১৯ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

লিবিয়ায় আইএস নির্মূলে উদ্যোগ নেবে ব্রিটেন

লিবিয়ায় ইসলামিক স্টেটের (আইএস) বিরুদ্ধে সামরিক পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারে ব্রিটেন। আইএস জঙ্গীরা ইউরোপে হামলা চালানোর লক্ষ্যে ভূমধ্যসাগরের উপকূল রেখায় তাদের নতুন ঘাঁটিকে ব্যবহার করবে- এ আশঙ্কা থেকেই সামরিক পদক্ষেপ গ্রহণের সম্ভাবনা রয়েছে বলে বলেছে সরকারী সূত্র। খবর টেলিগ্রাফ অনলাইনের।

ব্রিটিশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মিনিস্টাররা বলেছেন, তারা লিবিয়ায় আইএস ও অন্য চরমপন্থী গ্রুপগুলোর দ্রুত উত্থানে অত্যন্ত উদ্বিগ্ন এবং হুমকি মোকাবেলায় পরিকল্পনা গ্রহণের কথা বিবেচনা করছেন তারা। সরকারী সূত্র বলেছে, লিবিয়ার আইএসকে পরাজিত করার লক্ষ্যে ইউরোপীয় সহযোগীদের পাশাপাশি সামরিক সমর্থন যোগানোর উদ্যোগ নিচ্ছেন মিনিস্টাররা। ফরাসী প্রধানমন্ত্রী ম্যানুয়েল ভ্যালস শুক্রবার এ আইএস জঙ্গীদের নির্মূলের জন্য আন্তর্জাতিক উদ্যোগের আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, আমরা যুদ্ধে লিপ্ত। আইএস আমাদের শত্রু। সিরিয়া ও ইরাকে তাদের বিরুদ্ধে অবশ্য লড়ব, তাদের ধ্বংস করব আমরা এবং শীঘ্রই লিবিয়ায়ও তাদের বিরুদ্ধে এ উদ্যোগ নেব। ফ্রান্স লিবিয়ায় আইএস জঙ্গীদের হুমকির মাত্রা নিরূপণের জন্য লিবিয়ায় গোয়েন্দা বিমান পাঠাচ্ছে। ২০১১ সালে পাশ্চাত্যের সামরিক হস্তক্ষেপে স্বৈরশাসক কর্নেল মুয়াম্মার গাদ্দাফির পতনের পর দেশটিতে গোলযোগ শুরু হয়। জাতিসংঘ মনে করে, দুই থেকে তিন হাজার যোদ্ধা লিবিয়ায় লড়াইয়ে জড়িত রয়েছে এবং আইএস এখন লিবিয়ার উত্তারাঞ্চলীয় শহর ফিতের কাছাকাছি ভূমধ্যসাগরের উপকূল রেখার একটা এলাকার নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। জিহাদীরা ইউরোপ সীমান্তবর্তী এ এলাকা প্রশিক্ষণ শিবির হিসেবে ব্যবহার করছে। এটা ঘাঁটি এবং সাগরের পাশ্চাত্যের জাহাজগুলোকে অবাধে হামলার লক্ষবস্তুতে পরিণত করছে। সশস্ত্রবাহিনী মন্ত্রণালয়ের মিনিস্টার পেনি মরডন্ট সম্প্রতি পার্লামেন্ট সদস্যদের বলেন, লিবিয়ায় আইএসের শাখা গ্রুপসহ চরমপন্থী গ্রুপগুলোর ক্রমবর্ধমান হুমকি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছে সরকার।