২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আইনের দীর্ঘসূত্রীতাই নারী নির্যাতন বন্ধের পথে প্রধান অন্তরায়

অনলাইন রিপোর্টার ॥ বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের সভাপতি আয়েশা খানম বলেছেন, নারীরা যদি অধিকার থেকেই বঞ্চিত হয় সেখানে সম্মানের বিষয়টি কতটুকু গুরূত্বপূর্ণ তা আমাদের ভেবে দেখতে হবে। আইনের দীর্ঘসূত্রীতাই নারী নির্যাতন বন্ধ না হওয়ার প্রধান কারণ। এই কারনে একজন ভিকটিম তার মনোবল হারিয়ে ফেলে, হারিয়ে ফেলে বিচারের আশা; যা নারী আন্দোলনের বড় বাধা।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর সুফিয়া কামাল ভবন মিলনায়তনে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের লিগ্যাল এইড উপ-পরিষদের উদ্যোগে ‘পরিবার ও সমাজ হোক নারী ও কন্যাশিশু নির্যাতন প্রতিরোধের দুর্গ’ শীর্ষক কর্মশালায় তিনি এসব কথা বলেন। নারী নির্যাতন প্রতিরোধ কার্যক্রম আরও গতিশীল ও কার্যকর করার লক্ষ্যে আইনগত সহায়তা গ্রহণকারীদের সঙ্গে অভিজ্ঞতা বিনিময়ের জন্য এই কর্মশালার আয়োজন কর সংগঠনটি।

সংগঠনের সভাপতি আয়শা খানম বলেন, পরিবারে যতদিন নারী পুরুষের সমতা না আসবে ততদিন পর্যন্ত নারীর প্রতি এই সহিংসতা চলতেই থাকবে। এসময় তিনি চলমান মামলা সমূহের অবস্থা পর্যালোচনা করে পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণের কথা ব্যক্ত করেন। সব শেষে নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে বিদ্যমান আইনের যথাযথ প্রয়োগ নিশ্চিত করার দাবি রাখেন তিনি।

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মালেকা বানু বলেন, নারী ও কন্যাশিশুর প্রতি নির্যাতন মানবাধিকার লংঘন দন্ডনীয় অপরাধ। আমরা এদেশে এমন একটি সমাজ ও রাষ্ট্র ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করতে চাই যেখানে কোন শিশু বা নারী নির্যাতনের শিকার হবে না। পরিবারে নারীর প্রতি সুরক্ষা সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন। নারীর প্রতি যে সহিংসতামূলক আচরণ করা যাবে না, এই শিক্ষাটা পরিবার থেকেই একটি সন্তানকে দিতে হবে।

কর্মশালা পরিচালনা করেন বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের লিগ্যাল এইড ইউনিটের পরিচালক অ্যাড. মাকছুদা আক্তার লাইলী। উক্ত কর্মশালায় আরও উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের অন্যতম সহ-সভাপতি নাহার আহমদ। কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সম্পাদক রাখী দাশ পুরকায়স্থ, সীমা মোসলেম, প্রশিক্ষণ গবেষণা ও পাঠাগার সম্পাদক রিনা আহমদ, শিক্ষা ও সংস্কৃতি সম্পাদক বুলা ওসমান, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য রেহানা ইউনুসসহ মোট ৮০ জন উপস্থিত ছিলেন।