১৫ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মাধবদী পৌরসভা ও অন্য ৩৩ কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত

জনকণ্ঠ রিপোর্ট ॥ সারাদেশের একটি পৌরসভা এবং বিভিন্ন পৌরসভার ৩৩টি কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে। হট্টগোলের অভিযোগে নরসিংদীর মাধবদী পৌরসভার ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়। বুধবার সারাদেশে তিন হাজার ৫৫৮ ভোট কেন্দ্রে ভোট অনুষ্ঠিত হয়। আমাদের স্টাফ রিপোর্টার, নিজস্ব সংবাদদাতা ও সংবাদদাতাদের পাঠানো খবর- নরসিংদী ॥ মাধবদী পৌরসভা নির্বাচনে একটি কেন্দ্র দখল করে ব্যালটে সিল মারার ঘটনায় ভোটগ্রহণ স্থগিতের পর জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের উপস্থিতিতে হামলা ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এরপর ওই পৌরসভার ভোট স্থগিত করে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। বুধবার সকাল ১০টার দিকে মাধবদী পৌরসভার ফজলুল করিম কিন্ডারগার্টেন স্কুল কেন্দ্রে এ ঘটনায় সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা নজরুল ইসলামসহ বেশ কয়েকজন আহত হন।

নোয়াখালী ॥ নোয়াখালীতে বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনার মধ্য দিয়ে চার পৌরসভা চাটখিল, হাতিয়া, বেগমগঞ্জ উপজেলার চৌমুহনী ও কোম্পানীগঞ্জের বসুরহাটের নির্বাচন শেষ হয়েছে। চৌমুহনীতে বিভিন্ন কেন্দ্রে কাউন্সিলর প্রার্থীদের ধাওয়া পাল্টাধাওয়া, ককটেল বিস্ফোরণ ও ভোট কেন্দ্র দখলের চেষ্টাকে কেন্দ্র করে দুপুর ২টার মধ্যেই ১০টি কেন্দ্র স্থগিত ঘোষণা করে রিটার্নিং কর্মকর্তা।

চৌমুহনীর স্থগিতকৃত কেন্দ্রগুলো হচ্ছে- উত্তর নাজিরপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, উত্তর নাজিরপুর নূরানী মাদ্রাসা, দক্ষিণ নাজিরপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, মধ্য করিমপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় (উত্তর পার্শ্বের ভবন), মধ্য করিমপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় (পূর্ব পার্শ্বের ভবন), গণিপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, বেগমগঞ্জ সরকারী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়, চৌমুহনী সরকারী এসএ কলেজ (নতুন ভবন), চৌমুহনী সরকারী এসএ কলেজ (পুরাতন ভবন) ও উত্তর হাজীপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র। এ পৌরসভায় মোট ভোট কেন্দ্র ছিল ২০টি, যার প্রত্যেকটিকে প্রশাসন ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে।

অন্যদিকে চৌমুহনী পৌরসভার মধ্যম করিমপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বহিরাগতরা আহম্মদ আলী নামের এক সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তাকে মারধর করে। এতে তার মাথা ফেটে যায়। বর্তমানে তিনি চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এছাড়া আরও কয়েকটি কেন্দ্রে ধাওয়া পাল্টাধাওয়া ও ককটেল বিস্ফোরণ ঘটে। এতে অন্তত ৫ জন আহত হন।

রিটার্নিং অফিসার ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোঃ মনির হোসেন চৌমুহনীতে ১০টি কেন্দ্র স্থগিতের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, বহিরাগতরা কেন্দ্রগুলোতে প্রবেশ করে ব্যালট পেপার ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে। এতে কেন্দ্রের ভোটগ্রহণের পরিস্থিতি ও আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেলে কেন্দ্রগুলো স্থগিত করা হয়। এছাড়া বাইরে কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটেছে বলে তিনি জানান।

