২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

গাইবান্ধায় হুমকি ও ভয়ভীতি দেখানোর অভিযোগ

নিজস্ব সংবাদদাতা, গাইবান্ধা, ২৮ ডিসেম্বর ॥ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী (জগ মার্কা) মির্জা হাসান তার কর্মী-সমর্থক এবং এজেন্টদের হুমকি এবং থানায় আটকে রেখে হয়রানি করার অভিযোগ তুলেছেন।

সোমবার দুপুরে গাইবান্ধা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অভিযোগ উত্থাপন করেন। তিনি বলেন, বিভিন্ন সময় তার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ও তাদের লোকজন তার প্রতীক নিয়ে গণসংযোগে গেলে বাধা প্রদানসহ ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে। এমনকি মোবাইল ফোনের মাধ্যমেও তার কর্মীদের অব্যাহতভাবে হুমকি প্রদান করা হচ্ছে। তিনি এ বিষয়টি মৌখিকভাবে গাইবান্ধা পৌরসভার দায়িত্বপ্রাপ্ত রিটার্নিং অফিসার ও সংশ্লিষ্ট প্রশাসন এবং নির্বাচন কর্মকর্তাকে অবহিত করেছেন। এ ব্যাপারে তিনি একটি লিখিতভাবে অভিযোগ করবেন বলেও জানান।

আইনজীবীরা নৌকা নিয়ে মাঠে

গাইবান্ধা পৌরসভা নির্বাচনে জেলা বারের সভাপতি এ্যাডভোকেট ফারুক আহমেদ প্রিন্সের নেতৃত্বে গলায় নৌকা প্রতীকের কার্ড ঝুলিয়ে আইনজীবীরা শহরে প্রচারে নেমেছেন। সোমবার বিপুলসংখ্যক আইনজীবী কালো কোট পড়ে গলায় নৌকা প্রতীক ঝুলিয়ে প্রতিটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে গিয়ে গাইবান্ধা পৌরসভায় নৌকা প্রতীকের মেয়র প্রার্থী এ্যাডভোকেট শাহ মাসুদ জাহাঙ্গীর কবির মিলনের পক্ষে ভোট প্রার্থনা করেন। এ সময় তারা বিভিন্ন মহল্লা এবং সড়কে চলাচলকারী পথচারীদেরও ভোট দেয়ার আহ্বান জানান। সেসময় আইনজীবীরা নৌকা প্রতীকের লিফলেটও বিতরণ করেন। আইনজীবীদের এই ব্যতিক্রমধর্মী প্রচারে ভোটারদের মধ্যে সাড়া জাগায়।

কিশোরগঞ্জে তিন কাউন্সিলর প্রার্থীর দণ্ড

নিজস্ব সংবাদদাতা, কিশোরগঞ্জ, ২৮ ডিসেম্বর ॥ কুলিয়ারচর পৌরসভায় খিচুড়ি খাওয়ানোর আয়োজন করে নৌকা প্রতীকে ভোট দেয়ার অভিযোগে নন্দলাল দাস নামের এক নৌকার সমর্থককে এক হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। রবিবার রাতে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হুমায়ুন কবীর পৌর এলাকার দাসপাড়ায় আচরণবিধি লঙ্ঘনের দায়ে ওই সমর্থককে উপরোক্ত অর্থদ- প্রদান করেন।

অপরদিকে কিশোরগঞ্জ পৌরসভায় নির্বাচনী প্রচারে আলোকসজ্জা করার অপরাধে তিন কাউন্সিলর প্রার্থীকে অর্থদ- দেয়া হয়েছে। এডিসি (সার্বিক) তরফদার মোঃ আক্তার জামিল ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবু তাহের মোঃ সাঈদ ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকালে ৫নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী মিজানুর রহমান মিলন (উটপাখি) ও আশরাফুল আলম শামীমকে (পানির বোতল) ৩০ হাজার টাকা করে এবং দেয়ালে পোস্টার সাঁটানোর অভিযোগে ৩নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী আব্দুল গণিকে ২০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড প্রদান করেন।