১৪ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

জঙ্গীবাদ বিরোধী কর্মসূচী বাস্তবায়নে বাংলাদেশ একযোগে কাজ করবে

  • জাতিসংঘে আলোচনায় স্থায়ী প্রতিনিধি মোমেন

কূটনৈতিক রিপোর্টার ॥ জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুনের জঙ্গীবাদ বিরোধী কর্মসূচী বাস্তবায়নে বাংলাদেশ একযোগে কাজ করবে। জঙ্গীবাদ প্রতিরোধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জিরো টলারেন্স নীতি অনুযায়ী এই কর্মসূচী বাস্তবায়নের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে বাংলাদেশ। জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে এক আলোচনায় অংশ নিয়ে জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেন এ প্রতিশ্রুতি দেন। এদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাজনৈতিক বিষয়ক আ-ার সেক্রেটারি থমাস শ্যানন ও দক্ষিণ-মধ্য এশিয়ার বিষয়ক সহকারী পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী নিশা দেশাইয়ের সঙ্গে বৈঠক করেছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। বৈঠকে প্রতিমন্ত্রী জানিয়েছেন, জঙ্গীবাদ প্রতিরোধে বাংলাদেশ ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র একযোগে কাজ করবে।

জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে মহাসচিব বান কি মুনের নতুন জঙ্গীবাদ বিরোধী কর্মসূচীর ওপর শুক্রবার আলোচনা হয়। আলোচনায় প্রায় ৭০টি দেশের প্রতিনিধি অংশ নেন। এ সময় বাংলাদেশে জাতিসংঘের স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেন বক্তব্য রাখেন। তিনি বলেন, জাতিসংঘ মহাসচিবের জঙ্গীবাদ বিরোধী কর্মসূচীর সাত দফার সঙ্গে বাংলাদেশের বর্তমান সন্ত্রাস ও সহিংস জঙ্গীবাদ প্রতিরোধ ও দমন কর্মসূচীর সামঞ্জস্য রয়েছে। বাংলাদেশের মাটিতে স্থানীয় বা বিদেশী জঙ্গীগোষ্ঠীর স্থান না দিতে বর্তমান সরকার বদ্ধপরিকর। সন্ত্রাস মোকাবেলায় কেবল আইনশৃঙ্খলা বা প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাই যথেষ্ট নয় বরং সন্ত্রাসের অন্তর্নিহিত কারণ বা চালিকা শক্তিগুলোকেও প্রতিরোধ করা প্রয়োজন বলেও মন্তব্য করেন মোমেন। বাংলাদেশে তৃণমূল পর্যায়ে শিক্ষার বিস্তার, ধর্মীয় মূল্যবোধের প্রসার, নারী ও তরুণদের ক্ষমতায়নসহ স্থানীয় জনগণের সম্পৃক্ততায় সহিংস জঙ্গীবাদ প্রতিরোধে নেয়া নানা কর্মসূচীর কথা তুলে ধরেন তিনি। সাধারণ পরিষদের প্রেসিডেন্ট মগেন্স লিকেটফের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনায় প্রায় ৭০টি দেশের স্থায়ী প্রতিনিধি বক্তব্য রাখেন। তারা সহিংস জঙ্গীবাদের আন্তর্জাতিক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় জাতিসংঘ সনদ ও নিরাপত্তা পরিষদের সিদ্ধান্তের আলোকে সমন্বিত এবং কৌশলগত পদক্ষেপ নেয়ার পক্ষে মত দেন। এর আগে মহাসচিব বান কি মুনের কর্মসূচীর বিষয়ে সাধারণ পরিষদে একটি রেজ্যুলেশন সর্বসম্মতিক্রমে গৃহীত হয়। এপ্রিলে জেনেভায় ও জুনে নিউইয়র্কে জাতিসংঘে এ বিষয়ে উচ্চ পর্যায়ের আলোচনা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

এদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দফতরের রাজনৈতিক বিষয়ক আ-ার সেক্রেটারি থমাস শ্যানন ও দক্ষিণ-মধ্য এশিয়া বিষয়ক সহকারী পররাষ্ট্র মন্ত্রী নিশা দেশাই বিসওয়ালের সঙ্গে বৈঠক করেছেন বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্র সফররত পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। শনিবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম শুক্রবার ওয়াশিংটনে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এই দুই কর্মকর্তার সঙ্গে বৈঠক করেন। বৈঠকে তারা বাংলাদেশের গণতন্ত্র, সন্ত্রাস, ইসলামিক স্টেট, জলবায়ু পরিবর্তন, সম্প্রতি সময়ে বিদেশী হত্যা, ব্লগার হত্যাসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমের সঙ্গে থমাস শ্যাননেন ৪৫ মিনিট বৈঠক হয়। বৈঠকে থমাস শ্যাননকে ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে বাংলাদেশ সফরের জন্য ধন্যবাদ জানান প্রতিমন্ত্রী। অন্যদিকে থমাস শ্যানন বলেন, তার বাংলাদেশ সফর ফলপ্রসূ হয়েছে। এ ছাড়াও শ্যানন আগামীতে দক্ষিণ এশিয়া সফরের কথা জানালে, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী তাকে বাংলাদেশ সফরের আহ্বান জানান।