১৬ নভেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

চার বছর নিষিদ্ধ কুসাল পেরেরা!

  • ড্রাগ কেলেঙ্কারি

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ শক্তিবর্ধক নিষিদ্ধ ওষুধ সেবনের কলঙ্কে টালমাটাল এ্যাথলেটিক্স বিশ্ব। দীর্ঘদিন ধরে এ্যাথলেটদের ডোপ কলঙ্কমুক্ত করার প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বিশ্ব এ্যাথলেটিক্সের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা (আইএএএফ)। এবার ক্রিকেটকেও আক্রান্ত করল সেই নিষিদ্ধ ড্রাগ। শ্রীলঙ্কার উইকেরক্ষক ব্যাটসম্যান কুসাল পেরেরা নিষিদ্ধ ওষুধ সেবন করেছেন তার প্রমাণ পাওয়া গেছে। চলতি মাসের শুরুতে তার প্রদান করা রক্তের ‘বি’ নমুনায় শনাক্ত করা হয়েছে এ ওষুধ। সে কারণে এখন তিনি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) কাছ থেকে চার বছরের নিষেধাজ্ঞা পেতে পারেন।

গত অক্টোবরে নিউজিল্যান্ড সফরের জন্য অনুশীলন ক্যাম্প ডেকেছিল শ্রীলঙ্কা। ওই দলে ছিলেন কুসাল। সে সময় ক্রিকেটারদের র‌্যানডম টেস্ট করা হয় রক্তের। ওই পরীক্ষায় কুসালের রক্তে নিষিদ্ধ ওষুধের উপস্থিতি পাওয়া গেলে বাধ্য হয়ে তাকে ক্যাম্প থেকে বাদ দেয়া হয়। এরপর দ্বিতীয়বারের মতো তার কাছ থেকে রক্তের নমুনা নেয়া হলে সেখানেও পজিটিভ হন কুসাল। আর উভয় পরীক্ষার ফলাফলই পরস্পরের সঙ্গে মিলে যায়। আইসিসি অবশ্য গত ৭ ডিসেম্বর সাময়িকভাবে কুসালকে নিষিদ্ধ করে ‘এ’ নমুনা ডোপ পজিটিভ হওয়ার কারণে। তবে দ্বিতীয় নমুনায়ও একই ফলাফল বেরিয়ে আসার পর আইসিসি এখন পর্যন্ত এ বিষয়ে কিছু জানায়নি। আইসিসির ডোপবিরোধী নীতিমালা অনুসারে যে কোন খেলোয়াড় ১৪ দিন সময় পাবেন তিন সদস্যবিশিষ্ট স্বাধীন এন্টি ডোপিং ট্রাইব্যুনালের শুনানিতে অংশ নেয়ার। সেটা করতে ব্যর্থ হলে এটাই প্রমাণিত হবে যে অভিযুক্ত খেলোয়াড় স্বীকার করে নিয়েছেন তার দোষ। একই সঙ্গে দোষী হওয়ার জন্য শাস্তির যে বিধান আছে সেটাকেও গ্রহণ করে নিয়েছেন বলে বিবেচিত হবে। শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট (এসএলসি) বা আইসিসি কোনপক্ষই জানায়নি ঠিক কোন ধরনের ড্রাগের উপস্থিতি পাওয়া গেছে কুসালের রক্তে। এখন নির্দিষ্ট সময় পর আইসিসি কুসালের বিরুদ্ধে হয়তো চূড়ান্ত একটি সিদ্ধান্ত নেবে।