১১ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আদালতও উন্মুক্ত করল আমিরের ফেরার পথ

স্পোর্টস রিপোর্টার॥ বর্তমানে পাকিস্তান ক্রিকেটের অন্যতম আলোচ্য বিষয় পেসার মোহাম্মদ আমিরের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরা। এই ইস্যুতে পাকিস্তানের ক্রিকেটাঙ্গন হয়ে গেছে দ্বিধাবিভক্ত। বিশেষ করে সম্প্রতি ২৬ ক্রিকেটার নিয়ে ডাকা ফিটনেস ক্যাম্পে আমিরকে রাখার পরই বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে। এমনকি অধিনায়ক আজহার আলী ও অভিজ্ঞ ওপেনার মোহাম্মদ হাফিজ ক্যাম্প বয়কটও করে। স্পট ফিক্সিং কলঙ্কে ২০১০ সালে ইংল্যান্ড সফরে তিনি অভিযুক্ত হন এবং সেজন্য ৫ বছর আন্তর্জাতিক ও সব ধরণের ক্রিকেট থেকে নির্বাসিতও ছিলেন। সেই নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে আসার কারণেই আমিরকে অনেকে মানতে পারছেন না। যদিও পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি) তাঁকে ফেরানোর পক্ষে। কিন্তু আমিরকে জাতীয় দলের ক্যাম্পে ডাকার বিরুদ্ধে আদালতে রিটও করা হয়েছিল। মঙ্গলবার সেই আদালত রিট খারিজ করে দিয়েছে। ফলে আমিরের ফেরার পথে আইনগত কোন বাঁধাও থাকলো না আর।

স্পট ফিক্সিংয়ে যুক্ত হওয়ার কারণে ক্ষমা প্রার্থনা করা ছাড়াও পূনর্বাসন প্রক্রিয়ার অধীনে বিভিন্ন সচেতনতামূলক কার্যক্রমে অংশ নিয়েছেন আমির। সে কারণে তাঁর ওপর সন্তুষ্ট পিসিবি। আর ৫ বছরের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরার পথ উন্মুক্ত হওয়া আমির ঘরোয়া ক্রিকেটে নিজের যোগ্যতা ও সামর্থ্যও প্রমাণ করেছেন। সে কারণে তিনি দ্রুতই জাতীয় দলে ফিরবেন এমনটাই ধারণা করা হচ্ছে। কিন্তু প্রথমবার জাতীয় দলের ক্যাম্পে ডাক পেয়েই বিতর্ক জন্ম দিয়েছেন আমির। কেউ তাঁকে আবারও ফিরে চায়, আবার কেউ তাঁকে না ফেরানোর পক্ষে। আর বর্তমান জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের মধ্যে আজহার-হাফিজ তো পুরোপুরিই আমিরকে মেনে নিতে পারছেন না। এ কারণে দলের ফিটনেস ক্যাম্প বয়কটও করেছেন দু’জন। যদিও পিসিবির চেয়ারম্যান শাহরিয়ার খান এ দুই ক্রিকেটারের সঙ্গে কথা বলে রাজি করিয়েছেন পুনরায় ক্যাম্পে যোগ দেয়ার এবং আজহার-হাফিজও সম্মত হয়েছেন। আর কিংবদন্তি পাক পেসার ইমরান খান ও ওয়াসিম আকরাম দু’জনই আমিরকে ফেরানোর পক্ষে।

কিন্তু মুনসিফ আওয়ান লাহোরের এক আইনজীবি লাহোরের উচ্চ আদালতে আমিরকে দলে নেয়ার বিষয়টি স্থগিত করার জন্য রিট করেন। মঙ্গলবার সেই রিট খারিজ করে দিয়েছে আদালত। বিচারক শহীদ বিল্লাল হাসানের বেঞ্চে এই রিট খারিজ করা হয়। পিসিবির আইন উপদেষ্টা তফাজুল রিজভি এমনটাই জানিয়েছেন। এ বিষয়ে তিনি বলেন,‘আমি পিসিবির পক্ষে মামলাটি লড়েছি। আমাদের মতামত হচ্ছে আমির ইতোমধ্যেই তাঁর নিষেধাজ্ঞা কাটিয়েছেন এবং দেশের সংবিধান অনুসারে তাঁর অবশ্যই সার্বিক অধিকার আছে ক্রিকেট খেলার। পক্ষ-বিপক্ষের যুক্তি-তর্ক শোনার পর বিচারক আইনজীবি মুনসিফ আওয়ানের করা রিট খারিজ করে দিয়েছেন।’ আগামী মাসে পাকিস্তান দলের নিউজিল্যান্ড সফর উপলক্ষে ডাকা ক্যাম্পে আমির জায়গা করে নিয়েছেন। তিন ওয়ানডে ও তিন টি২০ ম্যাচের সিরিজের জন্য জ্জ দিনের মধ্যেই চূড়ান্ত দল ঘোষণা করবে পিসিবি। রিজভি বলেন,‘আমরা আদালতকে জানিয়েছি আমির খেলার সুযোগ পেলে আইসিসি ও পিসিবির তীক্ষè নজরদারির মধ্যে থেকেই খেলবেন