২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

শান্তিনিকেতনে পৌষমেলা আকর্ষণ ঢাকাই জামদানি

রবীন্দ্র স্মৃতি বিজড়িত শান্তিনিকেতনে এবারে পৌষমেলার প্রধান আকর্ষণ বাংলাদেশের ঢাকাই জামদানি। গত ২৪ ডিসেম্বর থেকে পশ্চিমবঙ্গের বীরভুম জেলার বোলপুরের শান্তিনিকেতনে শুরু হওয়া ১২১তম আন্তর্জাতিক পৌষমেলাতে ঢাকাই জামদানির নানা সম্ভার পেয়েছে ভিন্নমাত্রা।

পৌষমেলায় হরেক ডিজাইনের চিকনপাড়ের জামদানি শাড়ির বিপুল সম্ভার প্রথম দিন থেকেই ক্রেতা ও দর্শকদের মন কাড়তে শুরু করেছে। দেখা যায়, এবারের পৌষমেলায় বিশেষ গুরুত্ব দেয়া হয়েছে বাংলার কুটির শিল্পকে। মেলায় ১২০০ স্টলের মধ্যে প্রায় ২০ শতাংশ জায়গা দেয়া হয়েছে তাঁত শিল্পকে। এর মাঝেই বেশ গুরুত্ব নিয়ে স্থান পেয়েছে ঐতিহ্যবাহী ঢাকাই জামদানি।

বিশ্বভারতীর এবারের মেলার দায়িত্বে থাকা কর্মী পরিষদের সচিব সৌগত সামন্ত জানান, এবারে মেলার ১২০০টি স্টলের মাঝে বাংলাদেশের অনেকগুলো স্টল রয়েছে। এ সমস্ত স্টলের মধ্যে বিশেষ গুরুত্ব পাচ্ছে ঢাকাই জামদানি। এছাড়াও বাংলাদেশের নানা ধরনের শিল্প সম্ভারের সন্ধান মিলবে এই মেলায়।

শান্তিনিকেতনের ঐতিহ্যবাহী ছাতিমতলা থেকে গত বৃহস্পতিবার সকালে প্রার্থনা সঙ্গীতের মাধ্যমে পৌষমেলার কার্যক্রম শুরু“হয়। শান্তি নিকেতনের এই আন্তর্জাতিক আয়োজনকে ঘিরে এবারেও রয়েছে কড়া নিরাপত্তার বেষ্টনী।

বীরভুমের পুলিশ সুপার মুকেশ কুমার জানান, আন্তর্জাতিক এই মেলাকে ঘিরে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। মেলা প্রাঙ্গণে রয়েছে ৪০টি ক্লোজ সার্কিট টিভি, ৭০০ পুলিশ কর্মী, ওয়াচ টাওয়ার দমকল এবং সিভিক পুলিশ বাহিনী।

শান্তিনিকেতনের ঐতিহ্য মেনে প্রতিবছর ৭ পৌষ এই মেলার উদ্বোধন হয়। মেলা মূলত তিন দিনের হলেও চলে প্রায় এক সপ্তাহ ধরে। দেশ-বিদেশের বহু পর্যটক আসেন এই মেলায়।

বিশ্বভারতীর শান্তিনিকেতন ট্রাস্টের সম্পাদক অনিল কোনার জানান, ১৯০৪ সালে মহর্ষি দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুর এই মেলার প্রবর্তন করেন।