২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

স্বাগত ২০১৬

মহাকালের গর্ভে বিলীন হয়ে গেল আরও একটি বছর। বর্ষপরিক্রমায় যুক্ত হলো আরেকটি পালক। নতুন একটি বর্ষে পদার্পণ করল। শান্তি, সমৃদ্ধি ও সম্ভাবনার অপার বারতা নিয়ে শুরু হলো নতুন বছর। স্বাগত খ্রিস্টীয় নববর্ষ ২০১৬। পুরনো বছরটিকে পেছনে ফেলে সম্মুখপানে এগিয়ে যাওয়ার দুরন্ত আহ্বানে মানুষ স্বাগত জানায় অনাগত ভবিষ্যতকে। বিদায়ী বছরের ব্যর্থতাকে সরিয়ে রেখে নতুন বছরে নতুনভাবে শুরু হলো পথচলা। সাফল্য-ব্যর্থতার হিসাব পেছনে রেখে সামনে এগিয়ে যাবার দিন হলো শুরু। পুরাতন বছরের সংশয়, সঙ্কট, উদ্বেগ কাটিয়ে উঠে নতুন ভাবনার আশায় নতুন করে দিনযাপন শুরু আজ থেকে। বিশ্ববাসী প্রবেশ করল একুশ শতকের আরও এক বছরে। স্বাধীনতার ৪৪টি বছর পূর্ণ করে বাংলাদেশও পা ফেলল ৪৫তম বছরে। নতুন বছর মানে নবযাত্রা। নতুন আশা এবং নতুন করে পুরনো সমস্যা মোকাবেলা করে সবাইকে এগিয়ে যাবার দিনের যাত্রা হলো শুরু। খ্রিস্টীয় নতুন বছরের প্রথম প্রভাতে আমাদের অগণিত পাঠক, লেখক, এজেন্ট, বিজ্ঞাপনদাতা ও শুভানুধ্যায়ীর প্রতি শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। নতুন বছর সবার জীবনে শুভ হয়ে দেখা দেবে- এটাই কাম্য।

বাংলাদেশে গ্রেগরিয়ান নববর্ষ পালনের রেওয়াজ ব্রিটিশ শাসনামল থেকে অনুসৃত হয়ে আসছে বলা যায়। সম্প্রতি তা পরিসরে বেড়েছে। ইংরেজী নববর্ষ হিসেবে বাঙালীর কাছে পরিচিত দিবসটি পালনের ধরন সারা পৃথিবীতে একই রকম। পশ্চিমা বিশ্বে এর আনন্দচ্ছটা একটু বেশি। পশ্চিমাদের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বাঙালীও নতুন আনন্দে মেতে ওঠে। বহু মানুষ এদিন শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। শুভেচ্ছা কার্ড, এসএমএস, ফেসবুক, টুইটার, এ্যাপস এবং ই-মেইলে হাজার হাজার শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন বার্তা ছড়িয়ে পড়ে। পুরনো বছর যেমনই কাটুক নতুন বছর যেন ভাল কাটে সেই কামনা থাকে সবার মধ্যে।

নতুন বছরে, নতুন করে আশায় বুক বেঁধেছে বাংলাদেশ। স্বপ্ন দেখে শান্তি, স্বস্তি, কল্যাণ ও সমৃদ্ধির। বাংলাদেশ প্রত্যাশা করে জঙ্গী ও সন্ত্রাসবাদমুক্ত সমাজ, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ও শাস্তি হবে, বিনাশ হবে অগণতান্ত্রিক অপশক্তি, জঙ্গীবাদ, ধর্মান্ধতা, সাম্প্রদায়িকতা ও অপরাজনীতি। দেশবাসী প্রত্যাশা করে সমঝোতার সংস্কৃতি রচনায় রাজনৈতিক দলগুলো অগ্রসর হবে। জ্বালাও পোড়াও ধ্বংসের হাত থেকে দেশকে মুক্ত রাখবে। জীবনের নিরাপত্তা, সহনীয় দ্রব্যমূল্য এবং রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার জন্য সবাই মিলে কাজ করাÑ এই হোক নববর্ষের প্রত্যয়। দেশকে শান্তি ও সমৃদ্ধির পথে নিয়ে যেতে আইনের শাসনের ভিত আরও মজবুত হোক। বাংলাদেশ নিম্ন মধ্য আয়ের দেশ থেকে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হওয়ার ক্ষেত্রগুলো হোক আরও সম্প্রসারিত। বাড়ুক গড় আয়ু। শিক্ষা-দীক্ষার ঘটুক আরও বিস্তার, যেন কোন মানুষ আর থাকতে না পারে নিরক্ষর। মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতাকে নিয়ে যেন আর কেউ কটাক্ষ করতে না পারে, স্বাধীনতার মূল্যবোধ থাকুক অক্ষুণ্ন।

নববর্ষের এই শুভলগ্নে সারাবিশ্বের মানুষ সমবেত আনন্দ আয়োজনে উৎফুল্ল মন নিয়ে নানা অনুষ্ঠানের মাধ্যমে স্বাগত জানায় নববর্ষকে। প্রার্থনা করে সকল বাধা-বিঘœ কেটে গিয়ে পৃথিবীতে উদিত হবে নতুন সূর্য। বাংলাদেশ নতুন আশায় বাঁধবে বুক। এগিয়ে যাবে উন্নতি ও সমৃদ্ধির পথে- এ আশাতেই পথপরিক্রমার হোক শুরু। শান্তি, সম্প্রীতি, সৌহার্দ্য আর দেশের প্রতি অগাধ ভালবাসায় নতুন এক বাংলাদেশ গড়ে তোলা হোক নতুন বছরের অঙ্গীকার। ২০১৬ সালে উন্মোচিত হোক সম্ভাবনার নতুন দিগন্ত। স্বাগত ২০১৬।