১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ঢাবি শিক্ষক সমিতি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থকদের নিরঙ্কুশ জয়

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার ॥ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) শিক্ষক সমিতির নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থক শিক্ষকদের প্যানেল নীলদল নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছে। সমিতির ২০১৬ সালের কার্যকরী পরিষদের মোট ১৫ পদের মধ্যে সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, কোষাধ্যক্ষপদসহ মোট ১৪ পদেই নীলদলের শিক্ষক প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন। অপরদিকে নির্বাচনে অংশ নেয়া বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত সাদা দলের প্রার্থীদের মধ্যে মাত্র একজন সদস্যপদে নির্বাচিত হয়েছেন। তবে প্রগতিশীল শিক্ষকদের সংগঠন গোলাপি দল থেকে একটি পদও পায়নি। রবিবার বিকেল পাঁচটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাব ভবনে ভোট গণনা শেষে এ ফল ঘোষণা করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার অধ্যাপক শরিফ উল্লাহ ভূঁইয়া। এদিন সকাল দশটা থেকে দুপুর দুইটা পর্যন্ত ক্লাব ভেন্যুতে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়। ভোট প্রদান করেন মোট এক হাজার চার শ’ ৬৭। সমিতির নির্বাচনে মাত্র একটি পদ পেলেও ফল মেনে নিয়েছেন বিএনপি-

জামায়াতপন্থী সাদা দলের শিক্ষকরা। উল্লেখ্য, গত বছর ১৫ পদের সবটিতেই নীলদলের শিক্ষকরা বিজয়ী হয়েছিলেন।

নির্বাচনের ফল অনুযায়ী, সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে পুনর্নির্বাচিত হয়েছেন অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ ও অধ্যাপক এএসএম মাকসুদ কামাল। এছাড়া সহ-সভাপতি পদে উদ্ভিদ বিজ্ঞানের অধ্যাপক মোঃ ইমদাদুল হক, কোষাধ্যক্ষ পদে বাণিজ্য অনুষদের ডিন অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলাম, যুগ্ম সম্পাদক পদে ইংরেজী বিভাগের সহকারী অধ্যাপক নীলিমা আকতার নির্বাচিত হয়েছেন।

কার্যকরী সদস্য পদে ভোটের ক্রমানুসারে বিজয়ীরা হলেন রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক ড. মোঃ আফতাব আলী শেখ, টিভি ও ফিল্ম স্টাডিজের চেয়ারম্যান অধ্যাপক এজেএম শফিউল আলম ভুঁইয়া, কলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মোঃ আখতারুজ্জামান, ক্রিমিনোলজির চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মোঃ জিয়াউর রহমান, আন্তর্জাতিক হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. মোঃ লুৎফর রহমান, অনুজীব বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. সাবিতা রিজওয়ানা রহমান, মুহসীন হলের প্রভোস্ট ড. মোঃ নিজামুল হক ভুঁইয়া, কবি জসীমউদ্দীন হলের প্রভোস্ট ড. মোঃ রহমত উল্লাহ, গণিত বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. চন্দ্রনাথ পোদ্দার এবং সিএসই বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক লাফিফা জামাল। বিজয়ী সদস্যদের মধ্যে একমাত্র লুৎফর রহমানই সাদা দলের। বাকি সবাই নীলদলের। পুনর্নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক এএসএম মাকসুদ কামাল জনকণ্ঠকে বলেন, গত নির্বাচনের সময় আমরা যেসব প্রতিশ্রুতি ও ইশতেহার নিয়ে ক্ষমতায় এসেছিলাম, সেসব প্রতিশ্রুতি এবং ইশতেহার বাস্তবায়ন করতে পারায় শিক্ষকরা আমাদের আবারও ভোট দিয়েছেন। বর্তমানে অবকাঠামোসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের যে সার্বিক উন্নয়নের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে তা সুরক্ষা করতে চাই।