২০ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মোবাইলে দিনে পাঁচ শ’ টাকার বেশি রিচার্জ নয়-

বিডিনিউজ ॥ মোবাইল ফোনে প্রি-পেইড গ্রাহকদের দিনে সর্বোচ্চ ৫০০ টাকার রিচার্জ সীমা বেঁধে দিয়েছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি।

মঙ্গলবার বিটিআরসি এ সংক্রান্ত একটি চিঠি মোবাইল অপারেটরদের কাছে পাঠিয়েছে। এতে উল্লেখ করা হয়, একজন প্রি-পেইড গ্রাহক সর্বোচ্চ পাঁচ হাজার টাকার ব্যালেন্স রাখতে পারবেন। প্রি-পেইড গ্রাহকরা দিনে ৫০০ টাকা সর্বোচ্চ রিচার্জ করতে পারবেন। এছাড়া প্রি-পেইড গ্রাহকরা মাসে এক হাজার টাকা ব্যালেন্স ট্রান্সফার করতে পারবেন এবং দিনে ৩০০ টাকার বেশি ব্যালেন্স ট্রান্সফার করতে পারবেন না। তবে পোস্ট পেইড গ্রাহকদের বিষয়ে কোন সীমা বেঁধে দেয়নি বিটিআরসি। বিটিআরসি পরিচালক (সিস্টেম এ্যান্ড সার্ভিসেস) লেফটেন্যান্ট কর্নেল মোহাম্মদ জুলফিকার স্বাক্ষরিত ওই চিঠিতে বলা হয়, এ সিদ্ধান্ত অবিলম্বে কার্যকর হবে। তবে ২০০৮ সালের নির্দেশনা সংশোধন করে রিচার্জের সীমা বেঁধে দেয়ার কোন কারণ উল্লেখ করা হয়নি চিঠিতে। ইন্টারনেট ডেটা রিচার্জের ক্ষেত্রে এ নিয়ম প্রযোজ্য হবে কিনা তাও উল্লেখ নেই চিঠিতে। বর্তমানে বেশিরভাগ গ্রাহকরাই (প্রি-পেইড) একসঙ্গে অনেক টাকার ডেটা (ইন্টারনেট) প্যাকেজ কিনে থাকেন বলে জানিয়েছেন অপারেটররা।

সর্বশেষ ২০০৮ সালের এ সংক্রান্ত নির্দেশনায় একবারে সর্বোচ্চ এক হাজার টাকা রিচার্জ করার নিয়ম ছিল, তবে তা প্রতিদিন নির্ধারিত ছিল না। প্রতিমাসে ব্যালেন্স ট্রান্সফারের সীমা এক হাজার টাকা আগেও ছিল, তবে প্রতিদিন ব্যালেন্স ট্রান্সফার ১০০ টাকার পরিবর্তে ৩০০ টাকা করা হয়েছে। প্রি-পেইড গ্রাহক সর্বোচ্চ পাঁচ হাজার টাকার ব্যালেন্স রাখার বিষয়টিও অপরিবর্তিত রয়েছে। অপারেটরদের সংগঠন এ্যাসোসিয়েশন অব মোবাইল টেলিকম অপারেটর্স অব বাংলাদেশের (এ্যামটব) মহাসচিব টিআইএম নুরুল কবির বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ‘এ সিদ্ধান্তের ফলে গ্রাহকরা সমস্যায় পড়বে। মোবাইল গ্রাহকদের দিনে ৫০০ টাকা রিচার্জ খুবই কম পরিমাণ ধরতে হবে। এখানে অনেক ডেটা প্যাকেজ রয়েছে এর চেয়ে বেশি মূল্যের।’

বর্তমানে বাংলাদেশের ইন্টারনেট গ্রাহকদের মধ্যে ৯৭% মোবাইল ইন্টারনেট ব্যবহার করে থাকে জানিয়ে কবির বলেন, ‘এর ফলে তৃণমূল পর্যায়ের গ্রাহকরা বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তারা অনেকাংশেই ডিজিটাল সার্ভিস থেকে বঞ্চিত হতে পারে।’ সামগ্রিক বিষয়গুলো মোবাইল অপারেটরদের নিয়ে আলোচনা করে বিটিআরসি একটি যুক্তিসঙ্গত ব্যালেন্স সীমা বেঁধে দেবে বলেও আশা প্রকাশ করেন এ্যামটব মহাসচিব।

বিটিআরসি চেয়ারম্যান শাহজাহান মাহমুদ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, সর্বোচ্চ ৫০০ টাকা প্রতিদিন রিচার্জের এ নির্দেশনা অপারেটরদের হাতে পৌঁছার পর কার্যকর হবে। বর্তমানে গ্রাহকরা বড়মাপের ডেটা নিচ্ছে, যা ৫০০ টাকার বেশি মূল্যের- এসব ক্ষেত্রে কী হবে? জানতে চাইলে বিটিআরসি প্রধান বলেন, ‘এ বিষয়ে এখনও আলোচনা হয়নি। এখন জেনারেল পাবলিক ৫০০ টাকা করে যদি রিচার্জ করে প্রতিদিন, অবৈধ ভিওআইপি করার যে সম্ভাবনা থাকে, যেমন- ১০ হাজার টাকা আপ করে বাকিটা অন্য কাজে ব্যবহার হয়, ওইটা আর হবে না। এটি একটি টেস্ট কেস।’ অবৈধ ভিওআইপি বন্ধে এ উদ্যেগ কিনা- এ বিষয়ে বিটিআরসি চেয়ারম্যান বলেন, ‘এটি বলতেই পারেন।’ এ বিষয়ে অপারেটরদের সঙ্গে কোন আলোচনার প্রয়োজন নেই জানিয়ে মাহমুদ বলেন, এ নির্দেশনা পরীক্ষামূলকভাবে চলবে। নবেম্বরের শেষ নাগাদ দেশে মোবাইল ফোন গ্রাহকসংখ্যা ১৩ কোটি ৩১ লাখ ছাড়িয়েছে।

বিটিআরসির একজন উর্ধতন কর্মকর্তা জানান, মোবাইল গ্রাহকের মধ্যে ৯৮ শতাংশের বেশি প্রি-পেইড গ্রাহক। বিটিআরসির হিসাবে গত নবেম্বর শেষ নাগাদ দেশে সব ধরনের (মোবাইল, ওয়াইম্যাক্স, ফিক্সড ব্রডব্যান্ড) ইন্টারনেট গ্রাহকসংখ্যা ছিল পাঁচ কোটি ৩৯ লাখ ৪১ হাজার। অন্যদিকে নবেম্বরে মোবাইল ইন্টারনেট গ্রাহকসংখ্যা দাঁড়ায় ৫ কোটি ১৪ লাখ ৬৮ হাজারে।