২৪ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ব্র্যাক চিকেন ও আড়ং ডেইরির সেরা স্বাদে জয়

দেশে সুস্বাস্থ্যময় ও হাইজেনিক খাদ্য উৎপাদনে বদ্ধপরিকর ব্র্যাক চিকেন ও আড়ং ডেইরি। সম্প্রতি ব্র্যাক চিকেন ও আড়ং ডেইরির সার্বিক সহযোগিতায় এবং বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশনের উদ্যোগে ভিজিট বাংলাদেশ ২০১৬-এর কার্যক্রম হিসেবে ‘সেরা স্বাদে জয়’ শিরোনামের এক খাদ্য উৎসব ও প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। ব্র্যাক এন্টারপ্রাইজেস চায় হাইজেনিক খাদ্য সম্পর্কে জনসচেতনতা তৈরি ও এর গুরুত্ব সারাদেশের সাধারণ মানুষের কাছে ছড়িয়ে দিতে। অনুষ্ঠানে ব্র্যাক চিকেন ও আড়ং ডেইরির হাইজেনিক খাদ্য গুণাগণ বিষয়গুলো তুলে ধরা হয়। ন্যাশনাল হোটেল এ্যান্ড ট্যুরিজম ইনস্টিটিউটের প্রশিক্ষণার্থীদের অংশগ্রহণে দেশী-বিদেশী মুখরোচক নানা খাদ্য প্রদর্শনের পাশাপাশি প্রশিক্ষণার্থীদের মাঝে প্রতিযোগিতারও আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান মুহাম্মদ ফারুক খান, এমপি এবং বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব খোরশেদ আলম চৌধুরী এবং ব্র্যাক ডেইরি এ্যান্ড ফুডের এজিএম সুরাইয়া সিদ্দিকা।Ñ বিজ্ঞপ্তি

কুষ্টিয়ায় গড়ে উঠেছে আড়াই শ’ কারখানা

কুষ্টয়া জেলায় গড়ে উঠেছে ছোট ছোট কয়েক শ’ পোশাক শিল্প প্রতিষ্ঠান। এসব প্রতিষ্ঠানে কর্মসংস্থান হচ্ছে অনেকের। সঠিক পৃষ্ঠপোষকতা, অর্থায়নসহ অন্য সুবিধা পেলে জেলার এ শিল্পখাত আরও এগিয়ে যাবে বলছেন ব্যবসায়ীরা। কুষ্টিয়া শহরের বড় স্টেশন রোড, চ-িচরণ রোড ও আব্দুল আজিজ সড়কের দু’ধারে গড়ে উঠেছে প্রায় আড়াই শ’ ছোট ছোট গার্মেন্টস কারখানা। এসব কারখানায় কর্মরত আছেন কয়েক হাজার শ্রমিক। এখানে প্রস্তুতকৃত পোশাক স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে বিক্রি হচ্ছে আশপাশের প্রায় ২০-২৫টি জেলায়। তবে কাঁচামালের দাম বৃদ্ধিসহ নানা প্রতিকূলতায় সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে এখানকার পোশাক কারখানাগুলো। এ অবস্থায় সহজ শর্তে ব্যাংক ঋণ, গ্যাস সরবরাহ ও আধুনিক যন্ত্রপাতি ব্যবহারের সুবিধা চান শিল্প মালিকরা। - অর্থনৈতিক রিপোর্টার

আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ঋণ হিসাবের মেয়াদ বৃদ্ধি নয়

অযৌক্তিকভাবে আর্থিক প্রতিষ্ঠানসমূহের মেয়াদী ঋণ/লিজ হিসাবের মেয়াদ বৃদ্ধি না করতে শর্তারোপ করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। মঙ্গলবার বাংলাদেশ ব্যাংকের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বাজার বিভাগের এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন দেশের কার্যরত সকল আর্থিক প্রতিষ্ঠানে পাঠানো হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, কিছু কিছু আর্থিক প্রতিষ্ঠান ঋণ/লিজ হিসাব পুনর্গঠনের নামে অযৌক্তিকভাবে বার বার বিদ্যমান ঋণ/লিজের মেয়াদ বৃদ্ধি করেছে। যা আর্থিক খাতের সুশাসনের পরিপন্থী। এখন হতে আর্থিক প্রতিষ্ঠানসমূহের মেয়াদী ঋণ/লিজ হিসাবের মেয়াদ বৃদ্ধির ক্ষেত্রে নিম্নোক্ত নির্দেশনা অনুসরণ করতে বলা হয়েছে। এতে আরও বলা হয়, কেবল স্ট্যান্ডার্ড বা বিশেষ হিসাবের মানের ঋণ/লিজ হিসাবের মেয়াদ বৃদ্ধি করা যাবে। মেয়াদ বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত কমপক্ষে উক্ত ঋণ/লিজ অনুমোদনকারী কর্তৃপক্ষ কর্তৃক অনুমোদিত হতে হবে। ঋণ/লিজ সুবিধার মেয়াদ বৃদ্ধির সময়সীমা কোনক্রমেই অবশিষ্ট মেয়াদের ২৫ শতাংশের বেশি হবে না। -অর্থনৈতিক রিপোর্টার