১৬ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি নাটোরে ৫৩ দিনেও স্কুলছাত্রীকে উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ

নিজস্ব সংবাদদাতা, নাটোর, ১২ ফেব্রুয়ারি ॥ সিংড়া থেকে অপহৃত ১৩ বছরের স্কুলছাত্রীকে ৫৩ দিনেও উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ। এ বিষয়ে মামলা করে বিপাকে পড়েছে অপহৃতার পরিবার। অপহরণকারীরা মোবাইল ফোনে চাঁদা দাবি করছে। চাঁদা না দিলে অপহৃত স্কুলছাত্রীকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেয়া হচ্ছে। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার আদালতে আরেকটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

মামলা ও অপহৃতার পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, সিংড়া উপজেলার ডাহিয়া গ্রামের আশরাফুল ইসরাম ওরফে আলহাজের মেয়ে জেএসসি পরীক্ষার্থী মীম পারভীন মোন্টি সিংড়া উপজেলা সদরের মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে জেএসসি পরীক্ষা দিতে যায়। ফেরার পথে ডাহিয়া গ্রামের মুনছুর রহমানের ছেলে আতিউর রহমান শিবলু নেতৃত্বে ৬/৭ জন সন্ত্রাসী জোরপূর্বক মোন্টিকে মাইক্রেবাসে তুলে পালিয়ে যায়। ওইদিনই মোন্টির বাবা আলহাজ বাদী হয়ে সিংড়া থানায় মামলা দায়ের করেন। কিন্তু ৫৩ দিনেও পুলিশ অপহৃত মোন্টিকে উদ্ধার করতে পারেনি। এ বিষয়ে জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় পুলিশ সুপার শ্যামল কুমার মুখার্জী অপহৃতা মোন্টিকে উদ্ধার এবং ঘটনায় গ্রেফতারে আশ্বাস দিলেও তা কথার মধ্যেই সীমাবদ্ধ রয়েছে। আলহাজ উদ্দিন অভিযোগ করেন, অপহরণের মামলা করার পর থেকেই আতিউর রহমান শিবলুর পরিবার ও আত্মীয়স্বজনেরা মোবাইল ফোনে তার কাছে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। চাঁদা না দিলে তার মেয়ে মোন্টিকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেয়।

কিন্তু আলহাজ উদ্দিন তাতে সাড়া না দিলে ৫ ফেব্রুয়ারি অভিযুক্তরা আলহাজ উদ্দিনের বাড়িতে স্বশস্ত্র অবস্থায় হানা দেয়। এ সময় সন্ত্রাসীরা বাড়ি থেকে নগদ এক লাখ টাকা ছিনিয়ে নেয় এবং অবশিষ্ট ৯ লাখ টাকা না দিলে মোন্টিকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। এ ঘটনায় ১০ ফেব্রুয়ারি আশরাফুল ইসলাম ওরফে আলহাজ বাদী হয়ে নাটোরের চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে আরেকটি মামলা দায়ের করেন। শুনানি শেষে আদালত সিংড়া থানার ওসিকে অভিযোগটি এফআইআর হিসেবে গ্রহণ করে ২৩ ফেব্রুয়ারির মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন। আলহাজ জানান, মেয়েকে হারিয়ে তার বাড়ির সবাই পাগল প্রায়। অপহৃতা মেয়েকে উদ্ধারের জন্য পুলিশ, এমপি, মন্ত্রীর কাছে ঘুরতে ঘুরতে আমরা ক্লান্ত। এ বিষয়ে সিংড়া থানার ওসি নাসির উদ্দিন বলেন, তারা মামলাটিকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে অপহৃতাকে উদ্ধারের চেষ্টা করছেন।