১৪ নভেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

হাফিজ-আজহারের ফেরার আশায় পিসিবি

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ পাঁচ বছরের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে এবার আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরার পথ তৈরি হয়ে গেছে পাকিস্তানী পেসার মোহাম্মদ আমিরের। ঘরোয়া আসরে দুর্দান্ত নৈপুণ্য দেখিয়ে নিজের সামর্থ্যও প্রমাণ করেছেন তিনি। সে কারণে এবার জাতীয় দলের ক্যাম্পে ডাক পেয়েছেন আমির। আগামী মাসে নিউজিল্যান্ড সফর ও টি২০ বিশ্বকাপ সামনে রেখেই এ ক্যাম্প করা হয়েছে। কিন্তু আমির ফিটনেস ক্যাম্পে থাকার কারণে অনুশীলন বয়কট করে যোগ দেননি ওয়ানডে অধিনায়ক আজহার আলী ও ওপেনার মোহাম্মদ হাফিজ। বিষয়টি নিয়ে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) চেয়ারম্যান এ দুই ক্রিকেটারের সঙ্গে আলোচনা করেছেন। হাফিজ-আজহার ক্যাম্পে ফিরবেন এমনটাই প্রত্যাশা জানিয়েছেন শাহরিয়ার। এরপরও তারা না ফিরলে উভয় ক্রিকেটারের বিরুদ্ধে শৃঙ্খলা ভঙ্গের জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

২০১০ সালে পাকিস্তানের ইংল্যান্ড সফরে স্পট ফিক্সিং কা-ে অভিযুক্ত হয়েছিলেন আমির। তার সঙ্গে আরও দুই ক্রিকেটার মোহাম্মদ আসিফ ও সালমান বাটও দোষী প্রমাণিত হন। এ তিন ক্রিকেটারের ওপর থেকেই বর্তমানে উঠে গেছে নিষেধাজ্ঞা। তবে আমির এগিয়ে গেছেন অনেকখানি। ফেরার পথ সুগম হয়েছে সম্প্রতিই পিসিবির ডাকা ২৬ ক্রিকেটার নিয়ে ফিটনেস ক্যাম্পে সুযোগ পেয়ে। এরমাত্র দুদিন আগেই আমিরকে জাতীয় দলে ফেরার ক্ষেত্রে উপযুক্ত হিসেবে ঘোষণা করা হয় সার্বিক পুনর্বাসন প্রক্রিয়া সমাপ্ত করার কারণে। কিন্তু আমির ক্যাম্পে যোগ দেয়াতে সতীর্থ ক্রিকেটারদের প্রতিক্রিয়া ছিল মিশ্র। অধিনায়ক আজহার ও হাফিজ বয়কটই করেছেন ক্যাম্প। দলের সঙ্গে মাঠে উপস্থিত হলেও আমিরের সঙ্গে অনুশীলনে নামতে রাজি হননি এ দুজন। এমনকি কোচ ওয়াকার ইউনুস ও স্পিন কোচ মুশতাক আহমেদ তাদের মাঠে নামার জন্য অনেক বুঝিয়েও কাজ হয়নি।

শাহরিয়ার পরে আমিরকে নিয়ে পিসিবির পদক্ষেপ বিষয়ে আজহার ও হাফিজকে ডেকে ব্যাখ্যা করেছেন জাতীয় ক্রিকেট একাডেমিতে। এ বিষয়ে শাহরিয়ার বলেন, ‘খুব ভাল একটি আলোচনা হয়েছে এবং বিষয়টি একটা সমাধানের পথেই আছে। আমি উপদেষ্টাদের ডেকেছিলাম এবং তাদের (আজহার-হাফিজ) আমন্ত্রণ জানিয়েছিলাম। আমাদের কর্মপন্থা সম্পর্কে একটি বর্ণনাও দিয়েছি। আমরাও তাদের মনোভাব সম্পর্কে জেনেছি। তাদের সমস্যাটা ব্যক্তিগত নয় বরং নৈতিক।’ তবে এই আলোচনার পরেও আজহার-হাফিজ ক্যাম্পের সঙ্গে অনুশীলন না করলে পিসিবি বাধ্য হয়ে শৃঙ্খলা ভঙ্গের জন্য প্রয়োজনীয় শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করবে, এমনটাই জানিয়েছেন শাহরিয়ার। তিনি বলেন, ‘তাদের মনোভাব এবং সমস্যা শোনার পর আমরা জানিয়েছি যে অবশ্যই পিসিবির পদক্ষেপসমূহ এবং কার্যক্রম মানতে হবে। সেটা যদি তারা না করে সেক্ষেত্রে বাধ্য হয়ে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এ সময় তারা পিসিবির পলিসি মেনে চলার অঙ্গীকার করেছে এবং আমরা তাদের অনুরোধ করেছি ক্যাম্পে যোগ দেয়ার। তারা কিছু সময় চেয়েছেন এবং আমাদের সঙ্গে পরে কথা বলবেন। আশা করছি তারা ফিটনেস ক্যাম্পে যোগ দেবেন।’