২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

প্লাতিনির নিষেধাজ্ঞা বহাল

  • ইউরোর প্রাইজমানি বাড়ল

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ মিশেল প্লাতিনির বিরুদ্ধে ফিফা এথিকস কমিটির আরোপিত ৯০ দিনের নিষেধাজ্ঞাকে সমর্থন করেছে কোর্ট অব আর্বিট্রেশন ফর স্পোর্টস (সিএএস)। বিশ্বের সর্বোচ্চ ক্রীড়া আদালতের এই রায় ফরাসী কিংবদন্তি ফুটবল তারকার ফিফা সভাপতি পদে নির্বাচনে অংশগ্রহণের স্বপ্নকে ধুলোয় মিশিয়ে দিয়েছে।

আদালতের এক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘সিএএস প্যানেল প্লাতিনির বিরুদ্ধে আরোপিত ৯০ দিনের এই নিষেধাজ্ঞা যে অযৌক্তিক নয় সে বিষয়ে নিশ্চিত।’ সুইজারল্যান্ডের অপরাধ তদন্ত বিভাগের তদন্তে নাম অন্তর্ভুক্ত হবার আগে পর্যন্ত ইউরোপীয় ফুটবলের (উয়েফা) প্রধান এবং ফিফার সহ-সভাপতি প্লাতিনি ছিলেন বিশ্বফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থার সভাপতি প্রার্থীদের মধ্যে সবচেয়ে ফেবারিট। সুইচ তদন্তের প্রেক্ষিতে সভাপতি সেপ ব্লাটার ও প্লাতিনিকে ৯০ দিনের জন্য নিষিদ্ধ করে ফিফা।

সিএএস আরাও জানিয়েছে, নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের আদেশ দেয়ার পরও ফিফা সভাপতি নির্বাচনের প্রতিদ্বন্দ্বিতায় প্লাতিনিকে অংশ নেয়ার সুযোগ এথিকস কমিটি দেবে এমন কোন নিশ্চয়তা নেই। তবে ৯০ দিনের নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ শেষ হবার পর প্লাতিনির ওপর আর কোন নিষেধাজ্ঞা আরোপ না করার আদেশ দিয়েছে সিএএস। যদি সেটি করা হয় তবে সেটি প্লাতিনির অধিকারের প্রতি অবিচার করা হবে বলে আদেশে উল্লেখ করা হয়েছে।

পারিশ্রমিক বাবদ ফিফা সভাপতি ব্লাটারের কাছ থেকে ২ মিলিয়ন মার্কিন ডলারেরও বেশি অর্থ গ্রহণের দায়ে প্লাতিনির বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করে সুইচ অপরাধ তদন্ত বিভাগ। ফিফা এথিকস কমিটি জুভেন্টাসের সাবেক এই তারকা ফুটবলারকে আজীবনের জন্য নিষিদ্ধ করার সুপারিশ করেছেন। চলতি বছরের শেষ দিকে এ বিষয়ে ফুটবলের নিজস্ব আদালত থেকে একটি রুলিং আসতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। সেটি যদি হয় তাহলে ফুটবলের নির্বাহী হিসেবে প্লাতিনির ক্যারিয়ার একেবারেই ধ্বংস হয়ে যাবে। আগামী ৫ জানুয়ারি শেষ হবে প্লাতিনির ৯০ দিনের অন্তবর্তীকালীন নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ।

এদিকে আগামী বছর ফ্রান্সে অনুষ্ঠিতব্য ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপের প্রাইজমানি বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে ইউরোপিয়ান ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা উয়েফা। প্রথমবারের মত ২৪টি দল নিয়ে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ইউরোপিয়ান ফুটবলের সর্বোচ্চ আসর। শনিবার ২০১৬ ইউরোর ড্র অনুষ্ঠিত হওয়ার আগেই উয়েফা প্রতিযোগিতার প্রাইজমানি বাড়ানোর ঘোষণা দিল। ২০১২ সালে পোল্যান্ড ও ইউক্রেনে যৌথভাবে আয়োজিত ১৬ দলের ইউরো চ্যাম্পিয়শিপে যেখানে প্রাইজমানি ছিল ১৯৬ মিলিয়ন ইউরো সেখানে তা বাড়িয়ে ৩০১ মিলিয়ন ইউরো (২১৭.৫ মিলিয়ন পাউন্ড, ৩৩১ মিলিয়ন মার্কিন ডলার) করা হয়েছে। এর মধ্যে অংশগ্রহণকারী প্রতিটি দলকে দেয়া হবে আট মিলিয়ন ইউরো। প্রতিটি ম্যাচে জয়ের জন্য পারফর্মেন্স বোনাস হিসেবে রয়েছে অতিরিক্ত এক মিলিয়ন ইউরো, গ্রুপ পর্বে প্রতিটি ড্রয়ের জন্য বরাদ্দ রয়েছে ৫ লাখ ইউরো। নকআউট পর্বে পৌঁছানোর জন্য প্রতিটি দল পাবে দেড় মিলিয়ন ইউরো, কোয়ার্টার ফাইনালের জন্য আড়াই মিলিয়ন ইউরো, আর সেমিফাইনালে পৌঁছাতে পারলে অতিরিক্ত চার মিলিয়ন ইউরো। ১০ জুলাই স্টাডে দি ফ্রান্সে অনুষ্ঠিতব্য ফাইনালে বিজয়ী দল পাবে আট মিলিয়ন ইউরো ও রানার্সআপ দল পাবে পাঁচ মিলিয়ন ইউরো।