২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

৩৫ বছর আইনী জটিলতায় পলাশবাড়ী পৌরসভা

নিজস্ব সংবাদদাতা, গাইবান্ধা, ১২ ডিসেম্বর ॥ অবিশ্বাস্য হলেও সত্য কতিপয় স্বার্থান্বেষী জনপ্রতিনিধিদের সুপরিকল্পিত কারসাজিতে আইনী জটিলতায় গত ৩৫ বছরেও জনগুরুত্বপূর্ণ পলাশবাড়ী পৌরসভার সিদ্ধান্ত বাস্তবায়িত হচ্ছে না। এ কারণে এক দফায় ৫ বছরের নির্বাচিত চেয়ারম্যানরা ১৩ বছর ধরে ক্ষমতায়। ফলে ২০১১-১২ অর্থবছরে পৌরসভার অবকাঠামো নির্মাণে সরকারের বরাদ্দপ্রাপ্ত ৩৯ লাখ টাকা অবেশেষে ফেরত গেছে। নির্বাচন না হওয়ায় ওই ৩ ইউনিয়নের নাগরিকরা কাক্সিক্ষত সুযোগ-সুবিধাসহ ভোটাররা গণতান্ত্রিক অধিকার থেকে হচ্ছে বঞ্চিত। জানা গেছে, সুপ্রীমকোর্টে জনৈক শফিকুলের দায়েরকৃত রিট দীর্ঘ ২০ বছর পর খারিজ হলেও অসৎ উদ্দেশে পৌরসভা বাস্তবায়নে প্রতিবন্ধকতায় আবারও রিট পিটিশন দায়ের করা হয়। অথচ ১৯৮১ সালে পলাশবাড়ীকে আনুষ্ঠানিক পৌরসভা ঘোষণা করা হয়। ফলে অতিদ্রুত পৌরসভা বাস্তবায়নে অবকাঠামো নির্মাণে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় জেলা প্রশাসনকে নির্দেশও দেন সরকার।

কিন্তু পৌরসভা বাস্তবায়নে ৩নং পলাশবাড়ী ইউনিয়নের মহিলা ইউপি সদস্যের স্বামী সদরের উদয়সাগর গ্রামের মৃত মোহাম্মাদ আলীর পুত্র শফিকুল ইসলাম নবসৃষ্ট পৌরসভা বাতিল আদেশ চেয়ে সুপ্রীমকোর্ট বিভাগে রিট দায়ের করেন। রিট শুনানির পর মহামান্য আদালতের খারিজের বিষয়টি গাইবান্ধার জেলা প্রশাসককে জানানো হয়। পরবর্তীতে পলাশবাড়ী পৌরসভা সংক্রান্ত সুপ্রীমকোর্টের আপীল বিভাগের পিটিশন ফর লিভ টু-আপীল দায়ের করা হয়। বর্তমানে এ মামলার সকল কার্যক্রম স্থগিত রয়েছে। এদিকে গত ২০১৪ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর চলমান লিভ টু-আপীল মোকর্দ্দমা খারিজ হয়। উপজেলা নির্বাহী অফিসার সূত্র জানায়, মামলার বাদী শফিকুল ইসলাম কর্তৃক দায়েরকৃত রিট মামলাটি খারিজের বিরুদ্ধে পুনরায় সিভিল মিস পিটিশন আপীল শুনানি আবেদন করেছেন।