১৩ নভেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

রাজবাড়ীতে আ’লীগের প্রার্থীরা এগিয়ে

নিজস্ব সংবাদদাতা, রাজবাড়ী, ২৬ ডিসেম্বর ॥ শেষ মুহূর্তে রাজবাড়ীজুড়ে এখন বইছে কাকডাকা ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত বিরামহীন নির্বাচনী প্রচার। নির্বাচনী প্রচার আর পোস্টারে পোস্টারে ছেয়ে গেছে রাজবাড়ীর তিন পৌরসভার গোটা এলাকা। এবারের পৌর নির্বাচনে জেলার পাংশা, গোয়ালন্দ এবং রাজবাড়ী পৌরসভায় মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ১২ জন, কাউন্সিলর পদে ৯৭ জন আর সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে লড়ছেন ৩১ জন প্রার্থী। রাজবাড়ীতে দলীয় কোন বিদ্রোহী প্রার্থী না থাকায় ধারণা করা হচ্ছে সব পৌরসভায় লড়াই হবে হাড্ডাহাড্ডি। তবে জাতীয় সংসদের দুটি আসনেই আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য হওয়ায় নৌকা প্রতীকের সমর্থকরা শতভাগ নিশ্চিত শেখ হাসিনার মনোনীত নৌকার মাঝিরা এবার পৌরপিতার আসনে বসবেনই।

গলির চায়ের দোকান থেকে শুরু করে প্রধান সড়ক সব জায়গাতেই নির্বাচনের জোর হাওয়া বইছে রাজবাড়ীর তিনটি পৌরসভাতেই। প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতীকে পৌরসভা নির্বাচন হওয়ায় প্রচারে যোগ হয়েছে নতুন মাত্রা। দলীয় মার্কার লিফলেট নিয়ে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত বিরামহীন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ভোট চাইছেন প্রার্থীরা। সব দলের প্রার্থীই পৌর এলাকার উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন। পাশাপাশি পৌর এলাকার বিভিন্ন সমস্যা সমাধানেরও আশ্বাস দিচ্ছেন।

এক্ষেত্রে সাধারণ ভোটাররা মনে করছেন প্রার্থীদের প্রতিশ্রুত উন্নয়ন বাস্তবায়ন আর সমস্যা সমাধানের ক্ষেত্রে সরকারদলীয় প্রার্থীরা নির্বাচিত হতে পারলে স্থানীয় এমপি আর মন্ত্রীদের সঙ্গে লিয়াজোঁ করে এলাকার সমস্যাগুলো সমাধানের ক্ষেত্রে দ্রুত বাস্তবায়ন ও উন্নয়ন সম্ভব হবে। এক্ষেত্রে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থীরাই এগিয়ে রয়েছেন বলে সাধারণ ভোটারদের ধারণা। রাজবাড়ী পৌরসভায় মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন তিন প্রার্থী। আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়ে নৌকা প্রতীক নিয়ে মেয়র পদে নির্বাচন করছেন সাবেক মেয়র মহম্মদ আলী চৌধুরী।

সান্তাহারে জমে উঠেছে জামাই শ্বশুরের লড়াই

নিজস্ব সংবাদদাতা, ২৬ ডিসেম্বর, সান্তাহার ॥ বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার সান্তাহার পৌরসভা নির্বাচনে মেয়রপদে প্রার্থী মাত্র দুইজন। একজন আওয়ামী লীগের উপজেলা শ্রমিক লীগের আহ্বায়ক তরুণ ব্যবসায়ী রাশেদুল ইসলাম রাজা। অপরজন বিএনপির পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান মেয়র মোঃ তোফাজ্জল হোসেন ভুট্টু। প্রার্থী দুইজন সম্পর্কে শ্বশুর-জামাই। নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মোঃ রাশেদুল ইসলাম রাজা ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী তোফাজ্জল হোসেন ভুট্টুর ভাগ্নি জামাই। বিএনপি প্রার্থী ভুট্টু গতবার ভোটের মাঠে ছিলেন নতুন মুখ। পক্ষান্তরে আওয়ামী লীগের প্রার্থী রাজা এবার নির্বাচনের মাঠে নতুন মুখ। মামা শ্বশুরের ধানের শীষ আর ভাগ্নি জামাইয়ের নৌকার লড়াই বেশ জমে উঠেছে। চলছে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই। আওয়ামী লীগ তাদের হারানো মেয়র পদ পুনরুদ্ধারে এবং বিএনপি ধরে রাখতে মরিয়া হয়ে লড়ছে। গতবার নতুন মুখ হিসেবে শুরু থেকেই তোফাজ্জল হোসেন ভুট্টু তার দেওয়াল ঘড়ি মার্কার প্রতি গণজাগরণ সৃষ্টি করে জয় ছিনিয়ে নিয়েছিলেন। জনশ্রুতি রয়েছে সেবার তিনি আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীর বহু কর্মীকে গোপনে নিজের পক্ষে টেনে নিয়েছিলেন। ঠিক একইভাবে এবারের নতুন মুখ রাশেদুল ইসলাম রাজার ক্ষেত্রে গতবারের চিত্র পরিলক্ষিত হচ্ছে। শুরু থেকেই গণজাগরণ সৃষ্টি করে প্রচারে এখন পর্যন্ত তিনি এগিয়ে রয়েছেন।