১৫ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

শীতলক্ষ্যার তীরে অপরিকল্পিত শিল্প-কারখানা

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ নারায়ণগঞ্জে শীতলক্ষ্যার পাড় ঘেঁষে গড়ে উঠেছে ছোট-বড় বহু শিল্প-কারখানা। এসব শিল্প নারায়ণগঞ্জকে অর্থনৈতিক অঞ্চলের খ্যাতি দিলেও তা গড়ে উঠেছে কোন ধরনের পরিকল্পনা ছাড়াই। এতে একদিকে যেমন নদী তার বৈচিত্র্য হারাচ্ছে, অন্যদিকে জঞ্জালের নগরী হয়ে উঠছে নারায়ণগঞ্জ। ব্যবসায়ীরা বলছেন, দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করলে এখনও শিল্পভিত্তিক গোছানো নগর হয়ে উঠতে পারে নারায়ণগঞ্জ।

নরসিংদী থেকে মুন্সীগঞ্জ পর্যন্ত ৬৫ মাইল দীর্ঘ যে শীতলক্ষ্যা বয়ে গেছে নারায়ণগঞ্জের ওপর দিয়ে, ইংল্যান্ডের টেমস নদীর পর তা বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম পোতাশ্রয় বেষ্টিত শান্ত নদী। এ নদীর অনন্য বৈশিষ্ট্য হলো, সারাবছরই থাকে এর নাব্যতা। আর এ নদীর পরিবহন ব্যবস্থার সুবিধাকে কাজে লাগিয়ে দুই তীরে গড়ে উঠেছে অনেক শিল্প-কারখানা।

খাদ্য পণ্য থেকে শুরু করে সিমেন্টের মতো ভারি শিল্প-কারখানা যেমন আছে। তেমনি জামদানির মতো ঐতিহ্যবাহী কুটির শিল্প, রফতানিমুখী আধুনিক নীট শিল্পও আছে এখানে। সব মিলে এ নদী ঘিরেই গড়ে উঠেছে ছোট বড় কয়েকশ’ কারখানা। তবে নদী কেন্দ্রিক এ শিল্প শহরের বিকাশ হয়নি পরিকল্পিতভাবে।

এসব স্বীকার করে জেলা প্রশাসক বলছেন, নিট ওয়্যার ও এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অন্য শিল্প শান্তির চর নামের একটি এলাকায় স্থানান্তরের যে পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করছে সরকার, তার বাস্তবায়ন হলে অনেকটাই গুছিয়ে উঠবে নারায়ণগঞ্জ। পাশাপাশি, নদী ও শিল্প উভয়ের সংরক্ষণে আরও বড় পরিসরে সরকারী পরিকল্পনার ওপর গুরুত্ব দিলেন ব্যবসায়ীরা।