১৪ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

অদম্য জেসিকা...

অদম্য জেসিকা...

মানুষের সাফল্যের গল্পগুলোর শুরুটা বোধহয় এমনই হয়। কঠিন, কণ্টকাকীর্ণ পথ। তবু লক্ষ্যে অবিচল থেকে পথ চলা আর এক সময় সাফল্যের দোরগোড়ায় পৌঁছে যাওয়া। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের ফিলাডেলফিয়ার জেসিকা রুইজের এই কণ্টকাকীর্ণ পথে চলাটা এত মসৃণ ছিল না। চলবেন কি করে, ছোটবেলা থেকেই যে তিনি দুরারোগ্য ব্যধিতে আক্রান্ত। আবার জেসিকার হাত-পা দুটিই পঙ্গু। কিন্তু সেই রোগ তার মনকে দমানে পারেনি বরং হার মেনেছে তার না হারা মানসিকতার কাছে। অবশেষে আজ তিনি সফল। যারা একদিন বলেছিল, তিনি কোনদিন কোন কাজ করে সফল হতে পারবেন না। তাদের মুখের ওপর জবাব দিয়ে সেই বিকলাঙ্গ জেসিকা এখন খ্যাতিমান বিউটিশিয়ান।

সাফল্যের কণ্টকাকীর্ণ পথে চলার গল্পটা গণমাধ্যমকে জেসিকা নিজেই বলেছেন। জন্ম থেকেই অথ্রোগ্রেপোসিস নামের একটি কঠিন রোগে আক্রান্ত তিনি। এই রোগে জেসিকা হাত ও পা নাড়াতে পারেন না। এর ফলে, ছোট থেকে স্কুলে আর পাঁচজন সহপাঠীর থেকে কিছুটা পিছিয়ে পড়েন। আর সেখানে থেকেই নিজেকে সবার চেয়ে আলাদা করে গড়ে তোলার অদম্য জেদ চেপে যায় জেসিকার মনে। একসময় ইচ্ছে জাগে তিনি মেকআপ আর্টিস্ট হবেন। ভাবনা অনুসারে ভর্তিও হন মেকআপ শেখানোর স্কুলে। কিন্তু সেখানেও মেলে অপমান। বলা হয়, তার নাকি জীবনে কোন কিছুই হবে না।

আর ঠিক এই ‘না’ শোনার সঙ্গে সঙ্গে শুরু হয় জেসিকার নতুন জীবন। মুখে মেকআপের ব্রাশ ধরে অনায়াসে আজ তিনি সাধারণ কোন মহিলাকে অনন্য সাধারণ করে তুলতে পারেন। আর তার এই কাজের জন্য মিলেছে স্বীকৃতিও। এরইমধ্যে বিশ্বের খ্যাতনামা মেকআপ শিল্পী হিসেবে তিনি স্বীকৃত। আর এখন এই কাজে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ডাক পাচ্ছেন এক সময়ের ‘অসহায়’ জেসিকা। -ওয়েবসাইট অবলম্বনে।