চট্টগ্রামের চন্দনাইশে তিন কেন্দ্রে ভোট স্থগিত ॥ চন্দনাইশ পৌরসভায় জাল ভোট ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির অভিযোগে উত্তর গাছবাড়িয়া বদুরপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, আসলাতুন ফোরকানিয়া মাদ্রাসা, গাছবাড়িয়া নিত্যানন্দ গৌরচন্দ উচ্চ বিদ্যালয়সহ তিনটি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে। এদিকে সকাল থেকে পটিয়া পৌরসভায় শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ চললেও দুপুরে আবদুর রহমান সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, আবদুস সোবহান রাহাত আলী উচ্চ বিদ্যালয়, পশ্চিম পটিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও পাইকপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে জাল ভোট নেয়ার অভিযোগে চরম উত্তেজনা দেখা দেয়। পরবর্তীতে সহকারী পুলিশ সুপার (পটিয়া সার্কেল) মোহাম্মদ শামীম হোসেন ও বিজিবির একটি বিশেষ টিম সেখানে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

নড়াইল ॥ নড়াইলের কালিয়া পৌর এলাকার পূর্ব কালিয়া মডেল স্কুলের একটি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে বলে জানান রিটার্নিং কর্মকর্তা শেখ আনোয়ার হোসেন। এছাড়াও অনিয়মের অভিযোগে কালিয়া পাইলট স্কুলের ভোটগ্রহণ সাময়িক স্থগিত ছিল।

ঠাকুরগাঁও ॥ ঠাকুরগাঁওয়ে তিনটি কেন্দ্রের ফলাফল স্থগিত করেছে রিটার্নিং অফিসার। কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার ফলাফল স্থগিত করে ব্যালট পেপার ও মালামাল রিটার্নিং অফিসারের কাছে জমা করেছেন। কেন্দ্রগুলো হচ্ছে- ঠাকুরগাঁও পৌরসভার পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট, গোবিন্দনগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও সরকারী মহিলা কলেজের পুরুষ কেন্দ্র।

কুড়িগ্রাম ॥ কুড়িগ্রাম জেলার উলিপুর পৌরসভা নির্বাচনে ব্যালট পেপার ছিনতাই ও সংঘর্ষের ঘটনায় নারিকেলবাড়ী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও মদিনাতুল উলুম দাখিল মাদ্রাসা কেন্দ্রে স্থগিত ঘোষণা করেছেন রিটার্নিং অফিসার। উলিপুর পৌরসভা নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা দেলোয়ার হোসেন বলেন, দুপুর ১টার দিকে নারিকেলবাড়ী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে কাউন্সিলর প্রার্থী কয়সার (উটপাখি মার্কা) ও নুর ইসলামের (আপেল মার্কা) সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ বাধলে ৫ জন আহত হন। বিকেল ৪টার দিকে নারিকেলবাড়ী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র এলাকায় আবারও সংঘর্ষ বাধলে পুলিশ ২ রাউন্ড রাবারবুলেট নিক্ষেপ করে।

নীলফামারী ॥ নীলফামারীর সৈয়দপুর পৌরসভায় ৩২টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ৪টি কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত রেখেই ভোটগ্রহণ সম্পন্ন করা হয়। বুধবার সকাল আটটা থেকেই সুষ্ঠু পরিবেশে ভোটগ্রহণ চলছিল। দুপুর পৌনে একটার দিকে সৈয়দপুরের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের বিএনপি সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী জোবায়দুর রহমান মিন্টুর ছোটভাই ফয়জুর রহমান নান্টু (৩৫) একদল সন্ত্রাসী নিয়ে গিয়ে ফ্রি আমিন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভোটকেন্দ্রে হামলা চালিয়ে ব্যালটবাক্স ছিনতাইয়ের চেষ্টা চালায়। এ সময় নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা পুলিশ ২৪ রাউন্ড রাবারবুলেট ছুড়লে ফয়জুর রহমান নান্টু গুলিবিদ্ধ হন। এছাড়াও প্রতিপক্ষ প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা ভোট কেন্দ্র দখল ও ব্যালটে সিল মারার চেষ্টা করায় প্রশাসন অপর তিনটি ভোট কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত করে দেয়। স্থগিত ভোট কেন্দ্রগুলো হলো- দুই নম্বর ওয়ার্ডের গোলাহাট রেলওয়ে কলোনি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৩ নম্বর ওয়ার্ডের মুসলিম উচ্চ বিদ্যালয় ও ৪ নম্বর ওয়ার্ডের নয়াটোলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়।

এছাড়া মাদারীপুরের কালকিনিতে ২টি, কুমিল্লার বরুড়ায় একটি, ময়মনসিংহের ভালুকা, বরগুনা, চাঁদপুর, ফরিদগঞ্জ, পটুয়াখালীর কুয়াকাটায় একটি করে কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়।