১৬ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

তৃণমূল পর্যায়ে সাংস্কৃতিক আন্দোলন গড়ে তোলার চেষ্টা করছি ॥ গোলাম কুদ্দুছ

তৃণমূল পর্যায়ে সাংস্কৃতিক আন্দোলন গড়ে তোলার চেষ্টা করছি ॥ গোলাম কুদ্দুছ

নতুন চেতনায় দেশপ্রেমে শাণিত হওয়ার দিন বিজয় দিবস। এবারের বিজয় দিবস বাঙালীর জীবনে কিছুটা অন্যভাবে এলো। একটু একটু করে কলঙ্ক মুক্তির পথে দেশ। সেই আত্মপ্রত্যয়ে বলিয়ান হয়ে প্রতিবারের চেয়ে আরও ব্যাপক ও বিস্তৃতভাবে বিজয় উৎসব উদ্যাপন করেছে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট। এবারের বিজয় উৎসব নিয়ে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি, দেশের সাংস্কৃতিক আন্দোলনের পুরধা ব্যক্তিত্ব গোলাম কুদ্দুছের সঙ্গে কথা হয়।

এবারের বিজয় উৎসব ব্যাপক ও বিস্তৃত করার কারণ কি?

গোলাম কুদ্দুছ : এবারের বিজয় উৎসব ব্যাপক ও বিস্তৃত করার নানাবিধ কারণ আছে। প্রথমত, ঢাকা শহরের লোকসংখ্যা ও পরিধির ওপর বিবেচনা করে ১৪টি জায়গায় এ উৎসব উদ্যাপন করা হয়েছে। প্রায় তিনশ সংস্কৃতিকর্মী এতে অংশ নিয়েছে। দ্বিতীয়ত, আমাদের দীর্ঘদিনের দাবি, বেশকিছু যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের রায় কার্যকরের জন্য এবারের উৎসবে ভিন্ন এক মাত্রা পেয়েছে। বিজয় উৎসবের মধ্য দিয়ে নতুন প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় নতুনভাবে উজ্জীবিত হবে এ লক্ষ্য নিয়ে আমরা এবারের উৎসবকে এত বিস্তৃত ও বর্ণাঢ্য করেছি।

সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের পরবর্তী পরিকল্পনা কি?

গোলাম কুদ্দুছ : আমরা শুধু বিভিন্ন উৎসব বা অনুষ্ঠানের ওপর নির্ভর না করে তৃণমূল পর্যায়ে সাংস্কৃতিক আন্দোলনের বলয় গড়ে তোলার চেষ্টা করছি। দেশের বিভিন্ন উপজেলা শিল্পকলা একাডেমিকে আরও কার্যকর করার জন্য সরকারের কাছে দাবি রাখছি। জাতীয় বাজেটের ন্যূনতম এক শতাংশ সাংস্কৃতিক কাজে বরাদ্দর জন্য দাবি করছি। ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলা শহরে আধুনিক মঞ্চ, মহড়া কক্ষ, দক্ষ প্রশিক্ষক নিয়োগসহ সব রকমের সহযোগিতা সরকারকে করতে হবে।

শহীদ বুদ্ধিজীবী ও শহীদদের সংখ্যা নিয়ে সাম্প্রতিক আপত্তিকর বক্তব্যে আপনার প্রতিক্রিয়া কি?

গোলাম কুদ্দুছ : আমরা প্রত্যক্ষ করছি যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের প্রক্রিয়া সমাপ্তির পথে। জাতি মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে নতুন আগামীর স্বপ্ন দেখছে। সে সময় মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের সংখ্যা এবং শহীদ বুদ্ধিজীবীদের সম্পর্কে আপত্তিকর ও অবমাননাকর বক্তব্য দিয়ে একটি মহল প্রকান্তরে দেশী-বিদেশী যুদ্ধাপরাধীদের পক্ষে অবস্থান করছে। তাদের বক্তব্য স্বাধীনতাবিরোধীদের অনুরূপ। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের মানুষ তাদের এ বক্তব্য কখনও গ্রহণ করবে না। আমি বিশ্বাস করি মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস এক ও অভিন্ন। Ñগৌতম পা-ে

নির্বাচিত সংবাদ