২১ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

উটের মুখে চুমু দেয়ায়

উটের মুখে চুমু দেয়ায়

রক্ষণশীল সৌদি আরব বলে কথা। শখ করে পোষা উটের মুখে চুমু দেয়ায় চড়া মূল্য দিতে হচ্ছে এক নববধূকে। ব্যভিচারী আখ্যা দিয়ে তাকে বাড়ি থেকে বের করে দেয়া হয়েছে। গালফ নিউজের খবরে বলা হয়েছে, পোষা উট শাবককে আদর করে চুমু খেয়েছিলেন সৌদি আরবের এক নববিবাহিত দম্পতি। মোবাইলে সেই ছবি তুলে রেখেছিল মেয়েটি। কিন্তু ভালবাসায় মশগুল ওই দম্পতি বোঝেনি এই চুমুর এত মূল্য হতে পারে।

ঘটনার কিছুদিন পর ছেলের মোবাইলে উটশাবককে চুমু খাওয়ার ছবিটি দেখেন মা। এটি দেখেই আঁতকে উঠেন ওই নারী। বলেন, উট শাবককে চুমু খেয়ে সামাজিক ও ধর্মীয় নীতি লঙ্ঘন করেছে বৌমা। তাই এই স্ত্রীকে তালাক দিতে হবে। ছেলের ওপর ক্রমাগত চাপ দিতে থাকেন তিনি। এরপর মায়ের ক্রমাগত চাপের কাছে নতিস্বীকার করে বউকে বাপের বাড়িতে পাঠিয়ে দেন এই মা ভক্ত ছেলে। ছেলেটি আবার তার স্ত্রীকেও প্রচ- ভালবাসে। বউকে ফিরিয়ে আনতে মায়ের কাছে আর্জি জানান। তখনও মায়ের একই উত্তর। এই ব্যভিচার বউকে বাড়িতে আনা যাবে না। তারপর ছেলের পীড়াপিড়িতে মায়ের খানিকটা মন গলে। তিনি বলেন, আমি যতদিন বেচে আছি ততদিন এই বউ বাপের বাড়িতেই থাকবে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এই নববধূ বলেন, আমি আমার স্বামীর সঙ্গে থাকতে চাই। আমি মূলত শখের বশে উট শাবকের মুখে চুমু দিয়েছি। এ সময় আমার স্বামীও উপস্থিত ছিল। আর আমার মনে হচ্ছে স্বামীর সঙ্গে এভাবে আলাদা থাকায় আমি সন্তান নিতে পারব না। এই সমস্যার সমাধানে আদালত ছাড়া এখন আমার সামনে আর কোন পথ খোলা নেই।