১৫ নভেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

২৩ মেয়র প্রার্থীর নির্বাচন বর্জন

জনকণ্ঠ রিপোর্ট ॥ সারাদেশে ২৩ মেয়র প্রার্থী নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন। একই সঙ্গে তিন কাউন্সিলর এবং একজন সংরক্ষিত নারী আসনের প্রার্থী নির্বাচন থেকে সরে আসার ঘোষণা দিয়েছেন। দেশের ২৩৪ পৌরসভার মধ্যে বিভিন্ন প্রার্থীর ভোট বর্জনের ঘটনা ঘটেছে ১৫ পৌরসভায়। খবর স্টাফ রিপোর্টার, নিজস্ব সংবাদদাতা ও সংবাদদাতাদের।

চট্টগ্রাম ॥ চট্টগ্রামের ১০ পৌরসভার মধ্যে ৩ পৌরসভায় বিএনপির মেয়র প্রার্থীরা নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াবার ঘোষণা দেন। বুধবার ভোট গ্রহণের প্রথম প্রহরেই রাঙ্গুনিয়া, রাউজান ও সন্দ্বীপ পৌরসভায় বিএনপি মনোনীত প্রার্থীরা ভোট থেকে সরে দাঁড়ান। রাঙ্গুনিয়ায় ধানের শীষ প্রতীকের বিএনপি প্রার্থী হেলালউদ্দিন খান আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে একতরফা জাল ভোট ও কেন্দ্র থেকে তার পোলিং এজেন্টদের বের করে দেয়ার অভিযোগ আনেন।

সন্দ্বীপ পৌরসভায় বিএনপির মেয়র প্রার্থী আজমত উল্লাহ বাহাদুর বেলা ১১টার দিকে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াবার ঘোষণা দেন।

রাউজান পৌরসভায়ও বিএনপির মেয়র প্রার্থী আবদুল্লাহ আল হাসান ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন।

ভৈরব ॥ বিএনপি অনিয়ম, প্রার্থীকে লাঞ্ছিত করে কেন্দ্র থেকে বের করে দেয়াসহ ৩৫টি কেন্দ্র থেকে বিএনপির এজেন্টদের জোর করে বের করে দিয়ে কেন্দ্রের দখল নিয়ে নৌকায় সিল মারার অভিযোগ করে নির্বাচন বয়কটের ঘোষণা দেন বিএনপি দলীয় প্রার্থী হাজী মোঃ শাহিন।

শরীয়তপুর ॥ শরীয়তপুর পৌরসভার বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী সরাদার একেএম নাসির উদ্দীন কালু সব কয়টি ভোট কেন্দ্র থেকে তার নির্বাচনী এজেন্টদের মারধর করে বের করে দিয়েছে বলে অভিযোগ এনে নির্বাচন বয়কট করেছেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া ॥ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া পৌরসভা নির্বাচনে সরকার দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে ভোট কারচুপি ও ভোটকেন্দ্র থেকে এজেন্টদের বের করে দেয়াসহ অনিয়মের অভিযোগ এনে ৩ মেয়র প্রার্থী নির্বাচন বর্জন করেছেন। এরা হলেনÑ বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী হাজী মোঃ মন্তাজ মিয়া, স্বতন্ত্র প্রার্থী মশিউর রহমান বাবুল ও স্বতন্ত্র প্রার্থী এ্যাডভোকেট সোহেল ভূঁইয়া।

ভালুকা ॥ বিএনপির মনোনীত মেয়র প্রার্থী আলহাজ হাতেম খান নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেন এবং পুনঃনির্বাচনের দাবি জানিয়ে নির্বাচন কমিশন বরাবর লিখিতভাবে অভিযোগ করেন।

রায়পুর ॥ জাল ভোট ও কারচুপির অভিযোগ এনে নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন বিএনপির মেয়র প্রার্থী এবিএম জিলানী।

নড়াইল ॥ অনিয়ম ও ভোট কারচুপির অভিযোগ এনে নড়াইল পৌর নির্বাচনে আ’লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী এ্যাডভোকেট সোহরাব হোসেন বিশ্বাস নির্বাচন বর্জন করেছেন।

গাইবান্ধা ॥ ভোটে অনিয়মের অভিযোগ জাতীয় পার্টির মেয়র প্রার্থী আখতার হোসেন জুয়েল নির্বাচনে হামলার সংঘর্ষ ও ভোট কারচুপির অভিযোগ এনে নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেন।

ভোলা ॥ ভোলা পৌরসভার নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলন বাংলাদেশের মেয়র প্রার্থী মাওলানা আতাউর রহমান মোমতাজি।

ঝিনাইদহ ॥ হরিণাকু- পৌরসভা বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী জিন্নাতুল হকের ভোট বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন।

কিশোরগঞ্জ ॥ বাজিতপুর পৌরসভায় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী শওকত আকবর ও ভৈরবে বিএনপি দলীয় প্রার্থী বর্তমান মেয়র হাজী মোঃ শাহীন ভোট জালিয়াতি, কেন্দ্র দখলের অভিযোগ এনে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন।

মাগুরা ॥ নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী বর্তমান মেয়র ইকবাল আখতার খান ভোট কারচুপি অভিযোগ করে ভোট বর্জন করেছেন।

শাহজাদপুর ॥ আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ভিপি আবদুর রহিম ও বিএনপির প্রার্থী বর্তমান মেয়র নজরুল ইসলাম নির্বাচন প্রত্যাখানের ঘোষণা দেন।

নরসিংদী ॥ আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী আর বিএনপির প্রার্থীর বর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে পৌর ভোট। বুধবার দুপুরের পর থেকেই এ দুই প্রার্থী সরকার দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ করতে থাকেন।

কুষ্টিয়া ॥ ভোট কারচুপির অভিযোগ এনে এক মেয়র প্রার্থী দুপুরে ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন। ভোট কারচুপির অভিযোগ এনে কুমারখালী পৌরসভার স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী জাকারিয়া জেমস বুধবার দুপুরে ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন।