২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পড়তে পারেন এসিসিএ

সম্ভাবনাময় একটি দেশ বাংলাদেশ। এদেশের অধিকাংশের বয়স পঁয়ত্রিশের নিচে। পুঁজির সঠিক ব্যবহার হলে এখানে উন্নয়ন আবশ্যকীয়। তবে দক্ষ জনশক্তি গড়ে তোলা অথবা মানুষের পুঁজির সঠিক ব্যবহার সম্পর্কে সঠিক জ্ঞান অর্জন কিংবা শিক্ষা অর্জনের জন্য প্রয়োজন বিশেষায়িত জ্ঞান।

অর্থনীতির বিশ্বমান উপযোগিতা এবং দক্ষ জনশক্তি গড়ে তোলার লক্ষ্যে কাজ করছে এ্যাসোসিয়েটস অব চার্টার্ড সারটিফাইড এ্যাকাউন্ট্যান্ট গোবাল (অঈঈঅ এষড়নধষ) এর অনুমোদিত প্রশিক্ষণ সহযোগী প্রতিষ্ঠান সিপিএ (চার্টার্ড প্রফেশনাল একাডেমি) অন্যতম।

এসিসিএ কোর্সটি সিএ, সিএমএ প্রভৃতি কোর্সের সমমানের। এটি জাতিসংঘ কর্তৃক স্বীকৃত এবং ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অব এ্যাকাউন্ট্যান্টসের সদস্য। এই কোর্সের শিক্ষার্থী এবং সদস্যদের ৯৫টি এসিসিএ নেটওয়ার্কের মাধ্যমে ১৭০টি দেশে ফিন্যান্স এবং এ্যাকাউন্টিং বিষয়ে ক্যারিয়ার গঠনে সহায়তা করা হয়। এটি একটি আন্তর্জাতিক ডিগ্রী, যে কারণে পুরো বিশ্বজুড়েই শিক্ষার্থীর কর্মক্ষেত্র বিদ্যমান। সিএ এবং এসিসিএ-এর মধ্যে মূল পার্থক্য হলো-সিএ স্থানীয় কারিকুলাম আর এসিসিএ হচ্ছে ব্রিটিশ কারিকুলাম। এসিসিএ একমাত্র কোর্স, যা যে কোন পর্যায়ে ইংল্যান্ডসহ ১৭৩টি দেশে ক্রেডিট ট্রান্সফার করা যায়। বিশ্বজুড়ে এসিসিএ-এর রয়েছে সাত হাজারের অধিক অনুমোদিত চাকুরিদাতা প্রতিষ্ঠান। যোগাযোগ: বাড়ি ৭৩, ধানমন্ডি ৮/১-এ)। ফোন: ০১৮৪১৪৪৮৮৭৭।

সিপিএ-এর বর্তমানে নিবন্ধিত শিক্ষার্থীর সংখ্যা দুই শতাধিক। হাইলি কোয়ালিফাইড শিক্ষক এবং পড়াশোনার যুগোপযোগী পরিবেশ প্রতিষ্ঠানটির অনন্য বৈশিষ্ট। সিপিএ শিক্ষার্থী সৃজনের মতে, এখানকার শিক্ষকরা সবাই অনেক বেশি ফ্লেক্সিবল, প্রফেসনাল এটিচুইড নয় বরং শিক্ষার্থীদের ভালভাবে পেপার ডেলিভারি করার ব্যাপারটাই তাদের কাছে প্রাধান্য পায়। তাছাড়া শিক্ষকরা ইউনিক লেকচার নোট দিয়ে থাকেন, যা খুবই সহজবোধ্য। সিপিএ পরিচালক হামিদুর রহমান মনে করেন গতানুগতিক শিক্ষা থেকে অনেক বেশি জব ওরিয়েন্টেড এই চার্টার্ড ডিগ্রী। ভাল করতে হলে মনোযোগে পড়াশোনা আবশ্যক। তিনি বলেন ‘আমরা চেষ্টা করি প্রতিটি শিক্ষার্থী ভাল করুক, অধিকাংশ শিক্ষকই ৭-৮ বছরের অভিজ্ঞ, নিজেদের সাধ্যমতো সব ফ্যাকাল্টি মেম্বারই সর্বোচ্চ দিয়ে শিক্ষার্থীদের শেখাতে চেষ্টা করেন। তাছাড়া আমরা শিক্ষার্থীদের চৎধপঃরপধষ বীঢ়বৎরবহপব ৎবয়ঁরৎবসবহঃ (চঊজ) এবং জব পেসমেন্ট সুবিধা দিচ্ছি, পাশাপাশি ক্যারিয়ার ওরিয়েন্টেড কর্মশালা ইত্যাদি তাদের সবসময় অন্যদের তুলনায় এ্যাডভান্স স্টেজে রাখছে।’ তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশে অন্যান্য চার্টার্ড একাডেমিগুলো বিভিন্ন ডিগ্রী পড়ালেও সিপিএ শুধুমাত্র অঈঈঅ নিয়েই কাজ করছে।

ক্যাম্পাস প্রতিবেদক