২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সাকিবের ভাবনায় এখন পরের ম্যাচ

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ কোয়ালিফায়ার ম্যাচ খেলার সুযোগ পেলে যে কোন দলের জন্যই ভাল। কারণ ফাইনালে যাওয়ার আরেকটি সুযোগ থেকে যায়। আর সে জন্যই প্রথম কোয়ালিফায়ারে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বিরুদ্ধে হেরে গেলেও তেমন দুশ্চিন্তা নেই রংপুর রাইডার্সের অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের। বরং পরাজয় ভুলে আজ দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারকে ঘিরেই যত চিন্তা তার। সেভাবেই পরিকল্পনা শুরু করে দিয়েছেন। শনিবার ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে এমনটাই জানালেন সাকিব। হারের পেছনে দলের বাজে বোলিংকেই দুষছেন তিনি। পরে ব্যাটসম্যানরাও জ্বলে উঠতে পারেননি। সাকিবের দাবি টি২০ ক্রিকেটে যে কোন দলের জন্য এমন বাজে দিন যাওয়া স্বাভাবিক। তিনি দাবি করলেন পরের ম্যাচেই হয়তো দুর্দান্ত কিছু করবে রংপুর রাইডার্স। আর সেখানেই টি২০ ক্রিকেটের মজা।

মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে শনিবার প্রথম কোয়ালিফায়ার ম্যাচে স্পিনারদের জন্য সহায়ক উইকেট ছিল। কিন্তু রংপুরের স্পিনাররা ঠিক লাইনে বল ফেলতে পারেনি। আর সে কারণে অনেক রান করতে পেরেছে ভিক্টোরিয়ান্স। এ বিষয়ে সাকিব বলেন, ‘আসলে স্পিনারদের জন্য সহায়ক ছিল। আমার কাছে সবচেয়ে বেশি যে জিনিসটা মনে হচ্ছে ওরা একটু ভাগ্যবান ছিল। যেভাবে ইচ্ছা ব্যাট চালিয়েছে। যেটা ব্যাটে লাগে নাই সেটা মিস করে গেছে। যেটা ব্যাটে লেগেছে সেটা গ্যাপে পড়েছে অথবা বাউন্ডারি হয়ে গেছে। শুরুতেই ওরা ভাল একটা ছন্দ পেয়েছে। তারপর যারা আসছে তারা ধারা বজায় রাখতে পেরেছে। অন্যদিকে আমরা সঠিক বোলিং করতে পারিনি। এই উইকেটে যত ভাল বোলিং করা উচিত ছিল স্পিনারদের সেটা হয়নি। আমরা ২০-২২ রান বেশি দিয়েছি। এটা ১৪০-৩৫ এর উইকেট। ১৬০-এর অবশ্যই না।’ সাকিবের দল বোলিং খারাপ করার পরে ব্যাটিংয়েও ব্যর্থ হয়েছে। দলগতভাবেই খারাপ নৈপুণ্যের কারণে হারতে হয়েছে রাইডার্সকে। এ বিষয়ে সাকিব বলেন, ‘শেষ তিন ম্যাচ আমরা ভাল ক্রিকেট খেলেছি। একটা বাজে দিন যেতেই পারে। টি২০ খেলাটাই এ রকম। কালকে আরেকটা সুযোগ আছে। আমাদের নিশ্চিত করতে হবে যে আমরা যেন কালকের জন্য প্রস্তুত থাকি।’ টি২০ ক্রিকেটে অনেক কিছুই ঘটতে পারে। খুব ভাল দল একটা দিন অনেক বাজে নৈপুণ্য দেখিয়ে হারতে পারে এবং অনেক খারাপ খেলতে থাকা দলও হঠাৎ দারুণ কিছু করতে পারে। এ বিষয়ে সাকিব বলেন, ‘আমরা এমন না যে খুব বাজেভাবে হারছি, ৯-১০ উইকেটে। কিংবা এক শ’ রানের নিচে অলআউট হয়ে গেছি। এটা আসলে টি২০’র মজা। আজকে এ রকম পারফর্ম করছেন কাল এসে দেখবেন ভিন্ন একটা দল। মজার বিষয় হচ্ছে ব্যাক টু ব্যাক যেহেতু ম্যাচ থাকে এত কিছু চিন্তার সময় থাকে না। পরের ম্যাচ নিয়ে সবাই মনোযোগী থাকে।’ এবার বিপিএলে বল হাতে আলো ছড়িয়েছেন তরুণ বাঁহাতি পেসার আবু হায়দার রনি। সাকিবকে ছাড়িয়ে উইকেট শিকারের তালিকায় শীর্ষেও উঠে গেছেন ১৯ বছর বয়সী রনি। এ বিষয়ে সাকিব বলেন, ‘প্রথম কথা হচ্ছে আমি আসলে এক-দেড় বছর দেখার আগে মন্তব্য করতে চাই না। কিন্তু সত্যি বলতে এই টুর্নামেন্টে ও যেভাবে নিজেকে প্রস্তুত করছে অবশ্যই তাকে নিয়ে আমরা ভবিষ্যত চিন্তা করতে পারি। বিশেষ করে বাংলাদেশ দলের জন্য। যেভাবে ও কঠিন পরিস্থিতে বোলিং করেছে... বিশেষ করে বেশিরভাগ সময়ে বোলিংয়ে এসেছে পাওয়ার প্লে কিংবা শেষ দিকে। এটা তরুণ বোলার কিংবা ব্যাটসম্যানদের অনুপ্রাণিত করবে।’