২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

দলের জন্য অর্থ সংগ্রহ করতেই ডাকাতি ॥ দিনাজপুরে আটক ৩ জেএমবির স্বীকারোক্তি

স্টাফ রিপোর্টার, দিনাজপুর ॥ দিনাজপুর সদর উপজেলায় পেট্রোল পাম্পে ডাকাতি, গুলিবর্ষণ ও বোমা বিস্ফোরণ ঘটনায় জেএমবির ৩ সদস্য চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়ে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদান করেছে। মঙ্গলবার বেলা ২টা থেকে বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত দিনাজপুরের অতিরিক্ত চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এফ এম আহসানুল হকের আদালতে এই মামলার গ্রেফতারকৃত জেএমবির ৩ সদস্য স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদান করে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কোতোয়ালি থানার এসআই মোস্তাফিজুর রহমান জেএমবির ৩ সদস্যকে বিচারকের কাছে সোপর্দ করে তাদের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী রেকর্ড করার আবেদন করেন। বিচারক বেলা ২টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে জবানবন্দী রেকর্ড করেন। জবানবন্দী প্রদানকারীরা হলো পটুয়াখালী জেলার বাউফল উপজেলার রানায়নপাশা গ্রামের শমসের আলী হালদারের পুত্র জোবায়ের হোসেন ওরফে শাহীন (২৫), পঞ্চগড় জেলার দেবীগঞ্জ উপজেলার ধনম-ল গ্রামের ওসমান গনির পুত্র সাদ্দাম হোসেন (২৫) ও দিনাজপুর সদর উপজেলার গুঞ্জাবাড়ী গ্রামের আব্দুল কাইয়ুমের পুত্র হাবিব (৩২)। পুলিশ এদের কাছ থেকে ডাকাতি কাজে ব্যবহৃত ৩টি ইউএসএ পিস্তল, ৫ রাউন্ড গুলি, ১টি গুলির খোসা, ৩টি মোটরসাইকেল, নগদ ১৪ হাজার ২৮১ টাকা, ২৫টি লিফলেট ও ১১টি জিহাদী বই উদ্ধার করে।

আদালতের একটি সূত্র জানায়, জবানবন্দীতে তারা দিনাজপুর ও রংপুর বিভাগের কয়েকটি অঞ্চলে ব্যাংক, পেট্রোল পাম্প, বীমা প্রতিষ্ঠান, সরকারী অফিস ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ডাকাতির জন্য পরিকল্পনা করেছিল বলে উল্লেখ করে। পরিকল্পনা অনুযায়ী তাদের টিমের সদস্যরা এসব ডাকাতি করত। এর জন্য তাদের সংগঠন থেকে জেএমবির কয়েকটি টিমকে ভাগ করে অঞ্চল ভিত্তিক পাঠিয়েছিল। তারা দিনাজপুর শহরের ১টি বাড়ি মাসিক ২ হাজার ১শ’ টাকায় ভাড়া নিয়ে প্রায় ১৫ দিন ধরে অবস্থান করেছিল। তাদের সহযোগীদের সম্ভাব্য ঠিকানা ও নাম জবানবন্দীতে তারা প্রকাশ করেছে। তারা জানায়, সংগঠনের অর্থ সংগ্রহের জন্যই এই ডাকাতি সংঘটিত করেছিল।