২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ঋণ কমেছে ইউনাইটেডের

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ মাঠের পারফর্মেন্সে নিষ্প্রভ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। ২০১২-১৩ মৌসুমের পর আর প্রিমিয়ার লীগের শিরোপা জিততে পারেনি তারা। এবারও শীর্ষ তিনে থাকতে পারে কি না তা নিয়ে রয়েছে যথেষ্ট সংশয়। তবে মাঠের খেলায় খুব একটা ভাল সময় না কাটলেও, আয়ের দিক থেকে বেশ এগিয়েছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। ২০১৫ সালের শেষভাগে ১৩৩ দশমিক আট মিলিয়ন পাউন্ড লাভ করেছে ইংলিশ জায়ান্টরা। ক্লাব কর্তৃপক্ষ গত বছরের শেষভাগের আয়ের হিসাব জানিয়েছে। আর তাদের তথ্য অনুযায়ীই প্রায় ৬৬ দশমিক এক মিলিয়ন পাউন্ড আয় বেড়েছে ক্লাবটির। অর্থের হিসেবে যা প্রায় ৪২ দশমিক পাঁচ শতাংশ বৃদ্ধি পায়। প্রচার সত্ত্বে ৩১ দশমিক ৩ শতাংশ এবং আয় বৃদ্ধি পায় ৩৭ দশমিক তিন মিলিয়ন পাউন্ড। এই আয়ের কারণে ঋণ অনেকাংশে কমিয়ে এনেছে ক্লাবটি। এই আয় বৃদ্ধির কারণ হিসেবে বলা যায় এডিডাসের সঙ্গে নতুন চুক্তি। এ বিষয়ে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের প্রধান নির্বাহী এড উডওয়ার্ড জানালেন, অর্জিত অর্থ দিয়ে সামনের মৌসুমে আরও ভাল দল গড়ার বিষয়ে বেশ আত্মবিশ্বাসী ইউনাইটেড।

২০১২-১৩ মৌসুমে ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগের শিরোপা জিতিয়েই ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে বিদায় বলে দেন ক্লাবটির কিংবদন্তি কোচ স্যার এ্যালেক্স ফার্গুসন। তার বিদায়ের পর থেকেই যেন সাফল্যের উল্টো পৃষ্ঠা দেখতে শুরু করে প্রিমিয়ার লীগের সর্বোচ্চ ২০ বারের চ্যাম্পিয়নরা। গত দুই মৌসুম ধরেই বাজে সময় কাটছে রেড ডেভিলদের। চলতি মৌসুমেও সেই একই চিত্রনাট্য। এখন পর্যন্ত ২৫ ম্যাচ খেলা ম্যানইউর জয় মাত্র ১১টিতে। ৮ ম্যাচে ড্র আর বাকি ৬টিতে হেরেছে তারা। আর ৪১ পয়েন্ট নিয়ে প্রিমিয়ার লীগের পাঁচ নাম্বারে অবস্থান করছে ম্যানইউ। যেখানে তাদের চেয়ে ১২ পয়েন্ট নিয়ে সবার উপরে অবস্থান করছে লিচেস্টার সিটি। দুই আর তিনে অবস্থান করা টটেনহ্যাম হটস্পার এবং আর্সেনালের পয়েন্ট সমান ৪৮। তাদের চেয়ে ১ পয়েন্ট কম নিয়ে চতুর্থ স্থানে আছে ইউনাইটেডের নগরপ্রতিদ্বন্দ্বী ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড।