১৮ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মুক্তিযুদ্ধে শহীদের সংখ্যা নিয়ে কটাক্ষ করায় বিএনপি পরাস্ত হয়েছে

  • পাকিস্তানী ভাবধারা জনগণ মানবে না ॥ হানিফ

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ বিজয়ের মাসে পাকিস্তানের কণ্ঠে সুর মিলিয়ে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী বক্তব্য দেয়ায় পৌর নির্বাচনে দেশের জনগণ বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া ও তার দল বিএনপির বিপক্ষে রায় দিয়েছে বলেই মনে করে শাসক দল আওয়ামী লীগ। জনগণের রায়কে স্বাগত জানিয়ে ফল মেনে নেয়ার জন্য বিএনপির প্রতি পুনর্বার আহ্বান জানিয়ে দলটি বলেছে, ফল প্রত্যাখ্যান করে বিএনপি জনগণের রায়কে অপমান করেছে। এ ফলের মাধ্যমে প্রমাণ হয়েছে পাকিস্তানের ভাবধারার এবং সন্ত্রাস সর্বস্ব বিএনপির রাজনীতি এ দেশের মানুষ মেনে নেবে না। বৃহস্পতিবার ধানম-ির আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের পক্ষে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ এসব কথা বলেন। তিনি আরও বলেন, দলীয়ভাবে অনুষ্ঠিত পৌরসভা নির্বাচনে অংশ নিয়ে বিএনপি বর্তমান সরকার ও নির্বাচন কমিশনকে বৈধতা দিয়েছে। কারণ তারা এতদিন সরকার ও নির্বাচন কমিশনকে মানতো না। তাছাড়া বর্তমান নির্বাচন কমিশনের অধীনে যে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব সেটি আবারও প্রমাণিত হয়েছে।

পৌরসভা নির্বাচনের বিভিন্ন ভোটকেন্দ্রে বিএনপির এজেন্টদের বের করে দেয়া হয়েছে বলে বিএনপির অভিযোগ নাকচ করে দিয়ে হানিফ বলেন, বিএনপি একটি মাজাভাঙা রাজনৈতিক দল, মেরুদ- ভাঙা দল। সন্ত্রাসী কর্মকা-ের কারণে জনবিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে দলটি। নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতি করার মতো সাংগঠনিক শক্তিও তাদের নেই। এজন্য বিভিন্নস্থানে তারা এজেন্ট দিতে পারেনি। এর দায়ভার তো আওয়ামী লীগের না। আসলে বিএনপি নির্বাচনকে নিয়েছিল একটি ষড়যন্ত্র হিসেবে।

হানিফ বলেন, খালেদা জিয়া আন্দোলনের নামে পেট্রোল বোমা সন্ত্রাস করে পুড়িয়ে মানুষ হত্যা করেছেন। সেটা জনগণ ভালভাবে নেয়নি। তিনি বিজয়ের মাসে মুক্তিযুদ্ধের শহীদদের সংখ্যা নিয়ে কটাক্ষ করেছেন। এর মাধ্যমে খালেদা জিয়া নিজেকে একজন পাকিস্তানী হিসেবে প্রমাণ করেছেন। এমন মনোভাব প্রকাশ করায় খালেদা জিয়াকে জনগণ এবারের পৌর নির্বাচনে প্রত্যাখ্যান করেছে। এ ফলের মাধ্যমে প্রমাণ হয়েছে পাকিস্তানের ভাবধারার এবং সন্ত্রাস সর্বস্ব বিএনপির রাজনীতি এ দেশের মানুষ মেনে নেবে না। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বর্তমান নির্বাচন কমিশনের অধীনে পৌরসভা নির্বাচন করতে বাধ্য হয়েছে বিএনপি। এ নির্বাচনের এটাই আওয়ামী লীগের বড় অর্জন।

নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ নাকচ করে দিয়ে আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, কিছু কিছু জায়গায় আমাদের দলের প্রার্থীরা মাত্র ১৩-১৪ ভোটে হেরেছেন। ভোটে কারচুপি হলে আমাদের প্রার্থীরা এ অল্প ব্যবধানে হারতেন না, জিতে জেতেন। কিন্তু আওয়ামী লীগ জনগণের রায়ের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। ফল যা হয়েছে, তা-ই মেনে নিয়েছে।

পৌরসভা নির্বাচন এবং আগামী ৫ জানুয়ারি সরকারের দ্বিতীয় বর্ষপূর্তিকে সামনে রেখে বিএনপি আবার আন্দোলনে নামলে সরকারের অবস্থান তখন কী হবে, এমন প্রশ্নের জবাবে হানিফ বলেন, গত ৫ জানুয়ারি থেকে আন্দোলনের নামে তারা যে ভয়াল সহিংসতা চালিয়েছিল, তার বিরুদ্ধে দেশের জনগণ তাদের যে শিক্ষা দিয়েছে তা যদি বিএনপির মনে থাকে, তাহলে তারা সন্ত্রাস করার জন্য আর মাঠে নামবে না। নামলে সরকার উপযুক্ত ব্যবস্থা নেবে।