১৬ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ঢাকা পরিচ্ছন্ন অভিযানে নামবেন সাঈদ খোকন ১৪ ফেব্রুয়ারি

স্টাফ রিপোর্টার ॥ আগামী বছরের ১৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালবাসা দিবসে ঢাকা শহরকে অন্যরকম ভালবাসার শহরে পরিণত করার অংশ হিসেবে বিশ্বের বুকে পরিচ্ছন্ন শহর হিসেবে গড়ে তুলতে সরকারী আধা-সরকারী স্বায়ত্তশাসিত ২৬টি সংস্থাকে সঙ্গে নিয়ে পরিচ্ছন্ন কাজে মাঠে নামবেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন। এই দিনে সকল সংস্থা একসঙ্গে ডিএসসিসি এলাকাকে পরিচ্ছন্ন করতে প্রতীকী কার্যক্রম শুরু করবেন। সম্প্রতি ২০১৬ সালকে পরিচ্ছন্ন বছর হিসেবে ঘোষণার অংশ হিসেবে এ কর্মসূচী বাস্তবায়নের ঘোষণা দেন তিনি। এর আগে সিটি কর্পোরেশন এলাকায় বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকা-ে সম্পৃক্ত ২৬টি সংস্থার প্রত্যেককে ১ জানুয়ারি থেকে যে কোনদিন আলাদা আলাদাভাবে ঘোষিত পরিচ্ছন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করার অনুরোধ জানান। রবিবার রাজধানীর ডিএসসিসির সেমিনার কক্ষে এসব সংস্থার প্রধানদের নিয়ে চলমান সকল সমস্যার সমাধান নিয়ে আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় মেয়র এ ঘোষণা দেন। অনুষ্ঠানে র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) মহাপরিচালক বেনজির আহমেদ একাত্মতা প্রকাশ করে ঢাকাকে পরিচ্ছন্ন শহর হিসেবে দেখতে ২ মেয়রকে সঙ্গে নিয়ে আগামী ৩ জানুয়ারি বিশেষ পরিচ্ছন্ন কর্মসূচী পালন করবেন বলেও ঘোষণা দেন। অনুষ্ঠানে ২৬ প্রতিষ্ঠান প্রধান, প্রতিনিধি ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিভিন্ন দফতরের প্রধানগণ উপস্থিত ছিলেন। মেয়র প্রতিটি সংস্থার প্রধানদের কাছে বছরে যে কোন একদিন পরিচ্ছন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়নে ও সচেতনতা গড়ে তুলতে কমপক্ষে একঘণ্টা প্রতীকী সময় দিতে আহ্বান জানান।

সভাপতির বক্তব্যে ডিএসসিসি মেয়র বলেন, আমরা জানি ১৪ ফেব্রুয়ারি একে-অপরকে ভালবেসে ফুল দেন, স্বামী তার স্ত্রীর প্রতি কিংবা মা তার সন্তানকে বা প্রিয়জনরা তাদের ভালবেসে নিজেদের মাঝে নানা উপহার আদান-প্রদান করেন। আসেন আরও কাছাকাছি। কিন্তু আমরা আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি একটু অন্যরকমভাবে পালনের চিন্তা করছি। তাই নগরকে ভালবেসে এদিন সবাই যেন রাস্তায় নেমে রাস্তা পরিষ্কার করেন। এদিন যেমন করে সবাই মা-বাবা পরিবার-পরিজনসহ প্রিয়জনকে ভালবাসার জন্য উজাড় করে দেয়, ঠিক একইভাবে নগরীকে ভালবেসে নগর পরিষ্কারে রাস্তায় নেমে আসার আহ্বান জানাচ্ছি। ১৪ ফেব্রুয়ারি হবে নগরীকে ভালবাসার বহির্প্রকাশ। নগরী পরিষ্কারে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সাদা শার্ট পরে সবাইকে অফিস করার আহ্বান জানান মেয়র। তবে কবে সাদা শার্ট পরতে হবে তার তারিখ পরে জানানো হবে। ১৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে আমরা ব্যাপক সচেতনতা বাড়াতে চাই। এরপর সাদা শার্ট পরে একদিন অফিস করব।

সাঈদ খোকন বলেন, ঢাকা আমাদের এক মায়ার শহর। এ শহরে কেউ একবার আসলে আর ফিরে যেতে চান না। তাই এ শহরটাকে আমাদের রক্ষা করতে হবে। পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন শহর হিসেবে ঢাকাকে বিশ্বের বুকে তুলে ধরতে চাই। তিনি প্রতি তিন মাস পরপর ২৬টি সংস্থাকে সঙ্গে নিয়ে পরিচ্ছন্ন নগরী গড়তে গৃহীত বিভিন্ন কার্যক্রম কতটুকু বাস্তবায়ন করা হয়েছে তা পর্যালোচনা সভা করা হবে বলে জানান। তবে এসব কর্মসূচী বাস্তবায়নে তিনি সকল শ্রেণীর নাগরিকদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

সভায় স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক ড. দীন মোহাম্মদ নুরুল ইসলাম বলেন, আমরা ঢাকাকে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন শহর হিসেবে দেখতে চাই। এ কার্যক্রম বাস্তবায়নে আমাদের পক্ষ থেকে সিটি কর্পোরেশনের প্রয়োজনীয় সকল কার্যক্রমে পরিপূর্ণ সহায়তা করা হবে। তিনি বলেন, প্রতিদিন ঢাকার বিভিন্ন সরকারী ও বেসরকারী হাসপাতালের ৩ ধরনের বর্জ্য জমা হয়। এর মধ্যে লিকুইড বর্জ্যওে সঠিক ব্যবস্থাপনা সিটি কর্পোরেশনের নেই। এর ফলে হাসপাতালের রক্ত, পুঁজ বা এ জাতীয় বিভিন্ন ক্যামিকেল সরাসরি ড্রেনে গিয়ে পড়ে। যা পরিবেশের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। এছাড়া অর্গানিক বর্জ্য হিউম্যান পার্টস যা অপারেশন করে ফেলে দেয়া হয় তাও কোন প্রকার রক্ষণাবেক্ষণ করা হয় না। শহরকে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন ও জীবাণুমুক্ত রাখতে এসব বর্জ্যরে সঠিক ব্যবস্থাপনা আনা জরুরী হয়ে পড়েছে। বর্তমানে সিটি কর্পোরেশনের প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবার কোন কার্যক্রম নেই। স্বাস্থ্যসেবায় সিটি কর্পোরেশন উপেক্ষিত ফলে নাগরিকগণ যত্রতত্র চিকিৎসা নিচ্ছেন। ফলে বিভিন্ন রোগের সৃষ্টি হওয়ায় পরিবেশও নোংরা হচ্ছে। আমরা প্রতিটি হাসপাতালের ভেতরে ও বাইরের পরিবেশকে জীবাণুমুক্ত ও পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রূপে দেখতে চাই। এজন্য তিনি পরিবেশ মন্ত্রণালয় ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতা কামনা করেন।