১৫ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

নেত্রকোনার ৪৭ নারী কাউন্সিলর প্রার্থীর মধ্যে ২১ জনই স্বশিক্ষিত

নিজম্ব সংবাদদাতা, নেত্রকোনা ॥ পৌরসভার সংরক্ষিত নারী আসনের কাউন্সিলর পদে উচ্চ শিক্ষিত ও রাজনৈতিকভাবে প্রতিষ্ঠিত নারীরা তেমন অংশগ্রহণ করছেন না। দেখা যাচ্ছে, বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই প্রার্থী হচ্ছেন স্বশিক্ষিত ও অর্ধ শিক্ষিত নারীরা। এ নির্বাচন পদ্ধতি চালুর পর ১৮ বছরেও অবস্থার তেমন পরিবর্তন হয়নি বলে দাবি করছেন সংশ্লিষ্টরা। যদিও স্থানীয় নির্বাচনে নারীদের অংশগ্রহণের বিষয়টিকে উন্নয়ন ও ক্ষমতায়নের একটি গুরুত্বপূর্ণ ধাপ বলে মনে করছেন উন্নয়নবিদ ও স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞরা।

জানা গেছে, চলতি পৌরসভা নির্বাচনে নেত্রকোনার পাঁচটি পৌরসভার ১৫টি সংরক্ষিত নারী আসনের কাউন্সিলর পদে প্রার্থী হয়েছেন মাত্র ৪৭জন নারী। এই প্রার্থীদের হলফনামা বিশ্লেষণ করে দেখা গেছেÑ তাদের মধ্যে ২১ জনই ‘স্বশিক্ষিত’ বা ‘সাক্ষরজ্ঞান সম্পন্ন’। অর্থাৎ তাদের কোন একাডেমিক সার্টিফিকেট নেই। আর শিক্ষিত প্রার্থীদের মধ্যে ¯œাতক ডিগ্রিধারী (বিএ পাস) প্রার্থী আছেন মাত্র একজন। তিনি একজন আদিবাসী নারী। এছাড়া এইচএসসি পাশ প্রার্থী তিনজন। এসএসসি পাশ মাত্র দুই জন। বাকি সবার সর্ব্বোচ্চ লেখাপড়া ৫ম থেকে ৯ম শ্রেণি পর্যন্ত।

নেত্রকোনা সদর উপজেলার মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান তুহিন আক্তার মনে করেন, স্থানীয় সরকারে নারী প্রতিনিধিদের কাজের পরিধি একেবারেই সীমিত। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায়, তিনটি ওয়ার্ড নিয়ে নির্বাচিত হওয়া সত্ত্বেও তাদের কোনঠাসা করে রাখা হয়। ফলে জনগণের কাক্সিক্ষত সেবা দিতে না পেরে আরও অবমূল্যায়নের শিকার হয়। এসব কারণে উচ্চ শিক্ষিত ও প্রতিষ্ঠিত নারীরা নির্বাচনে এগিয়ে আসতে চান না। তবে পাশাপাশি নারী শিক্ষার স্বল্প হারও অনেকটা দায়ী।