১৯ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পিএসজির শিরোপা মিশন শুরু আজ

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ পাঁচ বছর অপেক্ষার পর গত বছর ফ্রেঞ্চ কাপ জিতেছিল প্যারিস সেইন্ট জার্মেইন (পিএসজি)। সবমিলিয়ে ৯ বার ফ্রেঞ্চ কাপের শিরোপা ঘরে তুলেছে তারা। এবার ফরাসী চ্যাম্পিয়নদের লক্ষ্য শিরোপা ধরে রাখার। সেই সঙ্গে দশমবারের মতো চ্যাম্পিয়ন হয়ে রেকর্ড ছুঁয়ে ফেলা। ফ্রেঞ্চ কাপে সর্বাধিক ১০ বার চ্যাম্পিয়ন হয়েছে অলিম্পিক ডি মার্শেই। এবার তাদের সমকক্ষ হওয়ার সুযোগ পিএসজির। নতুন বছরের শুরুতেই সেই মিশন শুরু হচ্ছে তাদের। রবিবার তাদের প্রতিপক্ষ চতুর্থ বিভাগের দল ভ্যাসকুইহাল। তাদের মাটিতেই খেলতে হবে। তবে জয় দিয়ে বছরটা শুরু করতে চায় চ্যাম্পিয়নরা।

স্বল্প সময়ের একটি শীতকালীন বিরতি পেয়েছে পিএসজির ফুটবলাররা। তবে বসে থাকেনি লরেন্ট ব্লাঙ্কের দল। কাতারে অনুশীলন করেছে। পাশাপাশি একটি প্রীতি ম্যাচ খেলেছে ইন্টার মিলানের বিরুদ্ধে। সেই ম্যাচে এবার সিরি ‘এ’ লীগে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে থাকা ইন্টারকে ১-০ গোলে হারিয়ে ভালভাবে প্রস্তুতিটাও সেরে ফেলেছে। বুধবার অনুষ্ঠিত সেই ম্যাচে গোল করেন কেভিন অগাস্টিন। এই তরুণ ক্রমেই ব্লাঙ্কের সুনজরে চলে আসছেন। হয়তো তাকে নিয়মিতই একাদশে দেখা যাবে। বর্তমানে ফরাসী লীগে অপরাজিত থেকে শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে পিএসজি। আর চ্যাম্পিয়ন্স লীগেরও শেষ ষোলোর চ্যালেঞ্জ আছে সামনে। তবে নতুন বছরটা শিরোপায় দলকে পরিপূর্ণ করে দিতে চান ব্লাঙ্ক। ইন্টারের বিরুদ্ধে জয়ের পর তিনি বলেছেন, ‘আমরা পুরোপুরি প্রস্তুত এবং আশাকরি ২০১৬ সালটা ২০১৫’র মতোই ভাল যাবে। আমরা সবাই জানি যে এটা বেশ কঠিন হবে এবং অনেক কিছুই করার প্রয়োজন আছে। কিন্তু আমরা এটাও জানি যে আমাদের সামর্থ্য কতখানি।’

লিলে অঞ্চলের বেশ বড় মানের মর্যাদাসম্পন্ন একটি ক্লাব ভ্যাসকুইহাল। ১৮ হাজার দর্শক ধারণক্ষমতার লিলে মেট্রোপোল স্টেডিয়ামে আজ সফরকারী পিএসজির মুখোমুখি হবে তারা। তাদের স্কোয়াডে আছে ফরাসী মিডফিল্ডার ইয়োহানের ছোট ভাই জিওফ্রে ক্যাবে। তরুণ ক্যাবে পিএসজির বিরুদ্ধে খেলার বিষয়ে বলেছেন, ‘আমি নতুন বছরের উৎসবটা ইংল্যান্ডে ভাই ইয়োহানের সঙ্গে কাটানোর পরিকল্পনা করেছিলাম। কিন্তু সেই পরিকল্পনাটাকে সংক্ষিপ্ত করতে হয়েছে নির্দিষ্ট কিছু কারণে।

এটা হয়তো আমার জন্য জীবনে আসা একমাত্র সুযোগ হতে পারে পিএসজির বিরুদ্ধে খেলার। কারণ এখানে ভাল করতে পারলে ক্যারিয়ারের জন্যই ভাল হবে।’ গত বছর দ্বিতীয় বিভাগের দল অক্সারের বিরুদ্ধে ফাইনাল খেলেছিল পিএসজি। কিন্তু বেশ ঘাম ঝরাতে হয়েছিল জেতার জন্য। শেষ পর্যন্ত ২০১০ সালের পর আবারও ফরাসী চ্যাম্পিয়নরা ফ্রেঞ্চ কাপ জিতে যায় ১-০ গোলের জয় তুলে নিয়ে।