১৮ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

‘সব্যসাচী’ বোলার তাঁরা

গ্রাহাম গুচ

ইংল্যান্ডের সর্বকালের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান গ্রাহাম গুচ। ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি করতেন খণ্ডকালীন বোলিংও। ১১৮ ম্যাচের টেস্ট ক্যারিয়ারে ২৩টি উইকেটও নিয়েছেন এই ডানহাতি মিডিয়াম পেসার। কিছু ম্যাচে তাঁকেও বল করতে দেখা গেছে দুই হাতে। যে ম্যাচগুলোতে দলের হেরে যাওয়ার কোনোই আশঙ্কা নেই, সেই ম্যাচগুলোতেই গুচ পরিণত হয়েছিলেন সব্যসাচী বোলারে।

হাসান তিলকারতেœ

শ্রীলংকার বিশ্বকাপ জয়ের অন্যতম কা-ারী হাসান তিলকারতেœ। মূলত তিনি ছিলেন ব্যাটসম্যান। বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান শ্রীলঙ্কার পক্ষে খেলেছিলেন ৮৩টি টেস্ট ও ২০০টি ওয়ানডে। অল্প কিছু ম্যাচে অফ স্পিনও করতে দেখা গেছে তিলকারতেœকে। ওয়ানডেতে ছয়টি উইকেটও নিয়েছেন ডানহাতি অফস্পিন দিয়ে। শ্রীলঙ্কান এই ক্রিকেটারকেও একটি ম্যাচে বল করতে দেখা গিয়েছিল দুই হাতে। সেটিও বিশ্বকাপের ম্যাচে। ১৯৯৬ সালে কেনিয়ার বিপক্ষে আগে ব্যাটিং করে সেই সময়ে সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহের রেকর্ড (৩৯৮) গড়েছিল লঙ্কানরা। সে ম্যাচের শেষ ওভারে দুই হাতে বল করেছিলেন তিলকারতেœ।

হানিফ মোহাম্মদ

পাকিস্তানের কিংবদন্তি ক্রিকেটার হানিফ মোহাম্মদ। তাকে বলা হয়, দেশটির প্রথম ব্যাটিং সুপারস্টার। দীর্ঘ সময় ধরে টেস্ট ইনিংস খেলার রেকর্ডটিও তার দখলে। ১৯৫৮ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৯৭০ মিনিট ব্যাটিং করে ৩৩৭ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেছিলেন এই ব্যাটসম্যান। তবে তিনি যে দুই হাতেই বল করতে পারতেন, এই তথ্য হয়ত অনেকেরই অজানা। নিয়মিত বোলারের ভূমিকায় কখনও দেখা যায়নি হানিফকে। ১৯৫৮ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়েছিলেন তিনি। ডান হাতে বল করতে করতে হঠাৎ করেই কিছু বল করেছিলেন বাঁ হাতে। এই ম্যাচেই ৩৬৫ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলে রেকর্ড গড়েছিলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের কিংবদন্তি ব্যাটসম্যান স্যার গ্যারিফিল্ড সোবার্স। সে সময় এটিই ছিল টেস্টে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত ইনিংসের রেকর্ড।

অক্ষয় কার্নেওয়ার

অক্ষয় কার্নেওয়ার। নামটি অপরিচিত মনে হলেও হয়ত বেশি দিন লাগবে না এই নামটির সঙ্গে পরিচিত হতে। কেননা জানুয়ারিতে অনুষ্ঠিত ভারতের বিজয় হারারে ট্রফিতে অভিষেকেই সবাইকে তাক লাগিয়ে নিয়মিত দুই হাতে বোলিং করতে দেখা গেছে তাকে। এখন পর্যন্ত সাত ম্যাচ খেলে ১৬টি উইকেট নিয়ে তিনিই তাঁর দলের সবচেয়ে সফল বোলার।

কামিন্দু মেন্ডিজ

কামিন্দু মেন্ডিজ। বয়স মাত্র ১৭। শ্রীলংকান অনুর্ধ ১৯ দলের আলোচিত অফ স্পিনার। শুধু অফ স্পিনেই নয়, ব্যাট হাতেও দারুণ স্ট্রোক খেলতে পারেন তরুণ এই অলরাউন্ডার। মজার ব্যাপার হলো শ্রীলঙ্কান এই অফস্পিনার দুই হাতেই বোলিং করতে পারেন! আর এই কারণেই তাকে নিয়ে চলছে আলোচনা। তার এমন প্রতিভার কথা জানতে চাইলে তিনি বলেছেন, ‘মনে হয়, এটা আমার জন্মগত প্রতিভা। যখন আমি স্কুলে পড়তাম, তখন থেকেই দু’হাতে অনুশীলন করতাম।’ তখন তার বয়স ১২-১৩ বছর ছিল বলেও জানালেন। নেটেও তিনি এভাবেই অনুশীলন করেন, ‘যখন ডানহাতি ব্যাটসম্যান আসে, তখন বাঁহাতে আর যখন বাঁহাতি ব্যাটসম্যান আসে, তখন ডান হাতে অফস্পিন করি।’ যদিও তার ‘ন্যাচারাল হ্যান্ড’ বাঁহাত। তবে ব্যাটিং বাঁহাতে করলেও হাসতে হাসতে বললেন, ডানহাতে রিভার্স সুইপ ছাড়া কিছু খেলতে পারেন না গল, ক্রিকেট ক্লাবে খেলা এ তরুণ তুর্কি।