১৯ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সাময়িক নিষিদ্ধ ইয়াসির শাহ

সাময়িক নিষিদ্ধ ইয়াসির শাহ

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ মাত্র দু’দিন আগেই শ্রীলঙ্কার উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান কুসাল পেরেরা ডোপ টেস্টে পজিটিভ হয়েছিলেন। সে জন্য এ তরুণকে জাতীয় দলের অনুশীলন ক্যাম্প থেকেও বাদ দেয়া হয়েছিল। রক্তের দ্বিতীয় নমুনা পরীক্ষার পর পুনরায় পজিটিভ কুসাল এখন আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) কাছ থেকে নিষেধাজ্ঞা পাওয়ার অপেক্ষায় আছেন। তবে এই ঘটনার নরেশ না কাটতেই এবার ডোপ কলঙ্ক আঘাত হানল পাকিস্তান ক্রিকেটে। বর্তমানে পাক দলের অন্যতম নির্ভরতা তরুণ লেগস্পিনার ইয়াসির শাহকে সাময়িকভাবে ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ করেছে আইসিসি। পরীক্ষণের জন্য রক্তের যে নমুনা তিনি দিয়েছিলেন সেখানে নিষিদ্ধ পদার্থ ক্লোরটালিডোনের উপস্থিতি পাওয়া গেছে। এ কারণেই তাকে সাময়িক নিষেধাজ্ঞা দেয়া হলো।

অবৈধ বোলিং এ্যাকশনের কারণে অপরিহার্য অফস্পিনার সাঈদ আজমল নিষিদ্ধ হন। আর সে সময় দলে সুযোগ পেয়েছিলেন ইয়াসির। পরে আজমল এ্যাকশনের ক্রুটি কাটিয়ে দলে ফিরলেও আগের সেই ধার দেখাতে ব্যর্থ হয়েছেন। তাই দল থেকে ছিটকে গেছেন তিনি। তবে ইয়াসির নিজের সামর্থ্য, যোগ্যতা ও সক্ষমতা সবই দেখিয়েছেন এর মধ্যে। ফলে সম্প্রতি পাকিস্তান দলের অন্যতম বোলিং ভরসা হয়ে উঠেছেন তিনি। কিন্তু আইসিসির ডোপবিরোধী বিধি ভঙ্গের জন্য এবার ইয়াসিরও সাময়িক নিষেধাজ্ঞার শিকার হলেন। এ বিষয়ে আইসিসি এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ‘শাহের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে যে পরীক্ষার জন্য যে নমুনা সরবরাহ করেছেন সেটা পজিটিভ হওয়ার কারণে তিনি আইসিসির ডোপবিরোধী বিধি ভঙ্গ করেছেন। গত ১৩ নবেম্বর এই পরীক্ষাটি করা হয়েছিল। আমরা পরীক্ষার পর শাহের সরবরাহকৃত নমুনায় ক্লোরটালিডোনের উপস্থিতি পেয়েছি। এটি বিশ্ব ডোপবিরোধী এজেন্সির তালিকায় ৫ নম্বর ধারার অধীনে একটি নিষিদ্ধ পদার্থ। সে তালিকায় বেশ কিছু নিষিদ্ধ পদার্থের নাম আছে। এ পর্যায়ে আইসিসির ডোপবিরোধী বিধান অনুসারে শৃঙ্খলাভঙ্গের প্রক্রিয়াধীন ব্যবস্থা শেষ না হওয়া পর্যন্ত আপাতত তাকে সাময়িকভাবে নিষিদ্ধ করা হলো।’

২৯ বছর বয়সী ইয়াসির বর্তমান সময়ে পাকিস্তানের ম্যাচজয়ী পারফর্মার। গত বছর অস্ট্রেলিয়াকে ২-০ ব্যবধানে হারানোর টেস্ট সিরিজে ১২ উইকেট শিকার করেছিলেন এবং এ বছর শ্রীলঙ্কাকে ২-১ ব্যবধানে হারিয়ে দেয়ার টেস্ট সিরিজে ২৪ উইকেট নিয়ে অন্যতম ভূমিকা রেখেছিলেন। ১৩ নবেম্বর ডোপ টেস্ট হওয়ার ঠিক আগের দিন আবুধাবিতে দলের সঙ্গে অনুশীলন চলাকালে নেটে বোলিংয়ের সময় পড়ে যান শাহ। সে সময় ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজ খেলছিল পাকরা। পরে পিঠের ব্যথার কারণে এই সিরিজের প্রথম টেস্টও খেলতে পারেননি তিনি। তবে দ্বিতীয় ও তৃতীয় টেস্টে খেলে ১৫ উইকেট শিকার করে দলের জয়ে অন্যতম অবদান রাখেন। সবমিলিয়ে ১২ টেস্টের ক্যারিয়ারে ৭৬ উইকেট নিয়েছেন এখন পর্যন্ত ইয়াসির। তিনি পাকিস্তানের টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে সবচেয়ে দ্রুত ৫০ উইকেট শিকারের রেকর্ড গড়েন ৯ টেস্টে ৫০ উইকেট ঝুলিতে পুরে।