১২ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

স্কুল সংলগ্ন পুকুর খননে ঝুঁকিতে কোমলমতি শিশু কিশোররা ‍

স্কুল সংলগ্ন পুকুর খননে ঝুঁকিতে কোমলমতি শিশু কিশোররা ‍

নিজস্ব সংবাদদাতা, আমতলী (বরগুনা)॥ সৌদি রাজ পরিবারের অর্থায়নে বরগুনার আমতলী উপজেলার সদর ইউনিয়নের মরিচবুনিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংলগ্ন সাইক্লোন সেল্টার কাম স্কুল ভবন নির্মাণ করা হয়। দ্বি-তল এ ভবন সংলগ্ন স্কুল ব্যবস্থপনা কমিটি’র সভাপতি ও ইউপি সদস্য মোতালেব মুন্সি বড় ধরনের পুকুর খনন করেছে। রাস্তা ও ভবন সংলগ্ন পুকুর খনন করায় বিদ্যালর্য়ে শিশু-কিশোরদের জীবন ঝুঁকির মধ্যে পরেছে।

জানাগেছে, সৌদিরাজ পরিবারে অর্থায়নে “ফায়েল খায়েল” দাতা সংস্থার মাধ্যমে সমুদ্র উপকুলীয় মানুষকে সামুদ্রিক জলোচ্ছাসের হাত থেকে রক্ষায় আশ্রয়কেন্দ্র ও গ্র্মাীন জনপদের শিশু- কিশোরদের মধ্যে শিক্ষার আলোকবর্তিকা ছড়িয়ে দেয়ার জন্য দ্বি-তল সাইকো¬ন সেল্টার কাম স্কুল ভবন নির্মাণ করেছে। এ প্রকল্পের অধীনে আমতলী উপজেলায় ৯টি ভবন নির্মাণ করা হয়। প্রতিটি ভবনের দু’ কোটি টাকা ব্যয় হয়। এ বছর ১২ জানুয়ারী এ ভবন গুলো সৌদি রাজ পরিবারের প্রতিনিধিরা আনুষ্ঠানিক ভাবে চাবি হস্তান্তর করে দিয়েছেন। মরিচবুনিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবনটি তার মধ্যে একটি। এ ভবন সংলগ্ন বড় ধরনের পুকুর খনন করেছে স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও ইউপি সদস্য মোতালেব মুন্সি। এ ভবনের পাশে পুকুর খনন করায় ওই বিদ্যালয়ের দেড় শতাধিক শিশু ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। যে কোন সময় বড় ধরনের দূর্ঘটনা ঘটতে পারে।

শনিবার সরেজমিনে গিয়ে দেখাগেছে, দ্বি-তল ভবন থেকে মাত্র ১৫ ফুট দুরত্বে ২’শ ফুট দৈর্ঘ্য, ১’শ ফুট প্রস্থ এবং ৩০ ফুট গভীর করে পুকুর খনন করে মাটি গাড়ী বোঝাই করে অন্যত্র নিয়ে যা”েচ্ছ। স্থানীয়রা জানান পুকুর খননের মাটি গাড়ী বোঝাই করে অন্যত্র সরিয়ে নিচ্ছে।

আমতলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মিজানুর রহমান জানান ঘটনা তদন্তের জন্য উপজেলা প্রকৌশলী ও প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারকে তদন্তপূর্বক প্রতিবেদন দেয়ার জন্য নির্দেশ দেয়া হবে।