন। ভোটারদের মন জয়ে অনেক কৌশলই প্রয়োগ করা হচ্ছে। এই নির্বাচনী বাজারে ভোটারদের কদরও বেড়ে গেছে। তবে ভোটাররাও প্রার্থী নির্বাচনের ক্ষেত্রে বিচার বিশ্লেষণ করছেন।

মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার আওয়ামী লীগ প্রার্থী হাজী ফয়সাল বিপ্লব ভোটারদের প্রত্যাশা পূরণ করে ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনী বৈতরণী পার হওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। তিনি বলেন, নির্বাচনে জয়ী হলে সন্ত্রাস নির্মূল থাকবে। তিনি আরও বলেন, পৌরসভায় কোন ধরনের নেশা ও নেশা জতীয় দ্রব্য কেনাবেচা বন্ধ করে দেবেন। সেই সঙ্গে নাগরিক সুবিধা বৃদ্ধি করবেন তিনি। বিএনপি প্রার্থী বর্তমান মেয়র একে ইরাদত মানু একইভাবে আশাবাদী বিজয় নিয়ে। তিনিও ভোটারদের আশা পূরণে দৃঢ়তার কথা বলেন।

একই রকম সুর মিরকাদিমের বর্তমান মেয়র ও আওয়ামী লীগ প্রার্থীর শহিদুল ইসলাম শাহীনেরও। এ পৌরসভায় বিএনপি প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল হওয়ায় এখন স্বতন্ত্র প্রার্থী আওয়ামী লীগের মনসুর আহম্মেদ কালামকে বিএনপির বিকল্প প্রার্থী হিসেবে ভাবা হচ্ছে।