১১ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

যুক্তরাষ্ট্রে নারীরা চরম বৈষম্যের শিকার ॥ জাতিসংঘযুক্তরাষ্ট্রে নারীরা চরম বৈষম্যের শিকার ॥ জাতিসংঘ

বিশ্বে মানবাধিকার লঙ্ঘনে যুক্তরাষ্ট্র বিভিন্ন সময় উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা প্রকাশ করলেও দেশটির নারীরা কর্মস্থল, স্বাস্থ্যসেবা থেকে কারাগার- সবক্ষেত্রেই চরম বৈষম্যের শিকার হচ্ছেন বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ। শুক্রবার বিশ্বসংস্থার মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনারের এক বিবৃতিতে বলা হয়, নারীর সমতা প্রতিষ্ঠায় ওবামা প্রশাসন প্রশংসিত হলেও যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতিতে ‘প্রবল মেরুকরণ’র পরিপ্রেক্ষিতে নারী অধিকারের বিষয়টি অবজ্ঞার মধ্যেই রয়ে গেছে। যুক্তরাষ্ট্রের নারীরা সমঅধিকারের জন্য এখনও লড়াই করে যাচ্ছেন বলে এতে বলা হয়েছে। খবর ওয়েবসাইটের।

জাতিসংঘের সিডওর একটি বিশেষজ্ঞ দল গত ৩০ নবেম্বর থেকে ১১ ডিসেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের কয়েকটি এলাকায় নারীদের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে। দলটির সদস্যরা কেন্দ্রীয়, অঙ্গরাজ্য এবং স্থানীয় প্রশাসন, নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি, মানবাধিকার ও নারী অধিকার সংস্থার প্রতিনিধি এবং সাধারণ নাগরিকদের সঙ্গে কথা বলার পাশাপাশি কর্মস্থলে নারীদের হাল-হকিকত সম্পর্কে ধারণা নেন। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, বিশেষজ্ঞ দলটির পর্যবেক্ষণে অভিবাসী নারী শ্রমিক, আফ্রিকান-আমেরিকান, স্প্যানিশ ও স্থানীয় নারীরা বেশি বৈষম্যের শিকার হচ্ছেন। শারীরিকভাবে অচল নারীদের অবস্থা আরও সঙ্গীন। যুক্তরাষ্ট্রে ঢোকার সময় গ্রেফতার হওয়া নারীদের অবস্থাও করুণ। বিশেষজ্ঞ দলের পর্যবেক্ষণে উঠে এসেছে, কর্মস্থলে পুরুষ সহকর্মীদের চেয়ে কম বেতন পাওয়া ছাড়াও যুক্তরাষ্ট্রে অনেক নারীই মাতৃত্বকালীন ছুটির সময় বেতনভাতা পাচ্ছেন না।

বিশ্বে মানবাধিকার লঙ্ঘনে যুক্তরাষ্ট্র বিভিন্ন সময় উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা প্রকাশ করলেও দেশটির নারীরা কর্মস্থল, স্বাস্থ্যসেবা থেকে কারাগার- সবক্ষেত্রেই চরম বৈষম্যের শিকার হচ্ছেন বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ। শুক্রবার বিশ্বসংস্থার মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনারের এক বিবৃতিতে বলা হয়, নারীর সমতা প্রতিষ্ঠায় ওবামা প্রশাসন প্রশংসিত হলেও যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতিতে ‘প্রবল মেরুকরণ’র পরিপ্রেক্ষিতে নারী অধিকারের বিষয়টি অবজ্ঞার মধ্যেই রয়ে গেছে। যুক্তরাষ্ট্রের নারীরা সমঅধিকারের জন্য এখনও লড়াই করে যাচ্ছেন বলে এতে বলা হয়েছে। খবর ওয়েবসাইটের।

জাতিসংঘের সিডওর একটি বিশেষজ্ঞ দল গত ৩০ নবেম্বর থেকে ১১ ডিসেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের কয়েকটি এলাকায় নারীদের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে। দলটির সদস্যরা কেন্দ্রীয়, অঙ্গরাজ্য এবং স্থানীয় প্রশাসন, নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি, মানবাধিকার ও নারী অধিকার সংস্থার প্রতিনিধি এবং সাধারণ নাগরিকদের সঙ্গে কথা বলার পাশাপাশি কর্মস্থলে নারীদের হাল-হকিকত সম্পর্কে ধারণা নেন। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, বিশেষজ্ঞ দলটির পর্যবেক্ষণে অভিবাসী নারী শ্রমিক, আফ্রিকান-আমেরিকান, স্প্যানিশ ও স্থানীয় নারীরা বেশি বৈষম্যের শিকার হচ্ছেন। শারীরিকভাবে অচল নারীদের অবস্থা আরও সঙ্গীন। যুক্তরাষ্ট্রে ঢোকার সময় গ্রেফতার হওয়া নারীদের অবস্থাও করুণ। বিশেষজ্ঞ দলের পর্যবেক্ষণে উঠে এসেছে, কর্মস্থলে পুরুষ সহকর্মীদের চেয়ে কম বেতন পাওয়া ছাড়াও যুক্তরাষ্ট্রে অনেক নারীই মাতৃত্বকালীন ছুটির সময় বেতনভাতা পাচ্ছেন না।