১০ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পুঁজিবাজারে সূচক বাড়লেও লেনদেন কমেছে

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) বুধবার সূচকের উত্থানে লেনদেন শেষ হয়েছে। একইসঙ্গে সেখানকার শরীয়াহ সূচকটিও কিছুটা বেড়েছে। তবে বাকি ব্লু চিপস নামে পরিচিত ডিএসই-৩০ সূচকটি কমেছে। অর্থাৎ সেখানে সূচকের মিশ্র প্রবণতায় লেনদেন শেষ হয়েছে। তবে অপর বাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) লেনদেন হয়েছে উর্ধ্বমুখী প্রবণতায়। এদিন দুই বাজারেই কমেছে লেনদেনের পরিমাণ। ডিসেম্বর মাসের ক্লোজিংয়ের ঠিক এক কার্যদিবস আগে শেয়ার বিক্রির চাপ কমে যাওয়ায় সূচকে ইতিবাচক প্রভাব দেখা গেছে। তবে শেয়ারের ক্রেতাও আগের তুলনায় কিছুটা কম ছিল।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা গেছে, বুধবার ডিএসইতে ৩৬৭ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে; যা আগের দিনের তুলনায় ২২ কোটি ৯২ লাখ টাকা বা ৫ দশমিক ৮৭ শতাংশ কম লেনদেন। আগের দিন এ বাজারে ৩৯০ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেয় ৩১৬টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ড। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১৪৭টির, কমেছে ১২২টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৪৭ টির শেয়ার দর।

সকালে ইতিবাচক প্রবণতা দিয়ে লেনদেন শুরুর পরে ডিএসইএক্স বা প্রধান মূল্য সূচক ৮ পয়েন্ট বেড়ে ৪ হাজার ৬০৪ পয়েন্টে অবস্থান করছে। ডিএসইএস বা শরীয়াহ সূচক ২ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে এক হাজার ১০৪ পয়েন্টে। ডিএস৩০ সূচক দশমিক ৭৭ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৭৪১ পয়েন্টে।

ডিএসইতে লেনদেনের শীর্ষে থাকা দশ কোম্পানি হচ্ছে- সিঙ্গার বিডি, কাশেম ড্রাইসেলস, বেক্সিমকো ফার্মা, বেক্সিমকো, বিএসআরএম স্টিলস, বাংলাদেশ স্টিল রি-রোলিং মিলস, এসিআই লিমিটেড, স্কয়ার ফার্মা, ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড এবং এমারেল্ড অয়েল।

বুধবার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) ২০ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এদিন সিএসই সার্বিক সূচক ৪ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৪ হাজার ৩৩ পয়েন্টে। সিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ২৩৬ টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের শেয়ার। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১০০টি কোম্পানির, দর কমেছে ৯৮টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৮টি কোম্পানির।

সিএসইর লেনদেনের সেরা কোম্পানিগুলো হলো : বে´িমকো, সিঙ্গার বাংলাদেশ, রিজেন্ট টেক্সটাইল, ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন অ্যান্ড ডিস্টিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড, বিএসআরএম লিমিটেড, লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট, সিমটেক্স, বিএসআরএম স্টিল, বারাকা পাওয়ার ও মিথুন নিটিং।