১৪ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সূচকের উত্থানে পুঁজিবাজারে বছর শেষ

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ সূচকের উত্থান দিয়ে দেশের পুঁজিবাজার ২০১৫ সালটি পার করল। সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস বৃহস্পতিবারে উভয় বাজারেই দরবৃৃদ্ধি দিয়ে লেনদেন শেষ হয়েছে। বেশিরভাগ কোম্পানির দর কমলেও মূলত বড় মূলধনী শেয়ারের দরবৃদ্ধি দিনটিতে সূচকের বৃদ্ধিতে বড় ভূমিকা রেখেছে। সূচকের ইতিবাচক প্রবণতা দিনে উভয় বাজারেই বিনিয়োগকারীদের অংশগ্রহণ বেড়েছে।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা গেছে, সকালে সূচকের ইতিবাচক প্রবণতায় লেনদেন শুরুর পরে বৃহস্পতিবার ডিএসইতে ৪৩৪ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে; যা আগের দিনের তুলনায় ৬৭ কোটি টাকা বা ১৮ শতাংশ বেশি লেনদেন। আগের দিন এ বাজারে ৩৬৭ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেয় ৩২৪টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ড। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১৩৩টির, কমেছে ১৪১টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৫০টির শেয়ার দর।

ডিএসইএক্স বা প্রধান মূল্য সূচক ২৪ পয়েন্ট বেড়ে ৪ হাজার ৬২৯ পয়েন্টে অবস্থান করছে। ডিএসইএস বা শরীয়াহ সূচক ২ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে এক হাজার ১০৭ পয়েন্টে। ডিএস৩০ সূচক ৮ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৭৫০ পয়েন্টে।

আইডিএলসি ইনভেস্টমেন্টের বাজার প্রতিদিনের বাজার পর্যালোচনায় বলা হয়েছে, বছরের শেষ দিনের লেনদেনে সূচকের উর্ধগতি নতুন বছরের লেনদেনে ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে বলে মনে হচ্ছে। সারাদিনে সূচকের ব্যাপক ওঠানামা থাকলেও দিন শেষে ঢাকা স্টক একচেঞ্জের প্রধান সূচকটি আগের দিনের চেয়ে মোট ২৪ দশমিক ৭০ পয়েন্ট বেড়েছে। বেশির ভাগ কোম্পানির দর কমলেও বিনিয়োগকারীদের অংশগ্রহণ বাড়ার কারণে সার্বিক লেনদেন আগের দিনের চেয়ে ১৮ দশমিক ৩০ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়ায় ৪৩০ কোটি টাকায়। দিনটিতে আগের দিনের চেয়ে মোট ৬ দশমিক ২০ শতাংশ দর বেড়ে এ্যামারেল্ড অয়েল নামের কোম্পানিটি সার্বিক লেনদেনের শীর্ষ স্থান দখল করেছে। একইভাবে সামিট পোর্ট এ্যালায়েন্সের দর বেড়েছে ৪ দশমিক ৯০ শতাংশ। খাতভিত্তিক লেনদেনের ক্ষেত্রে খাদ্য ও আনুষঙ্গিক খাতটি মোট ৪ দশমিক ২০ শতাংশ দর বেড়ে শীর্ষ স্থান দখল করেছে।

ডিএসইতে লেনদেনের শীর্ষে থাকা দশ কোম্পানি হলো- এ্যামারেল্ড অয়েল, সামিট এ্যালায়েন্স পোর্ট, স্কয়ার ফার্মা, কাসেম ড্রাইসেলস, অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ, বেক্সিমকো ফার্মা, এসিআই লিমিটেড, বেক্সিমকো, বাংলাদেশ স্টিল রি-রোলিং মিলস এবং এসিআই ফরমুলেশনস।

দরবৃদ্ধির সেরা কোম্পানিগুলো হলো- এ্যামারেল্ড অয়েল, এসআইবিএল, আইসিবি ১ম এনআরবি, মিরাকল ইন্ড্রাস্টিজ, প্রাইম ইন্স্যুরেন্স, সামিট পোর্ট এ্যালায়েন্স, উসমানিয়া গ্লাস, ব্রিটিশ আমেরিকান ট্যোবাকো লিমিটেড, ন্যাশনাল টি ও মতিন স্পিনিং।

দর হারানোর সেরা কোম্পানিগুলো হলো- কেয়া কসমেটিকস, রহিমা ফুড, প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্স, ওয়েস্টার্ন মেরিন শিপইয়ার্ড, মডার্ন ডাইং, এ্যাপেক্স স্পিনিং, আইসিবি সোনালী, কন্টিনেন্টাল ইন্স্যুরেন্স, আনোয়ার গ্যালভানাইজিং ও এএমসিল (প্রাণ)।

বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) ২২ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এদিন সিএসই সার্বিক সূচক ৫৮ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৪ হাজার ৮৯ পয়েন্টে। সিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ২২৮টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের শেয়ার। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৯০টি কোম্পানির, দর কমেছে ১০৮টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩০টি কোম্পানির।