১৩ নভেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ঝলক

সুখী মন্ত্রী!

পদের নাম সুখী মন্ত্রী! ভাবছেন রসিকতা, না পুরোটাই সত্যি খবর। সম্প্রতি সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রধানমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ বিন রশিদ আল মখতুম দেশটিতে সুখ বিষয়ক মন্ত্রণালয় সৃষ্টি করেছেন। আর এ মন্ত্রণালয়ে নিয়োগ দিয়েছেন ওহুদ আল রৌমি নামে এক নারীকে। সমাজে মানুষের সুখ ও প্রশান্তি নিশ্চিত করায় হবে এ মন্ত্রণালয়ের প্রধান কাজ। সরকারে সংস্কারের অংশ হিসেবে এ মন্ত্রণালয় গঠন করা হয়। একই সঙ্গে সহিষ্ণুতাবিষয়ক প্রতিমন্ত্রীও নিয়োগের ঘোষণা দিয়েছেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী জানান, নতুন পদে নিয়োগ পাওয়া দুই মন্ত্রী সমাজের কল্যাণ ও সন্তুষ্টির জন্য কাজ করবেন। তিনি আরও জানান, বেশকিছু মন্ত্রণালয়কে একীভূত করা হবে এবং আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে সরকারী সেবা দেয়া হবে।

ক্রিকেটে লাল কার্ড!

এবার ক্রিকেটে লাল কার্ড! বিস্ময় লাগছে! হ্যাঁ, এমনটাই প্রস্তাব করেছে এমসিসি। বিষয়টি এখনও চূড়ান্ত না হলেও সিদ্ধান্তটি কার্যকরের পথে ব্যাপক সমর্থন রয়েছে। মাঠের শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে আম্পায়ারদের হাতে সর্বোচ্চ ক্ষমতা দেয়ার জন্য এমনই কথা ভাবা হচ্ছে। এই ক্ষমতাবলে শৃঙ্খলা রক্ষায় যে কোন খেলোয়াড়কে চাইলেই মাঠের বাইরে পাঠাতে পারবেন তারা। তবে নির্দিষ্ট কিছু অপরাধের জন্যই তা নির্ধারিত। যেমন কোন খেলোয়াড় যদি আম্পায়ারকে হুমকি দেন, প্রতিপক্ষকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেন, মাঠে সহিংস আচরণ করেন অথবা অন্যদের হেনস্তা করেন। তবে শীর্ষ পর্যায়ে আপাতত চালু না হলেও ইংল্যান্ডের স্কুল ক্রিকেট ও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে পরীক্ষামূলকভাবে চালু হবে এ আইন। তবে বিষয়টি নিয়ে এখনও চলছে বাহাস।

আত্মহত্যা ঠেকাবে মোবাইল

আত্মহত্যা প্রতিরোধে মোবাইল এ্যাপ তৈরির কাজ করছেন গবেষকরা। যুক্তরাজ্যের ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিস মার্কিন গবেষকদের সঙ্গে মিলে এই এ্যাপ তৈরির কাজ করছে। তাদের দাবি, এই এ্যাপ মানুষকে আত্মহত্যার প্রবণতা থেকে বিরত রাখতে সাহায্য করবে। এ্যাপের মাধ্যমে চিকিৎসকরা আত্মহত্যাপ্রবণ ব্যক্তির সারাদিনের কর্মকাণ্ড পর্যবেক্ষণ করতে পারবেন। রোগীর সব ধরনের ডিজিটাল যোগাযোগ যেমন ই-মেইল, সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম এবং ফোনকল পর্যন্ত পর্যবেক্ষণের আওতায় থাকবে, যার ফলে সম্ভাব্য যে কোন আত্মহত্যার উদ্যোগ সম্পর্কে আগাম ধারণা করা যাবে।

লিভারপুলভিত্তিক মার্সিকেয়ার এবং স্ট্যানফোর্ড ইউনিভার্সিটি আশা করছে, এই জুন মাসের মধ্যে এ রকম একটি এ্যাপের প্রোটোটাইপ তৈরি করা গেলে একজন আত্মহত্যাপ্রবণ ব্যক্তির ওপর এই এ্যাপটির পরীক্ষা চালানো যাবে।