১৪ নভেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আজ তৃতীয় স্থানের জন্য লড়বে মিরাজবাহিনী

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ স্বপ্নটা ভঙ্গ হয়েছে সেমিফাইনালে হেরে। ওয়েস্ট ইন্ডিজকে অতীতে বেশির ভাগ সময় এবং বিশ্বকাপের ঠিক আগেও তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে ৩-০ ব্যবধানে হারিয়ে দিতে পারলেও অনুর্ধ ১৯ বিশ্বকাপের মঞ্চে আর পারেনি বাংলাদেশের যুবারা। তবে বিশ্বকাপ ইতিহাসের সেরা সাফল্য অর্জন করে ইতিহাস গড়েছে মেহেদী হাসান মিরাজের দল। এবার সেটাকে আরেকটু উজ্জ্বল করার সুযোগ। আজ তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে শ্রীলঙ্কা অনুর্ধ ১৯ দলের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ অনুর্ধ ১৯ দল। ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে সকাল ৯টায় ম্যাচটি শুরু হবে।

শ্রীলঙ্কায় অনুষ্ঠিত ২০০৬ যুব বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দল পেয়েছিল সেরা সাফল্য। সেবার মুশফিকুর রহীম, সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবালদের মতো ক্রিকেট বিশ্বে বর্তমানে আন্তর্জাতিক তারকারা খেলেছিলেন। এবার ঘরের মাঠে সেই সাফল্যটাকেও ছাপিয়ে প্রথমবারের মতো সেমিফাইনালে ওঠে বাংলাদেশের যুবারা। টুর্নামেন্টের শিরোপা জেতার অন্যতম ফেবারিটও ছিল মিরাজের দল। কিন্তু সেমিফাইনালে একটি ম্যাচই যেন ঠিক ছন্দে ছিল না বাংলাদেশ। আর সে কারণেই ক্যারিবীয় যুবাদের কাছে হেরে যায়। অথচ বিশ্বকাপ শুরুর আগেই দ্বিপক্ষীয় ওয়ানডে সিরিজে ক্যারিবীয় যুবাদের নাস্তানাবুদ করে ৩-০ ব্যবধানে হোয়াইটওয়াশ করেছিল বাংলাদেশ। তবে সেমি থেকে বিদায় নিলেও আগের ১০ বিশ্বকাপে যা পারেনি সেটাই অর্জন করে দেশের মানুষকে গর্বিত করেছে দল। চ্যাম্পিয়ন বা রানার্সআপ হতে না পারলেও সুযোগ আছে বিশ্বের তৃতীয় দলে পরিণত হওয়ার। সেই ম্যাচেই আজ লঙ্কান যুবাদের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ দল। আর সুযোগটা কোনভাবেই হারাতে রাজি নয় মিরাজবাহিনী। সেমিফাইনালে হারের পর এমন প্রত্যয়ই জানিয়েছেন বাংলাদেশ যুবাদের এ অধিনায়ক। তিনি বলেন, ‘এখনও আমাদের তৃতীয় হওয়ার সুযোগ আছে। তাই এসব ভুলে সেটার জন্য প্রস্তুত হতে হবে। আমরা ফাইনালে উঠে চ্যাম্পিয়ন বা রানার্সআপ হতে পারিনি, কিন্তু তৃতীয় হতে পারলে সেটাও অনেক বড় অর্জন হবে আমাদের জন্য।’ আগে কখনও সেমিফাইনাল পর্যন্ত আসতেই পারেনি বাংলাদেশ যুব দল। ১৯৯৮, ২০০৪, ২০১০ ও ২০১৪ সালে প্লেট চ্যাম্পিয়ন হওয়া দলটি তিনবার গ্রুপ পর্ব অতিক্রম করে সুপার লীগে উঠতে সক্ষম হয়েছিল। তবে সেখানেই থেমে গেছে অগ্রযাত্রা। সর্বোচ্চ পঞ্চম স্থান পাওয়াটাই ছিল সেরা নজির। সেটা এবার শুধু ছাড়িয়েই যায়নি, স্বপ্ন ছিল ফাইনালের এবং চ্যাম্পিয়ন হওয়ার। সেটাও হয়নি। কিন্তু তবু আফসোস নেই জুনিয়র টাইগারদের শিবিরে। এ বিষয়ে অধিনায়ক মিরাজ বলেন, ‘আমরা যদি তৃতীয় বা পঞ্চম হতে পারি সেটা অনেক বড় পাওয়া হবে। পরবর্তী প্রজন্মের জন্য উদাহরণ তৈরি হবে। তারা তখন আগে থেকেই আরও ভাল ফলাফল মানে ফাইনাল খেলে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার টার্গেট নিয়ে খেলতে পারবে। আর ১০ টেস্ট খেলুড়ে দেশের মধ্যে আমরা শীর্ষ পাঁচে থাকব এটা কিন্তু সবাই হিসাব করবে।’ আর সে কারণেই শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো তৃতীয় হতে উন্মুখ মিরাজের দল।