১৯ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

২০১৬ সালে আরও শিরোপাস্বপ্ন মেসির

২০১৬ সালে আরও শিরোপাস্বপ্ন মেসির

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বিদায় নেয়া ২০১৫ সালে স্বর্ণালী সাফল্য পেয়েছে বার্সিলোনা। স্প্যানিশ পরাশক্তিরা গেল বছরের সাফল্য আজ থেকে শুরু হওয়া নতুন বছর ২০১৬ সালেও অব্যাহত রাখতে চায়। দলের প্রাণভোমরা লিওনেল মেসি বুধবার রাতে এক সাক্ষাতকারে জানিয়েছেন, ২০১৬ সালে বিগত বছরের চেয়েও বেশি ট্রফি জিততে চান তারা।

প্রত্যাশিতভাবে স্প্যানিশ লা লিগার পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে থেকেই ২০১৫ সাল শেষ করেছে বার্সিলোনা। ন্যুক্যাম্পে বছরের শেষ ম্যাচে রিয়াল বেটিসকে ৪-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। এই ম্যাচের মধ্য দিয়ে বার্সার মূল দলের হয়ে ৫০০তম ম্যাচ খেলার গৌরবময় মাইলফলক স্পর্শ করেছেন মেসি।

বিদায়ী বছরে দুর্দান্ত সাফল্য পেয়েছে বার্সিলোনা। বছরে পাঁচ শিরোপা জয় করে কাতালানরা। ট্রফিগুলো হচ্ছে- স্প্যানিশ লা লিগা, উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগ, স্প্যানিশ কোপা ডেল রে, উয়েফা সুপার কাপ ও ক্লাব বিশ্বকাপ। দারুণ এই সাফল্যেকে নতুন বছরে ছাড়িয়ে যেতে চান মেসি। সাক্ষাতকারে ব্রাজিল বিশ্বকাপের সেরা তারকা বলেন, অসাধারণ এক বছর ছিল এটা। যেটা আমরা জয় দিয়ে শেষ করতে চেয়েছিলাম। রিয়াল বেটিসের বিপক্ষে চাওয়াটা পূরণ হয়েছে বার্সার। তবে কাজটা সহজ ছিল না বলে উল্লেখ করেন মেসি বলেন, এটা অদ্ভুত এক ম্যাচ ছিল, জটিল। ম্যাচের গতি বাড়ানো আমাদের কাছে কঠিন হয়ে পড়েছিল, যেটা কিছুদিন ছুটি কাটানোর পর সব সময়ই কঠিন। কিন্তু আমরা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজটি করেছি, যেটা ছিল জয় পাওয়া।

পঞ্চমবারের মতো বর্ষসেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার জয়ের দৌড়ে থাকা মেসি মনে করেন, বার্সিলোনা নিজেদের এমন এক উচ্চতায় নিয়ে গেছে, যেখান থেকে আরও উন্নতি করাটা বেশ কঠিন। তিনি বলেন, ২০১৫ সালের পুনরাবৃত্তি করা কঠিন হবে। কিন্তু আমরা চেষ্টা করব। আমরা আরও বেশি ট্রফি এ বছরে জয়ের চেষ্টা করে যাব। একই সাফল্যে নতুন বছরও শেষ করতে চাই বার্সার হয়ে ৫০০তম ম্যাচ খেলতে নামা মেসি বলেন, আমাদের একটি দল আছে, যারা এখনও জিতে যেতে চায়।

রিয়াল বেটিসের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে জাভি হার্নান্দেজ, কার্লোস, পুওল, মিগুয়েলি, ভিক্টর ভালদেস ও বর্তমান সতীর্থ আন্দ্রেস ইনিয়েস্তার পাশে নাম লিখিয়েছেন মেসি। পাঁচজনই বার্সার হয়ে আগেই পাঁচ শ’ ম্যাচ খেলার কীর্তি গড়েছেন। সর্বোচ্চ ৭৬৭ ম্যাচ খেলা জাভির ধারে কাছেও কেউ নয়। আর পুওল, ইনিয়েস্তা, মিগুয়েলি ও ভালদেসের ম্যাচ সংখ্যা যথাক্রমে ৫৯৩, ৫৬৭, ৫৪৯, ৫৩৫। ম্যাচ সংখ্যায় অন্যদের চেয়ে পিছিয়ে থাকলেও সর্বোচ্চ গোলদাতার তালিকায় সবার ধরাছোঁয়ার বাইরে মেসি। বার্সার জার্সি গায়ে সব মিলিয়ে ৫০০ ম্যাচে প্রতিপক্ষের জালে ৪২৫ বার বল পাঠিয়েছেন আর্জেন্টাইন তারকা। এ তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে প্রয়াত স্প্যানিশ ফরোয়ার্ড সিজার রড্রিগুয়েজ (২৩৫)। বার্সার হয়ে প্রতি ১০০ ম্যাচে মেসির গোলসংখ্যা যথাক্রমে ৪১, ৭৩, ৯৯, ১১৮ ও ৯৪। এছাড়া সতীর্থদের দিয়ে করিয়েছেন আরও ১৫৯ গোল। এখন পর্যন্ত হ্যাটট্রিক করেছেন ৩২ বার। ক্লাবের হয়ে ৫০০ ম্যাচ খেলার রেকর্ড গড়লেও মেসিকে বছর শেষ করতে হয়েছে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর পেছনে থেকে। লা লিগায় নিজের ক্লাব রিয়াল মাদ্রিদ নানা সমস্যায় জর্জরিত থাকলেও নিজের আলোয় রং ছড়িয়েছেন সি আর সেভেন। ৩৭ গোল করে এখন পর্যন্ত ইউরোপিয়ান ক্লাবগুলোর লড়াইয়ে শীর্ষ গোলদাতার তালিকায় সবার ওপরে তিনি। ৩৪ গোল করে ঠিক পরের অবস্থানেই মেসি। যদিও ইনজুরির কারণে বেশ কিছুদিন মাঠের বাইরে থাকতে হয় আর্জেন্টাইন অধিনায়ককে। মেসির সঙ্গে প্রায় সমানতালে লড়েছেন তারই ক্লাব সতীর্থ সুয়ারেজ। দিন দিন নিজেকে অন্য উচ্চতায় নিয়ে যাওয়া উরুগুইয়ান স্ট্রাইকার ৩০ গোল করে তালিকার তৃতীয়স্থানে আছেন। সেরা দশে থাকা অন্য তারকারা হলেন- বুরুশিয়া ডর্টমুন্ডের পিয়েরে-এমিরিক আয়ুবামেয়াং (২৯), নেপোলির গঞ্জালো হিগুয়াইন (২৭), টটেনহামের হ্যারি কেন (২৭), পিএসজির জ¬াতান ইব্রাহিমোভিচ (২৬), বেয়ার্ন মিউনিখের রবার্ট লেভানডোস্কি (২৫), বার্সার নেইমার (২৫) ও এ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের এ্যান্টোনিও গ্রিজম্যান (২৫)।