২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

গাপটিলের সেঞ্চুরিতে প্রথম দিন কিউইদের

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ এর আগে টেস্টে একদিনেই ৪৫২ রান তোলার রেকর্ডও আছে নিউজিল্যান্ডের। ২০০৫ সালে জিম্বাবুইয়ে সফরে হারারে টেস্টের প্রথম দিনে এ রান তুলতে ৯ উইকেট হারিয়েছিল তারা। টেস্ট ক্রিকেটে একদিনে চার শতাধিক রান এছাড়া আরও একবার করতে পেরেছিল তারা গত বছর ক্রাইস্টচার্চে। বছর ঘুরতেই সেই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে আবারও একদিনেই বড় সংগ্রহ গড়েছে তারা, ডানেডিনে শুরু হওয়া প্রথম টেস্টের প্রথম দিন শেষে ৪০৯ রান তুলেছে নিউজিল্যান্ড। তবে তৃতীয়বারের মতো টেস্টের একদিনে চার শতাধিক রান তুলতে পারলেও আগের মতোই বেশি উইকেট ধরে রাখতে পারেনি তারা। এবার হারিয়েছে ৮ উইকেট। ওপেনার মার্টিন গাপটিল দীর্ঘ ৪০ ইনিংস পর আবারও শতকের দেখা পেয়েছেন। টেস্টে ২০০০ রানের মাইলফলকও ছুঁয়েছেন এর মাধ্যমে। পেসারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে কিউইদের ৮ উইকেট তুলে নিয়ে অবশ্য সন্তুষ্ট লঙ্কান শিবিরও।

নিউজিল্যান্ড সফরে সম্প্রতি টস জিতে গেলে কোন দলই আগে ব্যাটিং করতে চায় না। ২০১০ সালে সর্বশেষবার ওয়েলিংটন টেস্টে পাকিস্তানের বিপক্ষে টস জিতে ব্যাট করেছিল স্বাগতিকরা। এরপর কিউই ভূমিতে টানা ১৫ টেস্টে আর কোন দলই টস জিতে ব্যাটিং নেয়নি। সফরকারী শ্রীলঙ্কাও ডানেডিনে সে পথেই হেঁটেছে। টস করার সঙ্গে সঙ্গেই একটি রেকর্ড ছুঁয়ে ফেলেন অধিনায়ক ব্রেন্ডন ম্যাককুলাম। অভিষেক হওয়ার পর টানা ৯৮ টেস্ট খেলেছেন তিনি। টানা টেস্ট খেলার এ রেকর্ডটি এখন যৌথভাবে গাপটিল ও দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক এবি ডি ভিলিয়ার্সের। কিন্তু লঙ্কানদের এই সিদ্ধান্তটা ভুল ছিল তা বুঝিয়ে দিয়েছেন নিউজিল্যান্ডের ব্যাটসম্যানরা। যদিও গাপটিলের সঙ্গে বেশিক্ষণ থাকতে পারেননি টম লাথাম (২২)। দ্বিতীয় উইকেটে কেন উইলিয়ামসন নামার পর দীর্ঘক্ষণ লঙ্কান বোলারদের ঘাম ঝরিয়ে যেতে হয়েছে। ১৭৩ রানের জুটি গড়েন গাপটিল-উইলিয়ামসন। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে এটি টেস্টে নিউজিল্যান্ডের দ্বিতীয় উইকেটে সেরা জুটি। গাপটিল কিছুটা ধীরস্থির থাকলেও উইলিয়ামসন ছিলেন চড়াও। তিনি ১২৩ বলে ১২ চারে ৮৮ রান করে সাজঘরে ফেরেন। চলতি বছর ৮৫ এর বেশি মোট ১৩ ইনিংস খেললেন উইলিয়ামসন। এক বছরে টেস্ট ক্রিকেটে এটি অরবিন্দ ডি সিলভা, শচীন টেন্ডুলকর, তিলকারতেœ দিলশান ও হাশিম আমলার সঙ্গে যৌথভাবে সর্বাধিক। সবমিলিয়ে এ বছর ৪২ ইনিংসে ১৯টি পঞ্চাশোর্ধ ইনিংস খেলেছেন চলতি বছর রান করার দিক থেকে সবার ওপরে থাকা উইলিয়ামসন। এক বছরে ৪৫ ইনিংসে ২০টি পঞ্চাশোর্ধ্ব ইনিংস খেলার রেকর্ড ইংল্যান্ডের ব্যাটসম্যান জো রুটের।

উইলিয়ামসন ফিরে যাওয়ার পরেও দুর্দান্ত ব্যাট করে সেঞ্চুরি আদায় করে নেন গাপটিল। অবশ্য সে জন্য ৪০ ইনিংস অপেক্ষা করতে হয়েছে তাকে। ২০১১ সালে জিম্বাবুইয়ে সফরে সর্বশেষ সেঞ্চুরি করেছিলেন তিনি (১০৯)। এর মধ্যে ৮ অর্ধশতক এবং ৬৪ ওয়ানডেতে ৭ সেঞ্চুরি করলেও টেস্ট শতক পাননি। ক্যারিয়ারের তৃতীয় শতক করার আগেই টেস্ট ক্রিকেটে দুই হাজার রানের মাইলফলক ছুঁয়ে ফেলেন তিনি। সেজন্য ৭০ ইনিংস খেলতে হয়েছে তার। গাপটিলের চেয়েও অবশ্য আরও ৫ কিউই ক্রিকেটার আছেন যারা তার চেয়েও বেশি ইনিংস খেলে এ মাইলফলক ছুঁয়েছিলেন। টেস্ট ক্রিকেটে নিউজিল্যান্ডের হয়ে ২ হাজার রান করা ২৬তম ক্রিকেটার গাপটিল। তিনি চতুর্থ উইকেটে অধিনায়ক ম্যাককুলামের সঙ্গে আরও ৮৯ রান যোগ করে দলকে ভাল অবস্থানে নিয়ে যান। ম্যাককুলাম মাত্র ৫৭ বলে ১৩ চার ও ১ ছক্কায় ৭৫ রান করে সাজঘরে ফেরেন। দিনের শেষ সেশনে জ্বলে ওঠেন লঙ্কান বোলাররা। একেবারে শেষদিকে আউট হয়ে যান গাপটিলও। তিনি ২৩৪ বলে ২১ চারে ১৫৬ রান করেছিলেন। শেষদিকে ডগ ব্রেসওয়েল ৩৯ বলে ৫ চারে ৩২ রান করে এখন পর্যন্ত অপরাজিত। ৮ উইকেটে ৪০৯ রান তুলে সন্তুষ্ট কিউইরা। লঙ্কানরা খুশি একদিনেই ৮ উইকেট নিতে পেরে।