২৪ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

গোবিন্দগঞ্জে উত্তেজনা, সংঘর্ষ, নির্বাচন বর্জন,

নিজস্ব সংবাদদাতা, গাইবান্ধা, ॥ গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচনে প্রার্থীদের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ, মেয়র প্রার্থীর হামলা এবং জাপা প্রার্থীর নির্বাচন বর্জনের মধ্য দিয়ে গোবিন্দগঞ্জ পৌরসভার ভোট গ্রহণ কার্যক্রম চলছে। শামীম এন্ড শাকিল কারিগরি কলেজ কেন্দ্রে দু’কাউন্সিলর সমর্থদের সংঘর্ষ আহত ৫ জন আহত হয়েছে। আহতরা হলো- নজরুল, পারভেজ, সাদ্দাম, করিম ও মানিক। আহতদের গোবিন্দগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ভোট কেন্দ্রের ভিতরে মাসুদ রানা ও শহিদুল ইসলাম নামের দু’কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের মাঝে সংঘর্ষ বাধলে আতংক ছড়িয়ে পড়ে। এসময় সাধারন ভোটারেরা আতংকিত হয়ে ভোট কেন্দ্র ত্যাগ করে। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। কয়েক মিনিট ভোট বন্ধ থাকার পর পুনরায় ভোট শুরু হয়।

এছাড়া গোবিন্দগঞ্জ মহিমাগঞ্জ ডিগ্রী কলেজ কেন্দ্রে ৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী শাহীন আকন্দ ও জাকিরুল ইসলাম সাজুর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ ঘটলে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ৬ রাউণ্ড ফাঁকা গুলি করে। অপরদিকে ওয়ার্কার্স পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা আমিনুল ইসলাম গোলাপ অভিযোগ করেছেন আব্দুল মতিন মোল্লার উপর আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সমর্থকরা লাঞ্ছিত করে জোরপূর্বক তাকে মহিলা কলেজ কেন্দ্র থেকে বের করে দেয়। পুলিশ এসময় আওয়ামী লীগ সমর্থকদের পক্ষে অবস্থান নেয় বলে অভিযোগ করা হয়। অভিযোগ জাতীয় পার্টির মেয়র প্রার্থী আখতার হোসেন জুয়েল নির্বাচনে হামলার সংঘর্ষ ও ভোট কারচুপির অভিযোগ এনে নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেন।

অপরদিকে গাইবান্ধা পৌর নির্বাচনে উত্তরপাড়া ১নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ব্যালট পেপার ও বাক্স ছিনতাই করার চেষ্টা নেয়া হলে নির্বাচন কর্তৃপক্ষ ভোট গ্রহণ দুপুর পৌনে ২টা থেকে সোয়া ২টা পর্যন্ত আধা ঘন্টা বন্ধ থাকে। পরে স্টাইকিং ফোর্সসহ বিজিবি ও অতিরিক্ত পুলিশ ডেভিড কোম্পানীপাড়া উত্তরপাড়া ১নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আবারও ভোট গ্রহণ শুরু করে।