২০ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বরগুনার প্রার্থীরা শেষ মুহূর্তে ব্যস্ত

নিজস্ব সংবাদদাতা, বরগুনা, ২৮ ডিসেম্বর ॥ আসন্ন পৌরসভা নির্বাচন ঘিরে বরগুনায় জমে উঠেছে নির্বাচনী প্রচার। প্রতীক বরাদ্দের পর থেকেই প্রচার শুরু করেছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী এ্যাডভোকেট কামরুল আহসান মহারাজ। কনকনে শীতের মধ্যেও ঘাম ঝড়াচ্ছেন তিনি। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত দলীয় প্রতীক নিয়ে ভোট চেয়ে প্রচার থাকছেন। আর জনসংযোগ ও পথসভায় ব্যস্ততম সময় পার করছেন বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী এস এম নজরুল ইসলাম। এছাড়াও নির্বাচনী মাঠে জোরেশোরে প্রচার চালাচ্ছেন আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী সাহাদাত হোসেন এবং শাহজাহানসহ কাউন্সিলর প্রার্থীরা।

বরগুনা জেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, এবার বরগুনা পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের তিনজন, বিএনপির একক প্রার্থীসহ মোট ছয়জন, ৯টি ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে ৪১ জন এবং তিনটি সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১১ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

বরগুনা পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র প্রার্থীরা হলেন, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক, জেলা যুবলীগের সভাপতি ও জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এবং আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী এ্যাডভোকেট কামরুল আহসান মহারাজ। বর্তমান মেয়র ও আওয়ামী লীগের সদ্য বিদ্রোহী প্রার্থী শাহাদাত হোসেন। জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, বরগুনার সভাপতি ও দু’বারের নির্বাচিত সাবেক মেয়র এ্যাডভোকেট মোঃ শাহজাহান। জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও বিএনপি মনোনীত একমাত্র প্রার্থী এসএম নজরুল ইসলাম। জাতীয় পার্টি মনোনীত আঃ জলিল। সম্প্রতি এনপিপি মনোনীত মাহবুবুল আলম মান্নু তার নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন।

এছাড়া পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, বর্তমান মেয়র ও আওয়ামী লীগের সদ্য বিদ্রোহী প্রার্থী মোঃ শাহাদাত হোসেন সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বরগুনা পৌরসভার উন্নয়নে দৃশ্যমান বেশ কিছু উন্নয়ন কর্মকা- সফলভাবে বাস্তবায়নে সক্ষম হন। পাশাপাশি ধনাঢ্য ব্যবসায়ী হওয়ায় বিগত বছরগুলোতে নিজস্ব যাকাতসহ নানাভাবে নিম্ন ও নিম্নবিত্ত পৌরবাসীর প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয়ার কারণে এবারের নির্বাচনে তার অবস্থান গতবারের তুলনায় আরও সুদৃঢ় হয়েছে বলে মনে করছেন স্থানীয়রা।

আর এসব কারণেই আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী এ্যাডভোকেট কামরুল আহসান মহারাজ এবং বর্তমান মেয়র ও বিদ্রোহী প্রার্থী মোঃ শাহাদাত হোসেনের অবস্থান অনেকটা মুখোমুখি। সম্প্রতি মোঃ শাহাদাত হোসেনের একটি শান্তিপূর্ণ পথসভায় হামলা চালিয়ে নারী ও শিশুসহ অর্ধশত কর্মী-সমর্থককে আহত করেছে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী কামরুল আহসান মহারাজের কর্মী ও সমর্থকরা এমন অভিযোগ মোঃ শাহাদাত হোসেনের। যদিও এ অভিযোগ অস্বীকার করে বিদ্রোহী প্রার্থী মোঃ শাহাদাত হোসেন ও তার কর্মী সমর্থকদের বিরুদ্ধে নৌকা প্রতীকসহ তিনটি অফিস ভাঙচুরের পাশাপাশি একাধিক কর্মীকে হামলা চালিয়ে আহত করার পাল্টা অভিযোগও করেছেন এ্যাড. কামরুল আহসান মহারাজ।

বরগুনা পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের অপর বিদ্রোহী প্রার্থী এ্যাড. মোঃ শাহজাহানও রয়েছেন শক্তিশালী অবস্থানে। এর আগে পরপর দু’বার মেয়র পদে দায়িত্বে থাকাকালীন নানামুখী উন্নয়ন কর্মকা-ের পাশাপাশি সামাজিক ও সাংস্কৃতিক বিভিন্ন কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে তিনিও সর্বস্তরের পৌরবাসীর দৃষ্টি আকর্ষণে সক্ষম হন। এবারের নির্বাচনে সরকার দলীয় প্রার্থী এবং সদ্য বিদ্রোহী ও বর্তমান মেয়র মোঃ শাহাদাত হোসেনের দ্বন্দ্ব সংঘাতের সুযোগকে কাজে লাগিয়ে এ্যাডভোকেট মোঃ শাহজাহানও তার প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন অনেকটা সুকৌশলে।

এছাড়া দুই বিদ্রোহী প্রার্থীসহ আওয়ামী লীগেরই তিনজন প্রার্থীর প্রতিদ্বন্দ্বিতার সুযোগ নিয়ে ভোটযুদ্ধে মাঠে রয়েছেন জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও বিএনপি মনোনীত একমাত্র প্রার্থী এসএম নজরুল ইসলাম। এর আগের নির্বাচনগুলোতে বিএনপির অভ্যন্তরীণ কোন্দল অনেকটা স্পষ্ট থাকলেও এবারের নির্বাচনে দলীয় কোন্দল অনেকটাই মøান বলে মনে করছেন জেলা বিএনপির জ্যেষ্ঠ নেতাকর্মীরা। সেসব কারণে একটি সুষ্ঠুু ও নিরপেক্ষ ভোট অনুষ্ঠিত হলে এবং এন্টি আওয়ামী লীগ ভোটের সিংহভাগ বাগিয়ে নিতে পারলে অনেকটা ফাঁকা মাঠেই গোল দিতে পারেন বিএনপি মনোনীত প্রার্থী এসএম নজরুল ইসলাম এমন মন্তব্যও স্থানীয়দের।