২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মুন্সীগঞ্জে তিন বিপ্লবী স্মরণানুষ্ঠান

মুন্সীগঞ্জে তিন বিপ্লবী স্মরণানুষ্ঠান

স্টাফ রিপোর্টার, মুন্সীগঞ্জ ॥ ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের তিন বীর বিনয়, বাদল ও দিনেশ স্মরণে মুন্সীগঞ্জের মালপাড়ার জ্ঞানপীঠ গবেষণা কেন্দ্রে মঙ্গলবার আলোচনা সভা ও সঙ্গীত সন্ধ্যার আয়োজন করা হয়। এতে আলোচনা অনুষ্ঠানের পাশাপাশি একটি প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়। অগ্রসর বিক্রমপুরের টঙ্গীবাড়ি ও মুন্সীগঞ্জ কেন্দ্র আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশনের সভাপতি ড. নূহ্-উল আলম লেলিন। বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক মোঃ সাইফুল হাসান বাদল। জ্ঞানপীঠের নির্বাহী পরিচালক শিক্ষাবিদ অধ্যাপক সুখেন চন্দ্র ব্যানার্জীর সভাপতিত্বে আলোচনা করেন গবেষক ডা. আবদুল বারী, অধ্যাপক আবদুল আজিজ, ড. তপন বাগ্চী, উপাধ্যক্ষ মো. শাহজাহান মিয়া, মুন্সীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি মীর নাসিরউদ্দিন উজ্জ্বল, বিমল চন্দ্র পাল, আবু হানিফ প্রমুখ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন রামপাল কলেজের অধ্যক্ষ জাহাঙ্গীর হাসান ও সহকারী অধ্যাপক মনোয়ার হাসিনুল আলম। অনুষ্ঠানের শুরুতেই টঙ্গীবাড়ি কেন্দ্রের সদস্য প্রবীণ শিক্ষক আবদুল গনি তিন বিপ্লবীকে নিয়ে স্বরচিত সঙ্গীত পরিবেশন করেন। এছাড়া অনুষ্ঠানে টঙ্গীবাড়ি কেন্দ্র বিপ্লবীদের স্মরণে সঙ্গীত সন্ধ্যার আয়োজন করে।

প্রসঙ্গত, ১৯৩০ সালের ৮ ডিসেম্বর ব্রিটিশদের সচিবালয় কলকাতার রাইটার্স বিল্ডিং অপারেশন করেন বিক্রমপুর তথা মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ির উপজেলার এই তিন সন্তান। দিনটি স্মরণে আয়োজনটি করা হয়। রাউৎভোগ গ্রামের সন্তান মিডফোর্ড মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ছাত্র বিনয় কৃষ্ণ বসু (২২), যশলং গ্রামের সন্তান ছাত্র দীনেশ গুপ্ত (২০) ও পূর্ব শিমুলিয়া গ্রামের সন্তান ছাত্র বাদাল গুপ্ত (১৮) ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন। এরপরই ব্রিটিশদের পতনের পথ রচিত হয়। ৮৫ বছর পর দিনটির স্মরণে মুন্সীগঞ্জের এই স্মরণ সভা ভিন্ন মাত্রাযুক্ত করে। আলোচকরা এই তিন বীরের নামে ঢাকা-মুক্তারপুর-হাসাইল সড়কের নাম করণ এবং মেডিক্যাল কলেজ প্রতিষ্ঠার দাবি জানান। বিনয়, বাদল ও দীনেশের দেশপ্রেম এবং তাদের অবদান নতুন প্রজন্মের মাঝে তুলে ধরার ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়। দাবি ওঠে তাঁদের পৈত্রিক বাড়িগুলো উদ্ধার করে সেখানে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণের।