১৯ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতি রোধে আইন প্রণয়ন দাবিতে ঢাবি ক্যাম্পাসে মানববন্ধন

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার ॥ মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতি রোধে আইন করার দাবি জানিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সচেতন শিক্ষার্থীরা। শনিবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি’র রাজু ভাস্কর্যের সামনে আয়োজিত এক মানববন্ধন থেকে এ দাবি জানানো হয়। বিজয় নিশান নামক সংগঠন এই মানববন্ধনের আয়োজন করে। বিজয় নিশান মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক এক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। এই মানববন্ধনে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী অংশ নেন।

মানববন্ধনে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি লিটন নন্দী বলেন, আমরা এমন একটি জাতি স্বাধীনতার ৪৪ বছর পরেও আমাদের মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে প্রশ্ন তোলা হচ্ছে। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস এমনি পাওয়া নয়, দীর্ঘ ২৪ বছরের আন্দোলন-সংগ্রামের ফসল। এই মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতি শুরু হয় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার পরবর্তী সময় থেকে। মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস সংরক্ষণে আইন প্রণয়নের দাবি বাস্তবায়ন করতে তরুণ শিক্ষার্থীদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি। ছাত্র মৈত্রীর বিশ্ববিদ্যালয় শাখা সভাপতি মাসুদ মাজহার বলেন, কিছুদিন আগে বিএনপির এক নেতা বলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বুদ্ধিজীবীরা নির্বোধের মতো মরে গেছে। একাত্তরের আগে মুনীর চৌধুরীর বক্তব্য শোনার জন্য তাঁর কক্ষের ভেতর ভিড় জমাত সাধারণ শিক্ষার্থীরা। দার্শনিক গোবিন্দ চন্দ্র দেব, অধ্যাপক শহীদুল্লাহ কায়সারের মতো দার্শনিক, বুদ্ধিজীবীদের কথা গয়েশ্বররা জানেন না। ‘জ্ঞানপাপী’ গয়েশ্বরকে ধিক্কার জানিয়ে তিনি বলেন, এই মানুষগুলো নির্বোধ হলে তাহলে গয়েশ্বর কি বুদ্ধিজীবী? পাঠ্যক্রম থেকে শুরু সব জায়গায় মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃত ভাবে তুলে ধরতে কাজ করছে গয়েশ্বরের মতো কুচক্রী মহল। তরুণ সমাজের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মাধ্যমে তা রোধ করা সম্ভব।

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী রকিবুল ইসলাম ঐতিহ্য বলেন, বাঙালী, বাংলাদেশের নাগরিক হিসেবে মুক্তিযুদ্ধ আমাদের জন্য গর্বের বিষয়। এই মুক্তিযুদ্ধের জন্যই আজ আমরা স্বাধীনভাবে চলতে পারছি। কিন্তু জাতির এই গর্বিত ইতিহাসকে বিকৃতি করার জন্য একটি মহল অপচেষ্টা চালাচ্ছে। তাদের এই অপচেষ্টা কোনদিনও সফল হবে না। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতি রোধে জেনোসাইড ডিনায়্যাল এ্যাক্ট প্রণয়নের দাবি জানান তিনি। বিজয় নিশানের সাংগঠনিক সম্পাদক মাজহারুল কবির শয়ন বলেন, রাজনীতিবিদরা নিজেদের স্বার্থে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিকৃতি করছে। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ও তথ্যকে বিকৃতি করে বক্তব্য ও বিবৃতি দেয়া রোধে সকল শিক্ষার্থী সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

শিক্ষার্থী আবু সাঈদ বলেন, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতি আইনের পাশাপাশি এই কুচক্রী মহলের বিরুদ্ধে সক্রিয় প্রতিরোধ আান্দোলন করতে হবে। কারণ এই ইতিহাস সংরক্ষণ আমাদের নৈতিক দায়িত্ব। মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন বিজয় নিশানের সভাপতি কামাল হোসেন।