১৭ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আবর্জনা থেকে মুক্তি পাচ্ছে সিলেটবাসী

স্টাফ রিপোর্টার, সিলেট ॥ অবশেষে ময়লা আবর্জনার দুর্গন্ধ থেকে মুক্তি পেতে যাচ্ছে সিলেটের মানুষ। নগরীর বাসাবাড়ির প্রতিদিনের বর্জ্যকে এখন আর খোলা জায়গায় না রেখে সংরক্ষণ করা হবে চার দেয়ালের আবদ্ধ অত্যাধুনিক ভবনে।

এজন্য নগর পরিবেশ স্বাস্থ্য উন্নয়ন প্রকল্পের অধীনে নির্মাণ করা হয়েছে ৪টি ‘সেন্ডারি ট্রান্সফার স্টেশন’। পরিবেশবান্ধব এ স্টেশনগুলো নির্মাণে তিন কোটি ৮০ লাখ টাকা ব্যয় করছে এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক।

রাস্তার পাশে ময়লা আবর্জনার স্তূপ নগরবাসীর চিরচেনা। দুর্গন্ধের কারণে এর পাশ দিয়ে স্বাভাবিকভাবে চলাচল করা দুষ্কর। বাধ্য হয়ে পথচারীরা টিস্যু কিংবা কাপড় দিয়ে নাক ঢেকে কোন মতে পার হয় ডাস্টবিন এলাকাগুলো। এ অবস্থা থেকে নাগরিকদের মুক্তি দিতে নগরীর রিকাবিবাজার, টিলাগড় ও শাহী ঈদগাহ এলাকায় নির্মাণ করা হয়েছে ৩টি সেকেন্ডারি ট্রান্সফার স্টেশন। আরেকটি তৈরি হচ্ছে বাগবাড়িতে।

এ প্রসঙ্গে সিসিকের ভারপ্রাপ্ত প্রকৌশলী নূর আজিজুর রহমান বলেন, ‘পরিবেশ উন্নয়ন করার স্বার্থে এ প্রকল্পের কাজ করা হয়েছে। ইতোমধ্যে তিনটির কাজ সম্পন্ন হওয়ার পথে।’

পরিবেশবান্ধব এ স্টেশনগুলো চালু হলে বাইরে যেমন দুর্গন্ধ ছড়াবে না, তেমনি বর্জ্য ব্যবস্থায় বড় পরিবর্তন আসবে বলে জানান সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এনামুল হাবিব। তিনি বলেন, ‘প্রাথমিক বর্জ্যগুলো সেকেন্ডারি ট্রান্সফার স্টেশনে যাবে এবং সেখান থেকে আমাদের মূল ডাম্পিং রাউন্ডে যাবে। সেক্ষেত্রে পরিবেশ দূষণ হবে না। বর্জ্যরে দুর্গন্ধ ছড়াবে না। বর্জ্যগুলো ছড়িয়ে যাওয়ার আশঙ্কাও থাকবে না।’

সাড়ে ২৬ বর্গ কিলোমিটার আয়তনের এ নগরে প্রায় ৮ লাখ মানুষের বাস। এখানে প্রতিদিন বর্জ্য উৎপাদন হয় ২শ’ থেকে আড়াই শ’ মেট্রিক টন।

নির্বাচিত সংবাদ