২১ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

লিয়াকত ও আমিনুলের বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ ১৪ মার্চ

  • যুদ্ধাপরাধী বিচার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে পলাতক সাবেক মুসলিম লীগ নেতা হবিগঞ্জ জেলার লাখাই উপজেলার মোঃ লিয়াকত আলী (৬১) ও কিশোরগঞ্জ জেলার অষ্টগ্রাম উপজেলার আমিনুল ইসলাম (৬২) ওরফে রজব আলীর বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ (ফরমাল চার্জ) ১৪ মার্চ দাখিল করার নির্দেশ দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল। অন্যদিকে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে গ্রেফতারকৃত কক্সবাজারের সালামত উল্লাহ খানের (৭৭) জামিন আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। চেয়ারম্যান বিচারপতি আনোয়ারুল হকের নেতৃত্বে তিন সদস্যবিশিষ্ট আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ বুধবার এ আদেশগুলো প্রদান করেছেন।

হবিগঞ্জ জেলার লাখাই উপজেলার মোঃ লিয়াকত আলী (৬১) ও কিশোরগঞ্জ জেলার অষ্টগ্রাম উপজেলার আমিনুল ইসলাম (৬২) ওরফে রজব আলীর বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ (ফরমাল চার্জ) ১৪ মার্চ দাখিল করার জন্য দিন নির্ধারণ করা হয়েছে। চেয়ারম্যান বিচারপতি মোঃ আনোয়ারুল হকের নেতৃত্বে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ বুধবার এ আদেশ প্রদান করেছেন। বুধবার ট্রাইব্যুনালে প্রসিকিউশন পক্ষে শুনানি করেন প্রসিকিউটর রানা দাসগুপ্ত। এদিন আদালতে প্রসিকিউটর রানা দাসগুপ্ত মামলার আনুষ্ঠানিক অভিযোগ (ফরমাল চার্জ) দাখিলের জন্য দুই মাস (৬০ দিন) সময় আবেদন করেন। ওই আবেদন শুনানি করে এই দিন নির্ধারণ করে আদেশ দেন আদালত। এর আগে গত ২৭ ডিসেম্বর মামলার তদন্ত শেষ করার পর তা চূড়ান্তভাবে প্রস্তুত করেন সংস্থা। বর্তমানে হবিগঞ্জ জেলার লাখাই উপজেলার এক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি মোঃ লিয়াকত আলী আমেরিকায় এবং রজব আলী দেশেই পলাতক। তারা দুজনে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে পাশাপাশি তিন জেলার (হবিগঞ্জ জেলার লাখাই, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর ও কিশোরগঞ্জের অষ্টগ্রামে) বিভিন্ন অপরাধ করেছেন। তদন্তে দুই জনের বিরুদ্ধে হত্যা, গণহত্যা, আটক, অপহরণ, নির্যাতন ও লুটপাটের সাতটি মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ আনা হয়েছে।

সালামত উল্লাহর জামিন খারিজ ॥ মহেশখালীর সালামত উল্লাহর জামিন হয়নি। বুধবার ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি মোঃ আনোয়ারুল হকের নেতৃত্বে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ এই আদেশ দেন। আদালতে জামিন আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন এ্যাডভোকেট আব্দুস সাত্তার পালোয়ান। অপরদিকে আসামিদের জামিন আবেদনের বিরোধিতা করেন প্রসিকিউটর রানা দাশগুপ্ত, তার সঙ্গে ছিলেন প্রসিকিউটর রেজিয়া পারভীন চমন। তবে আজ শুধু জামিন সংক্রান্ত আবেদন নিষ্পত্তি করার জন্য দিন নির্ধারণ থাকায় আদালতে কোন আসামিকে হাজির করা হয়নি।