১৫ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

১ ঘণ্টার কর্মবিরতিতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ ৮ম জাতীয় পে-স্কেলে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রবেশ পদ অর্থাৎ সহকারি পরিচালক পদকে ৮ম গ্রেড থেকে ৯ম গ্রেডে নামিয়ে দেওয়ার প্রতিবাদে এবং কর্মকর্তাদের জন্য একটি স্বতন্ত্র পে-স্কেল চালুর দাবিতে এক ঘণ্টার কর্মবিরতি ও প্রতিবাদি মানববন্ধন করেছে বাংলাদেশ ব্যাংকের সবপর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। মঙ্গলবার মতিঝিলে বাংলাদেশ ব্যাংক চত্ত্বরে দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে দেড়টা পর্যন্ত এ কর্মসূচি চলে। এসময় একই দাবিতে ব্যাংকটির ঢাকার বাইরের সকল শাখা অফিসের কর্মকর্তারাও এ কর্মসূচি পালন করেন।

বাংলাদেশ ব্যাংক অফিসার্স ওয়েলফেয়ার কাউন্সিলের উদ্যোগে দুপুর ১২টা দিকে ব্যাংকের সব পর্যায়ের কর্মকর্তারা সবধরনের কার্যক্রম বন্ধ রেখে ব্যাংকের নিচে নেমে আসেন। পরে তারা মানববন্ধনে অংশ নেন। এ সময় কর্মকর্তাদের হাতে দাবির পক্ষে বিভিন্ন স্লোগান লেখা ব্যানার, প্লাকার্ড দেখা যায়। এতে লেখা ছিল- কেন্দ্রীয় ব্যাংকে মেধাশূন্য করার অপচেষ্টা নিপাত যাক, অমর্যাদাকর পে-স্কেল বাতিল কর, সহকারি পরিচালক পদের অবমাননা মানি না, বৈষম্যের পে-স্কেল বাতিল কর ইত্যাদি।কর্মসূচি চলাকালে অফিসার্স ওয়েলফেয়ার কাউন্সিলের ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. দেলোয়ার হোসাইন খান অভিযোগ করে বলেন, সরকারের কিছু আমলারা পরিকল্পিতভাবে বাংলাদেশ ব্যাংকের পর্যাদা হানি করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে। তারা বাংলাদেশ ব্যাংকে একটি তাবেদারি প্রতিষ্ঠানে পরিণত করতে চায়। এর অংশ হিসেবে তারা কর্মকর্তাদের পদমর্যাদার অবমূল্যায়ন করেছে। তিনি বলেন, অর্থমন্ত্রী আমাদের প্রতিশ্রুতি দিয়ে বলেছিলেন, বাংলদেশ ব্যাংকের স্বতন্ত্র পে-স্কেল ব্রিফকেসে আছে। এটি বাস্তবায়ন সময়ের ব্যাপার মাত্র। কিন্তু তিনি প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করে কেন্দ্রীয় ব্যাংককে অবমূল্যায়ন করেছেন। তিনি সহকারি পরিচালক পদকে ৯ম গ্রেড থেকে ৮ম গ্রেডে উন্নিত করা এবং কর্মকর্তাদের জন্য স্বতন্ত্র পে-স্কেল প্রতিষ্ঠায় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপে কামনা করেন।

সংগঠনটির সেক্রেটারি মোহাম্মদ শাহরিয়ার সিদ্দিকী বলেন, ২০০৯ সালের সপ্তম বেতন কাঠামোয় বাংলাদেশ ব্যাংকের সহকারি পরিচালকরা বিসিএস ক্যাডার ও পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের সঙ্গে একই গ্রেডে ছিল। ৮ম বেতন কাঠামোর গেজেটে তাদেরকে এক ধাপ নিচে নামিয়ে দেওয়া হয়েছে। আমরা মনে করি এর মাধ্যমে সরকার বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তাদের হেয় করেছে। তাই এটিকে আমাদের মর্যাদার লড়াই হিসেবে দেখছি। আগামি ৩১ ডিসেম্বর সকাল ১০ টায় কর্মকর্তারা প্রতীকী কলম বিরতিতে যাবেন বলে জানান শাহরিয়ার সিদ্দিকী। প্রসঙ্গত, গত রোববারও একই দাবিতে আধা ঘণ্টার কর্মবিরতি পালন করেন তারা। ওই দিন আন্দোলনের অংশ হিসেবে তারা কালো ব্যাজ ধারণ করেন।